ছাত্র ইউনিয়নের ৪২তম জাতীয় সম্মেলন

আমাদের শপথের প্রদীপ্ত স্বাক্ষরে নূতন সূর্যশিখা জ্বলবে

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের ৪২তম জাতীয় সম্মেলনের উদ্বোধনী সমাবেশ [ ছবি: রতন কুমার দাস ]
একতা প্রতিবেদক : ‘আমাদের শপথের প্রদীপ্ত স্বাক্ষরে নূতন সূর্যশিখা জ্বলবে’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের ৪২তম জাতীয় সম্মেলনের উদ্বোধনী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। গত ৬ জুন বেলা ১২টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে ৩দিন ব্যাপী (৬,৭,৮ জুন) এই সম্মেলনের উদ্বোধন করেন ছাত্র ইউনিয়নের দলীয় সংগীতের রচয়িতা ও প্রখ্যাত শিশু সাহিত্যিক আখতার হুসেন। এসময় তিনি বুদ্ধিবৃত্তি দিয়ে তরুণদের আকৃষ্ট করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘নতুন যারা আসবে, তার কী দেখে আসবে? তারা আলোকিত মানুষ চাইবে, তারা বুদ্ধিবৃত্তি চাইবে, বুদ্ধিবৃত্তি দিয়ে আমাদের তাদেরকে আকর্ষণ করতে হবে।’ আখতার হুসেন বলেন, ‘তলোয়ারের জোরে যে জয় হয়, সেটা ক্ষণস্থায়ী। বুদ্ধিদীপ্তি দিয়ে যে জয় করা হয়, সেটা স্থায়ী হয়।’ উদ্বোধনী সমাবেশে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এম এম আকাশ। বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ সমৃদ্ধি ও উন্নয়নের পথে সর্বোপরি শিক্ষার অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে ছাত্র ইউনিয়ন তার ইতিহাস নির্দেশিত ভূমিকা পালন করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। সভাপতির বক্তব্যে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি দীপক শীল বলেন, ‘বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে বাণিজ্যিকীকরণ করা হয়েছে। ২০২১ সালে প্রণীত শিক্ষানীতির মাধ্যমে তারা শিক্ষাখাতকে ধ্বংস করার নীল নকশা করেছে। আজকে একটি গণতন্ত্রহীন ফ্যাসিস্ট রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। তার ধারাবাহিকতায় ছাত্র সংসদ নির্বাচনকে তুলে দিয়ে অগণতান্ত্রিক ক্যাম্পাস গড়ে তোলা হয়েছে। আমরা গণতান্ত্রিক ক্যাম্পাস চাই। আমরা রক্তপাতহীন, অসহিংস, সন্ত্রাসমুক্ত ছাত্ররাজনীতি চাই।’ সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক মাহির শাহরিয়ার রেজার সঞ্চালনায় উদ্বোধনী সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন সম্মেলন প্রস্তুতি পরিষদের চেয়ারম্যান শাহরিয়ার ইবরাহিম মিমো, আহ্বায়ক রেজওয়ান হক মুক্ত। সম্মেলনে নতুন বাজেটে শিক্ষাখাতে জিডিপির ৮ শতাংশ বরাদ্দ, একইধারার বিজ্ঞানভিত্তিক ও অসাম্প্রদায়িক শিক্ষানীতি চালু, শিক্ষা উপকরণের মূল্য হ্রাস, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নতুন জ্ঞান সৃষ্টির পথিকৃৎ এবং গবেষণামুখী প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলা, সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচনসহ ১৩ দফা দাবি জানানো হয়। এসব দাবি বাস্তবায়িত না হলে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে নিয়ে গণআন্দোলন গড়ে তোলার হুঁশিয়ারি দেন ছাত্র ইউনিয়ন নেতারা। উদ্বোধনী সমাবেশে ছাত্র ইউনিয়নের ৬০টি জেলা সংসদের হাজারো নেতাকর্মী অংশ নেন। সমাবেশ শেষে শিক্ষার্থীদের নীল পতাকার মিছিল অপরাজেয় বাংলার পাদদেশ থেকে শুরু হয়ে শাহবাগ, টিএসসি, শিক্ষা অধিকার চত্বরসহ বিভিন্ন স্থান ঘুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শারীরিক শিক্ষা কেন্দ্রে এসে শেষ হয়। ৭ ও ৮ জুন সংগঠনটির জাতীয় কাউন্সিল অধিবেশ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে টিএসসি অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..