প্রণোদনার ঋণেও ছাড় চায় গার্মেন্ট মালিকরা

Posted: 10 জানুয়ারী, 2021

একতা প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কাটিয়ে উঠতে সচল রফতানিমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলোর অনুকূলে ঘোষিত আর্থিক প্রণোদনা হিসেবে দেয়া হয়েছে সহজ শর্তের ঋণ। গত ছয় মাস গার্মেন্ট মালিকদের এই ঋণের কিস্তি দিতে হয়নি। চলতি মাসের জানুয়ারি থেকে সমান ১৮টি কিস্তিতে প্রতি মাসের শেষ সপ্তাহের দ্বিতীয় কর্মদিবসে অর্থ পরিশোধের বিষয়ে চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এই অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতেই ঋণের কিস্তি দিতে ছাড় চায় গার্মেন্ট মালিকরা। গার্মেন্ট মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সভাপতি রুবানা হক গত ৭ জানুয়ারি এ ব্যাপারে একটি খোলা চিঠি দিয়েছেন। চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে- পোশাক শিল্পের আজকের বাস্তবতা হলো- বাংলাদেশ ব্যাংক হতে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে ২০২১ সালের জানুয়ারির তৃতীয় সপ্তাহের মধ্যে প্রণোদনা প্যাকেজের অর্থ পরিশোধের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। গত পরশুদিন এ মর্মে কেন্দ্রীয় ব্যাংক পত্র জারি করেছে। লক্ষণীয় বিষয় হলো, এই নির্দেশনা এমন সময়ে দেয়া হলো, যখন কিনা করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে শিল্প গভীর অনিশ্চয়তায় হাবুডুবু খাচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে বর্তমান প্রণোদনা প্যাকেজের ঋণের সুদ অন্ততপক্ষে ছয়মাসের জন্য স্থগিতকরণ অথবা প্রণোদনা পরিশোধের মেয়াদ অন্ততপক্ষে আরও অতিরিক্ত একবছর (বর্তমানে ২৪ মাস) সম্প্রসারিত করা না হলে শিল্পকে টিকিয়ে রাখা দূরুহ হবে। রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) সদ্য ২০২০ এর ডিসেম্বর মাসের যে রফতানি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, সেখানেও আমাদের রফতানির উদ্বেগজনক চিত্র বহাল আছে। ডিসেম্বর মাসে পোশাক রফতানিতে ধারাবাহিক পতন অব্যাহত থেকে পতন হয়েছিল ৯ দশমিক ৬৪ শতাংশ, যার কারণে ২০২০ সালের বার্ষিক রফতানিতে ১৬ দশমিক ৯৪ শতাংশ দৃষ্টান্তহীন পতন ঘটেছে। ২০২০ এর জুনের পর থেকে ওভেন পোশাক রফতানিতে সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতি হয়েছে ডিসেম্বর মাসে। এ মাসে রফতানি প্রবৃদ্ধি হয়েছে ঋণাত্মক ১৮, ০৭ শতাংশ। উল্লেখিত মাসে নিটওয়্যার রফতানি ঋণাত্মক শূন্য দশমিক ৪৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে তুলনামূলকভাবে স্থিতিশীল অবস্থানে রয়েছে। এর পেছনে রয়েছে স্থানীয় পর্যায়ে সৃষ্ট নিটওয়্যারের জন্য চাহিদা। গত ২ বছরের রফতানির প্রবণতার দিকে তাকালে আমরা দেখি যে, অক্টোবর’ ২০১৮ থেকে অক্টোবর’ ২০২০ এর সময়ে রফতানি প্রবৃদ্ধি হয়েছে ঋণাত্মক ২৬ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ এবং নভেম্বর’২০১৮ থেকে নভেম্বর’২০২০ সময়ে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ঋণাত্মক ১৪ দশমিক ৩২ শতাংশ। ডিসেম্বর মাসের রফতানি (২ বছরের) প্রবৃদ্ধির পরিবর্তন হয়েছে ঋণাত্মক ৮ দশমিক ৫৫ শতাংশ। এর অর্থ হলো, আমরা ২০২০ সালে যা রফতানি করেছি, তা ২০১৮ সালে যা রফতানি করেছিলাম তার তুলনায় ৮ দশমিক ৫৫ শতাংশের কম। সমগ্র বিশ্ব দেখেছে, ইউরোপ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে লকডাউনের প্রভাব কী এবং খুচরা বিক্রয় ও চাহিদার ওপর সেগুলো কী প্রভাব রেখেছে। বিশ্ব দেখেছে স্মরণকালের সবচেয়ে মন্দা ক্রিসমাস সেল। এসবের প্রভাবে ২০২০ এর সেপ্টেম্বরের পর থেকে পণ্যের মূল্য কমেছে প্রায় ৫ শতাংশ। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে অনিশ্চয়তা আর শঙ্কায় আমা বিপর্যস্ত। যেহেতু ভ্যাকসিন প্রাপ্যতা এখনো নিশ্চিত হয়নি এবং এর প্রভাব বিশ্ব অর্থনীতিতে বিরাজ করছে, তাই আমাদের আশঙ্কা, রফতানির এই নিম্নমূখী প্রবণতা সম্ভবত চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত বজায় থাকবে।