করোনাভাইরাস শনাক্তকরণের পদ্ধতি উদ্ভাবন গণস্বাস্থ্য’র

Posted: 22 মার্চ, 2020

একতা প্রতিবেদক : মানবদেহে নভেল করোনাভাইরাস শনাক্তের সহজ এবং কম খরচের একটি পদ্ধতি উদ্ভাবনের দাবি করেছে বাংলাদেশি সংস্থা গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র। কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, এই পদ্ধতিতে ১৫/২০ মিনিটের মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্ত করা সম্ভব। দেশে করোনাভাইরাস শনাক্ত করা হচ্ছে একমাত্র সরকারি সংস্থা আইইডিসিআরের গবেষণাগারে, যেখানে ব্যবহার করা হচ্ছে আমদানি করা কিট। জাফরুল্লাহ বলেন, ‘আমরা যেটা উদ্ভাবন করেছি সেটা কিট নয়, এটা একটা ডাইরেক্ট মেথড, যার মাধ্যমে আমরা যে কোনো মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন কি না, তা শনাক্ত করতে পারব খুব কম সময়ে। খরচ একেবারেই অল্প। মানুষের ব্লাড গ্রুপ যেভাবে পরীক্ষা করে, এটা ওইরকম একটা সহজ পদ্ধতি। এই পদ্ধতিতে একজন রোগীর শরীর থেকে একটু রক্ত নিয়ে আমি সঙ্গে সঙ্গে বলে দিতে পারব, তার করোনাভাইরাসের সংক্রমন হয়েছে কি, হয়নি।’ সরকার পরে এই প্রক্রিয়ার সরঞ্জাম উৎপাদনে গণস্বাস্থ্যকে অনুমতিও দিয়েছে। জাফরুল্লাহ জানান, এই পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছেন গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিটিক্যালসের প্রধান বিজ্ঞানী বিজন কুমার শীল। ‘২০০৩ সালে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সার্স ভাইরাসের কিট তৈরি করেছিলেন মাইক্রোবায়োলজির অধ্যাপক বিজন। ওই সময়ে তিনি সিঙ্গাপুরে কর্মরত ছিলেন। দুই বছর যাবত তিনি গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিটিক্যালসের প্রধান বিজ্ঞানী হিসেবে কাজ করছেন, ’ বলেছেন তিনি। কবে নাগাদ এই পদ্ধতিতে শনাক্তকরণ শুরু করতে পারবেন- জানতে চাইলে দেশে আমলান্ত্রিক জটিলতা নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেন ডা. জাফরুল্লাহ।