ঈদের আগে নিরাপদে-নির্বিঘ্নে হকারি করার দাবি

Posted: 26 জুলাই, 2020

একতা প্রতিবেদক ঃ পরিবার পরিজন নিয়ে অনাহারের হাত থেকে বাঁচতে ঈদের আগে ঢাকা শহরের ফুটপাতে হকার বসানোর দাবিতে মতিঝিলের ডিসি কার্যালয় ঘেরাও ও স্মারকলিপি পেশ করেছে বাংলাদেশ হকার্স ইউনিয়ন। ২১ জুলাই দুপুর আড়াইটায় বৈরি আবহাওয়ার মধ্যে ঘেরাও কর্মসূচি পালিত হয়। বায়তুল মোকাররম লিংক রোড থেকে মিছিল শুরু হয়ে জিপিও মোড়ে গেলে পুলিশ মিছিলটি আটকে দেয়, পুলিশের বাধার মুখে অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সহ-সভাপতি আবুল কামাল আজাদ। স্মারকলিপি পাঠ ও বক্তব্য রাখেন হকার্স ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সেকেন্দার হায়াৎ। বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জসিম উদ্দিন, নির্বাহী সদস্য আফসার আলী, কেন্দ্রীয় নেতা আনিচুর রহমান পাটোয়ারী, শাহিনা আক্তার। সমাবেশে বক্তারা বলেন, দীর্ঘ ৩ মাস করোনা মহামারিতে লকডাউন থাকার ফলে হকাররা কর্ম হারিয়ে সহায়-সম্বল সবই শেষ করে ফেলে। লকডাউন শেষে সরকারি নির্দেশনা মেনে আমরা হকারি করছি। কিন্তু বিভিন্ন জায়গায় বিশেষ করে বায়তুল মোকাররম মসজিদের চার পাশে রাজনৈতিক দল-অঙ্গ সংগঠনের কোন্দল, চাঁদাবাজি, দখলদায়িত্বের বলি হচ্ছে গরিব, অসহায় নিরীহ হকাররা। একদিকে করোনা, অন্যদিকে সারাদেশে বন্যার পানিতে প্রতিদিন হাজার হাজার গ্রাম ডুবছে। এই সময় ঈদকে সামনে রেখে যদি উচ্ছেদের স্বীকার হতে হয় তাহলে পরিবার-পরিজন নিয়ে আত্মহত্যা ছাড়া আর কোনো পথ খোলা থাকবে না। করোনা মহামারির মধ্যে এমনিতেই উপার্জন না থাকার কারণে হকাররা পরিবারের সদস্য নিয়ে অর্ধহারে-অনাহারে মানবেতর জীবনযাপন করছে। ৪/৫ মাসের ঘর ভাড়া বকেয়া পড়েছে। প্রতিদিন বাড়ির মালিকের নির্যাতন সহ্য করতে হচ্ছে। ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়া বন্ধ হয়ে গেছে। নেতৃবৃন্দ বলেন, সামনে পবিত্র ঈদুল আযহা। এই কঠিন বাস্তবতা থেকে উত্তরণের জন্য সামনে হাতেগোনা কয়েকটি দিন রয়েছে। এই কয়েকটি দিন যদি আমরা নিরাপদে নির্বিঘেœ হকারি করতে পারি তাহলে পরিবার-পরিজন নিয়ে দু-মুঠো খেয়ে পরে বাঁচার চেষ্টা করতে পারব। এই মানবিক দিক বিবেচনা করে ঈদ পর্যন্ত হকারদের বসার ব্যবস্থার দাবি করেন। সমাবেশ শেষে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সেকেন্দার হায়াতের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের একটি প্রতিনিধি কাকরাইলস্থ মতিঝিল বিভাগের ডিসি অফিসে ডিসির নিকট স্মারকলিপি পেশ করেন।