সরকারি হাসপাতালে সেবা আর ওষুধ পেতে দিতে হয় ঘুষ

শুভ চন্দ্র শীল

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
দেশের অধিকাংশ সরকারি হাসপাতালের রোগীকে প্রয়োজনীয় ওষুধ কিনতে হয় বাইরে ওষুধের দোকান, ফার্মেসি কিংবা মেডিকেল শপ থেকে। সরকারি চিকিৎসা গ্রহণ করতে ৭৩ ভাগ রোগীকেই ব্যয় করতে হয় অতিরিক্ত টাকা। সেবা পাবার আশায় ভর্তি হওয়া ৬৯ ভাগ রোগী বাইরে থেকে ওষুধ কিনে। এমনটাই উঠে এসেছে রাজধানীর মিটফোর্ড হাসপাতালের ৬ চিকিৎসকের এক গবেষণাতে। নথিতে দেখা যায়, পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও কর্মচারীদের ঘুষ নেওয়াসহ নানা কারণে খরচ বাড়ছে রোগীদের। রাজধানীর এক হোটেলে গবেষণার ফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে এসব তথ্য তুলে ধরা হয়। দেশে সরকারি হাসপাতাল প্রায় ৭০০। সেবার মান বাড়লেও এখনো রয়েছে নানা সংকট। ঢাকার স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতালের ওপর গবেষণায় কিছু সংকট জানার চেষ্টা করে স্বাস্থ্য অধিদফতর। গবেষণায় দেখা যায়, প্রতি ৪ জন রোগীর তিনজনেরই অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় হয়। ৬৯ ভাগ রোগীকে বাইরে থেকে ওষুধ কিনতে হয়। সেবা পেতে ২০০ টাকার বেশি ঘুষ দিতে হয় অনেককে। আর অর্ধেক রোগীকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হয়েছে বাইরের ল্যাব থেকে। ৯৬ ভাগ ক্ষেত্রেই রোগীর কথা মনোযোগ দিয়ে শোনেন না চিকিৎসকরা। এসব সংকট নিরসনে হাসপাতাল তদারকি, পরীক্ষা-নিরীক্ষার যন্ত্রপাতি ও জনবল বাড়ানোর সুপারিশ করেছেন এই ৬ গবেষক। রাজধানীর এক চিত্র এই সংবাদে ফুটে উঠলেও দেশের অধিকাংশ সরকারি হাসপাতালে চিত্র একই রকম। দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে রয়েছে দুর্নীতির পাহাড় সমান অভিযোগ। প্রায় ৮০% হাসপাতালের রয়েছে– স্বজনপ্রীতি, দুর্নীতি, স্যালাইন না থাকা, সরকারি ওষুধ বিক্রয়, ল্যাব নষ্ট হয়ে পড়ে থাকা, অ্যাম্বুলেন্স সেবা না পাওয়া, তদবির ছাড়া বেড না পাওয়া, যন্ত্রপাতি না থাকা, অনিরাপদ খাদ্যবণ্ঠন, নিয়মিত পরীক্ষা-চিকিৎসা সেবা না দেওয়ার মতো হাজারো অভিযোগ। এসব অভিযোগের সাথে চিকিৎসক ও বিশেজ্ঞরাও বলছেন, বেশিরভাগ সরকারি হাসপাতালে নেই ডাক্তার, উপজেলা পর্যায়ে মাঝে মাঝে আসে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, আবাসিক ডাক্তারের সংখ্যাও কম, নার্স সংকট, বেড সংকট, ওষুধ সঠিকমতো না পৌঁছানোসহ বিভিন্ন গ্যাপ। রাজনৈতিক সংকটেরও চাপ পড়ে স্বাস্থ্যসেবাখাতে। আছে মন্ত্রী বদল, ডাক্তারদের সমন্বয়হীনতা, রাজনৈতিক দলাদলি, স্থানীয় সিন্ডিকেট ও ট্রান্সফারজনিত সমস্যা। বেসরকারি চিকিৎসা সেবা বাড়ার সাথে সাথে কমেছে সরকারি সেবার মান। এখন প্রয়োজন দেশের স্বাস্থ্য সেবায় নজর দেওয়া। সংকট সমাধানের সাথে নিয়মিত তদারকি কার্যক্রম চলমান রাখা এবং সেবার মান বৃদ্ধি করা বলছেন গবেষকরা।
শেষের পাতা
সরকার প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে কর্মসংস্থান উচ্ছেদ শুরু করেছে
ভোটাধিকার হরণ করে সরকার কর্তৃত্ববাদী শাসন কায়েম করছে
ছাত্র-জনতার ঐক্যবদ্ধ লড়াইয়ে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হবে
আশুগঞ্জ সেচ প্রকল্পে পানি সরবরাহের দাবি
গাইবান্ধায় আবারও বাম জোটের পথসভায় পুলিশের বাঁধা
চাঁদাবাজ-সন্ত্রাসী ও মদদদাতা পুলিশের বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধের ঘোষণা
সারাদেশে সিপিবির শাখা সম্মেলন চলমান
কমরেড দুলাল কুন্ডু সাম্যবাদী সমাজব্যবস্থার স্বপ্ন দেখতেন
ধর্ষণের সাথে জড়িতদের বিচারের দাবি
নিত্যপণ্যের দাম কমানোর দাবি ক্ষেতমজুরদের
আইনজীবীদের সমস্যা সমাধানে আন্দোলন গড়তে হবে
৭ দিনের সংবাদ...

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..