সরকার দেখিয়েছে ‘তারা লুটেরা সিন্ডিকেটের পক্ষে’জনগণের বিপক্ষে

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা প্রতিবেদক : ডিজেল-কেরোসিনসহ দ্রব্যমূল্য ও পরিবহন ভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশে বাংলাদেশ যুব ইউনিয়নের নেতারা বলেছেন, মধ্যরাতে হঠাৎ করে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির মাধ্যমে সরকার প্রমাণ করেছে তারা জনগণের বিপক্ষে, লুটেরা সিন্ডিকেটের পক্ষে। জনমতের বিরুদ্ধে গিয়ে, বিকল্প সমাধান চেষ্টা না করে অযৌক্তিকভাবে বৃদ্ধির মানে ৯৫ ভাগ মানুষকে সরাসরি আক্রমণ করার সমতুল্য। এসব সিদ্ধান্তে কতিপয় ব্যক্তি ও গোষ্ঠী খুবই লাভবান হয় সন্দেহ নেই, কিন্তু জনগণের ওপর বহুমাত্রিক বোঝা তৈরি হয়। পণ্য পরিবহন ও জনপরিবহন ব্যয়, কৃষি ও শিল্প উৎপাদন ব্যয় অব্যাহতভাবে বেড়ে যাবার কারণে নিত্যপ্রয়োজনীয় সব দ্রব্যের মূল্যের ঊর্ধ্বগতির চাপ তৈরি হয়। লক্ষ লক্ষ মানুষ নতুন করে দারিদ্রসীমার নিচে পতিত হয়। মধ্যবিত্ত, সীমিত ও নিম্ন আয়ের মানুষের খাদ্য বাজেট কমাতে হয়, শিক্ষা ও চিকিৎসা খাতে ব্যয় কাটছাঁট করতে হয়, নারী ও শিশুর চিকিৎসা আরও সংকুচিত হয়, ঋণ বাড়ে, প্রতিদিনের জীবন কঠিনতর হয়। সমাবেশে যুব ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দ ভোট ও ভাতের অধিকার লড়াইয়ে যুব সমাজকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানিয়েছে। গত ১৫ নভেম্বর, বিকাল ৪টায় পল্টন মোড়ে সংগঠনের সভাপতি হাফিজ আদনান রিয়াদের সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ যুব ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক খান আসাদুজ্জামান মাসুম, প্রেসিডিয়াম সদস্য ত্রিদিব সাহা, যুব ইউনিয়নের ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি চৌধুরী জোসেন, ছাত্রনেতা দীপক শীল। সমাবেশ পরিচালনা করেন সংগঠনের সহকারী সাধারণ সম্পাদক হাবীব ইমন। বক্তারা বলেন, রাজপথের লড়াইয়ের মাধ্যমে জনগণের পকেট কাটা সরকার উৎখাত হবে। মেহনতি মানুষের মৌলিক অধিকার হরণ করে কোনো সরকার টিকে থাকতে পারেনি। সমাবেশ শেষে একটি মিছিল রাজধানীর কয়েকটি সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..