ইয়েমেনে সৌদি জোটের অব্যাহত গোলা বর্ষণ

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা বিদেশ ডেস্ক : ইয়েমেনের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় সাদা প্রদেশের একটি আবাসিক এলাকায় সৌদি বাহিনীর প্রচণ্ড গোলাবর্ষণে অন্তত পাঁচজন বেসামরিক নাগরিক নিহত ও ১১ জন আহত হয়েছেন। সীমান্তবর্তী মানবে শহরের আবাসিক এলাকায় সৌদি বাহিনী ওই গোলাবর্ষণ করে। সাত বছরের সৌদি আগ্রাসন দারিদ্র্যপীড়িত ইয়েমেনকে খাদের কিনারে নিয়ে গেছে। জাতিসংঘের মানবিক ত্রাণ সংস্থার শীর্ষ কর্মকর্তা ডেভিড গ্রেজলি বলেছেন, যদিও চলতি বছরের প্রথম দিকে দুর্ভিক্ষাবস্থা এড়ানো গেছে তবে পরিস্থিতি এখনো খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং ইয়েমেনে অনেক জরুরি কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা যাচ্ছে না। আন্তর্জাতিক অঙ্গন থেকে পুরো ইয়েমেনের ওপর যুদ্ধবিরতি কার্যকর করার প্রচেষ্টা চলছে কিন্তু সৌদি আরব এ পর্যন্ত তাতে রাজি হয় নি। ফলে সানা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও হুদাইদা সমুদ্র বন্দর চালু করা যাচ্ছে না। ইয়েমেনের তিন কোটির মধ্যে দুই কোটির বেশি মানুষের জরুরি ত্রাণ সহায়তা দরকার। এদিকে ইয়েমেনের হুথি আনসারুল্লাহ আন্দোলন সমর্থিত সামরিক বাহিনী সৌদি জোটের আরো একটি গোয়েন্দা ড্রোন ভূপাতিত করেছে। ইয়েমেনের মধ্যাঞ্চলীয় মা’রিব প্রদেশের আকাশ থেকে ড্রোনটি ভূপাতিত করা হয়। ইয়েমেনের সামরিক বাহিনীর মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইয়াহিয়া সারিয়ি টুইটারে দেয়া এক পোস্টে একথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, মা’রিব প্রদেশে আজ-জুবা অঞ্চলের আকাশে গুপ্তচরবৃত্তি চালানোর সময় চীনের তৈরি সিএইচ-৪ মডেলের গোয়েন্দা ড্রোনটি ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে ভূপাতিত করা হয়। সিএইচ-৪ মডেলের ড্রোন সাড়ে তিন হাজার থেকে পাঁচ হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে পারে এবং একটানা ৩০ থেকে ৪০ ঘণ্টা উড়তে পারে। এই ড্রোন একইসঙ্গে ছয়টি ক্ষেপণাস্ত্র এবং ২৫০ থেকে ৩৪৫ কেজি ওজন বহন করতে পারে। চীনে তৈরি এই ড্রোন পাঁচ হাজার মিটার উঁচু থেকে ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়তে পারে। ফলে এটি বেশিরভাগ বিমান-বিধ্বংসী কামানের আওতার বাইরে থাকে। এর আগে গত ২৭ সেপ্টেম্বর ইয়েমেনের হুথি সমর্থিত সামরিক বাহিনী মার্কিন বোয়িং কোম্পানি নির্মিত একটি ড্রোন ভূপাতিত করে। ড্রোনটি মা’রিব প্রদেশের আকাশে গুপ্তচরবৃত্তি চালানোর সময় ধ্বংস করা হয়।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..