গির্জায় লক্ষাধিক শিশু যৌন নিপীড়নের শিকার

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা বিদেশ ডেস্ক : গত ৭০ বছরে ফ্রান্সে আনুমানিক ৩, ৩০, ০০০ শিশু যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে। প্রকাশিত একটি প্রধান ফরাসি প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এরকমই এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। কমিশন যে রিপোর্টটি জারি করেছে তার প্রেসিডেন্ট জাঁ-মার্ক সাওভে বলেন, বৈজ্ঞানিক গবেষণার ভিত্তিতে অনুমানটিতে পুরোহিত এবং অন্যান্য কর্মচারীদের পাশাপাশি গির্জার সাথে জড়িত অ-ধর্মীয় ব্যক্তিদের দ্বারা এই কাজ সংগঠিত হয়েছে। তিনি বলেন, প্রায় ৮০ শতাংশ ভিক্টিমই পুরুষ। একটি স্বাধীন কমিশন কর্তৃক প্রস্তুতকৃত ২, ৫০০ পৃষ্ঠার নথিটি এমন সময় প্রকাশিত যখন ফ্রান্সের ক্যাথলিক চার্চ, অন্যান্য দেশের মতো, লজ্জাজনক ঘটনার মুখোমুখি হতে চায় যা দীর্ঘদিন ধরে গোপন ছিল। কমিশন আড়াই বছর ধরে কাজ করে, ভিক্টিম এবং সাক্ষীদের কথা শুনে এবং ১৯৫০ এর দশক থেকে শুরু করে গির্জা, আদালত, পুলিশ এবং প্রেস আর্কাইভগুলি ঘেঁটে এই রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। তদন্তের শুরুতে চালু করা একটি হটলাইন ভিকটিমদের অথবা ভিকটিমকে চেনে এমন ব্যক্তিদের কাছ থেকে ৬, ৫০০ টি কল পেয়েছিল। এদিকে তথ্য প্রকাশের পর ভুক্তভোগীরা দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা ও ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়েছেন। ভ্যাটিকান এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, তদন্তে বেরিয়ে আসা চাঞ্চল্যকর ঘটনা শুনে পোপ ফ্রান্সিস কষ্ট পেয়েছেন এবং ভুক্তভোগীদের জন্য গভীর দুঃখপ্রকাশ করেছেন। ভুক্তভোগীদের নিয়ে গঠিত সাবেক একটি সংস্থার প্রধান ফ্রাঙ্কোয়া ডেভাক্স তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের সময় দুবার বলেছেন, অবশ্যই ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। এটা বিশ্বাসের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা, নৈতিকতার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা ও শিশুদের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা বলেও তিনি উল্লেখ করেন। অলিভিয়ার স্যাভিনাক নামে এক ভুক্তভোগী প্রকাশিত তদন্ত প্রতিবেদনকে ভূমিকম্পের সঙ্গে তুলনা করেছেন। একই সঙ্গে তিনি ক্ষতিগ্রস্তদের প্রকৃত ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন। ফরাসি গির্জা এরই মধ্যে ভুক্তভোগীদের আর্থিক সহায়তার পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করেছে, যা আগামী বছর থেকে শুরু হবে। ভুক্তভোগীদের কয়েকটি সংগঠন বলছে, তারা তদন্তের বেরিয়ে আসা তথ্যের ভিত্তিতে গির্জার স্পষ্ট এবং সুনির্দিষ্ট প্রতিক্রিয়া আশা করছেন।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..