দেশে একজনের মৃত্যু, আরেকজন ‘আশঙ্কাজনক’

Posted: 23 মার্চ, 2020

একতা প্রতিবেদক : মহামারী আকারে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ২০ জনকে শনাক্ত করার খবর জানিয়েছে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। অপর্যাপ্ত কিট ও চিকিৎসা উপকরণের ঘাটতি নিয়ে সমালোচনার মধ্যে ২০ মার্চ সংবাদ সম্মেলনে অধিদপ্তর ব্রিফিংয়ে সর্বশেষ এ খবর দেয়। এর আগে গত সপ্তাহে ভাইরাসে একজনের মৃত্যুও হয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে সত্তরোর্ধ্ব একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলেও জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতান। তিনি বলেন, সত্তরোর্ধ্ব ওই ব্যক্তি ‘ক্রিটিক্যাল কনডিশনে’ আছেন। তার অন্য ধরনের স্বাস্থ্য জটিলতা আছে এবং তাকে আইসিইউতে রাখা হয়েছে। এদিন নতুন আক্রান্ত যে তিনজনের খবর দিয়েছে তারা তার মধ্যে ত্রিশোর্ধ্ব পুরুষ রোগী ইতালি ও জার্মানি ঘুরে এসেছেন। আর বাকি দুজন সংক্রমিত হয়েছেন অন্যদের মাধ্যমে। তাদের মধ্যে ওই নারী ইতালিফেরত একজনের সংস্পর্শে এসেছিলেন। ব্রিফিংয়ে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিড-১৯ আক্রান্ত সন্দেহে ল্যাবরেটরি পরীক্ষার জন্য আইসোলেশনে রাখা হয়েছে ৩০ জনকে। এছাড়া পরীক্ষার জন্য গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৩৬ জনের। এই সময়ে ৪৪ জন বিদেশফেরত ব্যক্তিকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে নেওয়া হয়েছে। আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআর, বি) এক ব্যক্তিকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হিসাবে শনাক্ত করার গুঞ্জনের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করে এক সাংবাদিক জানতে চেয়েছিলেন, তাকেও আক্রান্তের তালিকায় রাখা হয়েছে কি না। উত্তরে আইডিসিআরের মেডিকেল এন্টোমোলজি বিভাগের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এএসএম আলমগীর বলেন, ‘ওই ব্যক্তির রি-টেস্টিংয়ের প্রয়োজন রয়েছে।’ বাংলাদেশে নভেল করোনা ভাইরাসের ‘কমিউনিটি ট্রান্সমিশনের’ (সামাজিকভাবে একজন থেকে আরেকজনে ছড়িয়ে পড়া) কোনো ঘটনা পাওয়া গেছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখন বিদেশ ফেরতদের পরিবারের সদস্যদের মধ্যে আক্রান্ত পাচ্ছি আমরা। পরিবারের বাইরে কমিউনিটি ট্রান্সমিশন এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে এরই মধ্যে মাদারীপুরের শিবচরকে অবরুদ্ধ করে রাখারও খবর পাওয়া গেছে। সেখানে গণপরিবহন, দোকানপাট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বিদেশফেরতদের কোয়েরেন্টাইন নিশ্চিত করতে নামানো হয়েছে সেনাবাহিনী। সমাবেশ ও গণজমায়েত নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আবার এতকিছুর মধ্যেও তিন আসনে উপনির্বাচন নিয়ে নির্বাচন কমিশনের ‘গোঁয়ার্তুমি’ নিয়েও দেশজুড়ে ব্যাপক সমালোচনা চলছে।