রুখো সাম্প্রদায়িকতা

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
শারদীয় দুর্গোৎসব চলাকালে গত ১৩ অক্টোবর কুমিল্লার একটি পূজামণ্ডপে ‘কোরআন অবমাননার’ কথিত অভিযোগের ছবি-ভিডিও ফেসবুকে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। এরপর কয়েকটি মন্দির ও মণ্ডপে হামলা হয়। যা থেকে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ বাঁধে। পরে চাঁদপুর, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, নোয়াখালী, রংপুরসহ অনেক জেলায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর ন্যাক্কারজনক হামলার ঘটনা ঘটে। এর দুদিন পর বিজয়া দশমীতে জুমার নামাজের পর ঢাকার বায়তুল মোকাররম থেকে মিছিল করে কয়েকশ মানুষ পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায়। একই সময়ে চট্টগ্রামের পূজামণ্ডপে হামলা হয়। ওই দিনেই প্রতিমা বিসর্জনের প্রস্তুতির মধ্যে নোয়াখালীর চৌমুহনীতে কয়েকটি পূজামণ্ডপ ও হিন্দুদের বাড়িঘরে দফায় দফায় হামলা-ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগের পর ১৪৪ ধারা জারি করে স্থানীয় প্রশাসন। এসব হামলার রেশ কাটিয়ে ওঠার আগেই ফেসবুক পোস্টকে কেন্দ্র করে গত ১৭ অক্টোবর রাতে রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের মাঝিপাড়া, বটতলা ও হাতীবান্ধা গ্রামে অন্তত ২৫টি বাড়ি-ঘরে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ মহল বলছে, ২০০৮ সালের আগে যা দেখেছি, এরপর থেকে আজ পর্যন্ত যে চিত্র এর মধ্যে কোনো পরিবর্তন নেই। প্রশাসন আগে যা ছিল, সরকারের বিভিন্ন মহলের অবস্থানও একই রকম আছে। দেখেও না দেখার ভান করা। এখন রাজনৈতিক দল, বুদ্ধিজীবীরা একটা অবস্থান নিয়েছেন। এটা একটা ইতিবাচক দিক। কিন্তু প্রশ্নটি হলো, এভাবে কেবল বিবৃতি দেওয়া কিংবা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করার মধ্য দিয়ে সমাধান হবে না। এ ছাড়া যে কোনো ধরনের সাম্প্রদায়িক সহিংসতা কিংবা সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর ওপর হামলা-নিপীড়নের পরপর পারস্পরিক দোষারোপের চর্চা থেকে বেরিয়ে আসাও জরুরি। আমরা শান্তি পাবো, যদি আমরা দেখি ব্লেম গেম না করে আমাদের দেশের রাজনীতিকরা বুদ্ধিজীবীদের নিয়ে এবং সিভিল সোসাইটির প্রতিনিধিদের নিয়ে একসঙ্গে বসে জাতীয় ঐকমত্যের ভিত্তিতে কীভাবে ধর্মীয়, জাতিগত ও সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর নিরাপত্তা শান্তি ও স্বস্তি নিশ্চিত করা যায় সে ব্যাপারে উদ্যোগ নিচ্ছেন। আমরা একটা জাতীয় ঐকমত্যের ঘোষণা চাই। অন্তত যে ঘোষণাটা দেখলে পরে বা শুনলে পরে আমরা আবারও আশা এবং আস্থায় বুক বাঁধতে পারব। আমরা কোনো ব্লেম গেম চাই না। সাম্প্রদায়িকতার সঙ্গে আমরা ব্রিটিশ আমল থেকে পরিচিত। পাকিস্তানি আমলে সেটা আমাদের সম্পূর্ণভাবে অন্ধকারের ভেতরে নিক্ষেপ করে রেখেছিল। বাংলাদেশে সেই অন্ধকার দূর করে যাত্রা শুরু হয়েছিল। কিন্তু সেই আলো সহসাই নিভে গেছে। এখানে দুটি উপাদান দেখা যাচ্ছে। একটা হচ্ছে সাম্প্রদায়িক জঙ্গি শক্তি। বিভিন্ন বাহিনীর মাধ্যমে সশস্ত্রভাবে তারা রগ কাটে, হত্যা করে। আমার মতে আরও ভয়ানক। সেটা হলো, সোশ্যাল সাইকোলজি অব কমিউনালিজম। মানুষের ভেতর, সমাজের ভেতর যা ছড়িয়ে দেওয়া হয়। এটা আরও ভয়াবহ হয়েছে। আওয়ামী লীগ বলি আর বিএনপি বলি, কোনো সরকারই জনগণের সমর্থনের ওপর ভিত্তি করে শাসন চালায় না। শাসন চালানোর জন্য তাদের কৃত্রিমভাবে ক্ষমতার ভিত্তি তৈরি করতে হয়। সেই ভিত্তি খুঁজতে গিয়ে তারা সাম্প্রদায়িকতার অস্ত্রটাকে ব্যবহার করে। দুই দল পরস্পরের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে, কার বেশি ইসলাম পছন্দ। তারা সেটা প্রমাণের জন্য নেমে পড়ে। আর তাদের রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের খেলায় কিংবা তাদের রাজনীতির সমীকরণ মেলানোর জন্য সাম্প্রদায়িকতার কার্ড ব্যবহার করে। তার প্রতিফলনই আমরা কুমিল্লা থেকে শুরু করে সবগুলো ঘটনার ক্ষেত্রে দেখতে পাচ্ছি। সরকারের সাম্প্রদায়িকতা তোষণের পরিণতিতেই এই ঘটনা ঘটেছে। আগুন নিয়ে খেলেছে সরকার। মনে করেছে সবকিছু কন্ট্রোলে রাখতে পারবে। সাম্প্রদায়িকতা রুখতে হেফাজতকে লালন করে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়া সম্ভব নয়। উদার অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক দেশ গড়তে কৃষক শ্রমিক মেহনতি মানুষের রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..