কবিতা

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
মনির তালুকদার বর্ষা কখনো কখনো জাগা ভালো জলোচ্ছ্বাসে হেয়ালিতে তুলে আনা পয়োধির ঢেউ। অক্ষির অশ্রুকণায় শিল্পের প্রকাশ নিরুদ্ধ দুয়ার ভেঙে তুলে ধরে কেউ। পয়োদ তো বৃষ্টি ঢালে, বুক পাতে মাটি, অন্তরে পালন করে বৃষ্টির বিনয়, ভরে তুলে প্রাণবন্ত শস্য পরিপাটি নিবিড় নির্সগ সাজে বরাঙ্গনাময়। তুমি যখন উদ্ধত, হিমবাহ গলে সেই জলে ধূয়ে যায় মনের জঞ্জাল; তোমার হৃদকন্দরে ডুব দেয়া চলে ভাবের প্লাবণে তুমি মূর্ত চিরকাল। তুমিই নির্মল করো, মুছে দাও গ্লানি পলল হৃদয়ে বোনো আনকোরা বাণী। রেজাউল কারীম একটি ঘর হাওয়ায় হাওয়ায় উড়ে গেল অনধিক আকাশ, অধিক জীবন। বৃন্তচ্যুত পরাক্রান্তে লেগে থাকলো অপরিসীম গুঞ্জন, একক হাপিত্যেশ। কে গেছে অগম দূরে? কোথায় যাই! ভাঙা মাস্তুলে শুয়ে আছে একটি ভারী মারণাস্ত্র একটি ঘর। রঙ্গন ফুল রঙ্গন ফুলের আতিথেয়তায় মুগ্ধ যে বাতাস, তার সুখে ক্লান্তির গান গায় মিতব্যয়ী পাখির ডানা। সুরের উদ্ভাস থেকে মেঘে মেঘে ছড়িয়ে পড়ে মাতাল ধ্যানবিন্দু। বাতাসের অতীত জানো, শিকারি? কিছু বলেনা রঙ্গনের মায়ালাগা পাপড়ি ঝরে যায় রোদের জংশনে মুগ্ধতা রেখে বাতাসের গহীনে। শিশির রাজন অন্য সময় ঘাস বিচালির উঠান জুড়ে মিথেন-বাবল মুখ পুড়ে যায় সূর্য কোলনীর তাপে কুয়ার বন্দরে কেবলই মানুষ বিক্রি হয়! হরতন রুইতনের ডিগবাজি। বৃষ্টি গড়িয়ে পড়ে বারান্দায়, তোমাকে বিক্রি হতে দেখিনি কখনো। স্বপ্নময় আতরে বর্ষার যাতায়াত। ভালোবাসা! মুদ্রাখচিত ঝিনুকে: তোমাকে মনে পড়ে। ৫. রাত শহরে ডুবে যায় চামড়ার আয়না! গাড়ির হেডলাইটে ঝাপসা হয়ে আসে পুরোনো দালান মেঘের গোল্লাছুট! ছিলাম; মেঘদূত! তামার কৌটা অথবা খাট বালিশে! ঘরে ফিরি। মনে নেই আমার পলাশ হৃদয়। দূরে ট্রেন-হুইসেলে তুমি ঘুমিয়ে যেও! সজল অনিরুদ্ধ আমি এক কুনো ব্যাঙ নিজেকে লুকিয়ে রাখার মন্ত্র জানতে হয়। ঠোঁট দুটো নিপুণ সেলাইয়ের মতো সরলরেখায় রাখতে হয়। হেরা পর্বতের গুহায় ধ্যানমগ্ন পয়গম্বর আসমান থেকে কিতাব আনতেন। বোধিবৃক্ষের নিচেও কোনো বাচালতা নেই। আমি এক কুনো ব্যঙ কুয়ার ভেতরে লাফিয়ে লাফিয়ে- শেষ করে দিচ্ছি একটি জীবন। জীবনানন্দের মতো আমিও চাই মানুষ দেখে পালিয়ে যেতে সবুজ পাতায় দৃষ্টি রেখে বাড়াতে চাই চোখের ম্যারাথন। অথচ ল্যাঙের বদলে ল্যাঙ দেয়া ছাড়া সবিশেষ কিছু নেই আমার। আহা! যদি পারতাম; যদি পারতাম পাছা থাপরিয়ে থাপরিয়ে সব আসরেই হাততালি দিতে।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..