‘সুঁই ও ফাল’

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা প্রতিবেদক : গ্রামবাংলায় এটা তো কারো অজানা নয় যে, খারাপ মানুষেরা অসৎ উদ্দেশে ‘সুঁই হয়ে ঢুকে ফাল হয়ে বেরোয়’। তার মানে, সুঁইয়ের একটা কেরামতি আছে। ছোট্ট সুঁই সে চাইলেই বড় ফাল হতে পারে। এটা সুঁইয়ের একটা বিশেষ গুণ। কথা হচ্ছে, সুঁই তার এই গুণের কথা আগে জানতে পারে নাই। তাই সামান্য সুঁই সামান্য হিসেবেই পড়েছিল। কিন্তু যখনি সে হাসপাতালের দেখা পেল, সেখানকার ভাল ভাল মেধাবী ও সৎ মানুষদের সংস্পর্শে এলো তখনি সে বুঝতে পারলে জগতে তার মূল্য সামান্য নয়। আর তৎক্ষণাৎ সে তাঁর দাম বাড়াতে শুরু করল। ফলে এখন যদি কেউ আড়াইশ টাকার সুঁই ২৫ হাজার টাকায় কিনে তাহলে তার দোষ কোথায়? সম্প্রতি একটি গণমাধ্যমের খবরে বেরিয়েছে যে, রাজধানীর নিউরো সায়েন্সেস হাসপাতালে নাকি আড়াইশ টাকা দামের এক-একটা সুঁইয়ের ক্রয়মূল্য দেখানো হয়েছে ২৫ হাজার টাকা। তিন-চারশ টাকা দামের টিস্যু ফরসেপস কেনা হয়েছে ২০ হাজার টাকায়, ৬০ টাকা দামের ইউরিনারি ব্যাগ এক হাজার ৩০০ টাকায়। অনেকে বলছেন, এতে দুর্নীতি হয়েছে! আসলে এখানে কোনো দুর্নীতি হয়নি বরং বলা উচিত ‘সুঁই ফাল হয়ে বেরিয়ে গেছে’। এখন করোনার সময়। তাই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কোনো অস্বাস্থ্য কাজ করলেও আমাদের মনের সুখে সেটা চেপে রাখা উচিত। কারণ, এই সুঁই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে থাকতে থাকতে হয়তো একদিন কুড়াল হবে। কুড়াল থেকেও বড় কিছু হতে পারে। তখন সুঁইয়ের মাহাত্ম্য আমরা আরও বেশি বুঝতে পারব?

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..