ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা, দুঃশাসন হঠাও ব্যবস্থা বদলাও, বিকল্প গড়ো

গাজীপুরে সিপিবির পদযাত্রায় হামলা

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গাইবান্ধায় সিপিবির পদযাত্রা
একতা প্রতিবেদক : জনগণের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা, দুঃশাসন হঠাও, ব্যবস্থা বদলাও, বিকল্প গড়ো জাতীয় এ দাবির পাশাপাশি স্থানীয় বিভিন্ন দাবিতে দেশজুড়ে পদযাত্রা করছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)। মাসব্যাপী এ পদযাত্রায় অনেক স্থানেই সরকার ও প্রশাসনের বাধার মুখে পড়েছে। গত ১৫ নভেম্বর সন্ধ্যায় গাজীপুর কালিয়াকৈরে সিপিবির পদযাত্রায় পুলিশ ও সরকারি দলের নেতাকর্মীরা হামলাও চালিয়েছে। এদিন কালিয়াকৈর ও আশুলিয়া থানা যৌথভাবে সফিপুর পাশা গেট থেকে এ পদযাত্রাটি শুরু করেছিল। কালিয়াকৈর থানার ওসি আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশ এবং ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মীরা এ হামলা চালায় বলে অভিযোগ নেতাকর্মীদের। হামলাকারীরা সিপিবির ব্যানার ফেস্টুনও ছিনিয়ে নেয়। সিপিবি গাজীপুর জেলা কমিটির সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য ওয়াহিদুজ্জামান, জেলা কমিটির নেতা আমিনুল ইসলাম শ্রমিক নেতা এনামুল হক মনি, আশরাফুল ইসলামসহ কয়েকজন আহত হয়েছে। গাইবান্ধা: জনগণের ভোটাধিকার, কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় দখলমুক্ত, সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধ, জাতীয় ন্যূনতম মজুরী ১৬ হাজার টাকা নির্ধারণ, ভূমিহীন

নরসিংদী বেলাবো উপজেলা
ক্ষেতমজুরসহ গ্রামীণ মজুরদের রেশন কার্ড, ধর্মীয় সংখ্যালঘু, আদিবাসীদের ওপর জুলুম-অত্যাচার বন্ধ, ভারতের সাথে জাতীয় স্বার্থবিরোধী অসমচুক্তি বাতিলসহ ১৭ দফা দাবিতে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির ডাকে দেশব্যাপী পদযাত্রা কর্মসূচির অংশ হিসেবে সিপিবি গাইবান্ধা জেলা কমিটির ১০০ কিলোমিটার পদযাত্রা গত ১১ নভেম্বর শুরু হয়েছে। এই পদযাত্রার উদ্বোধন করেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জেলা সভাপতি মিহির ঘোষ। মালিবাড়ী ইউনিয়নের ১০ কিলোমিটার পদয়াত্রায় ৪টি পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় পদযাত্রায় ওই ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম থেকে লাল পতাকা আর বিভিন্ন দাবি সম্বলিত প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে পদযাত্রায় অংশ নেয়। পথসভাগুলোতে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সিপিবি জেলা সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, জেলা কৃষক সমিতির সভাপতি সুভাষ শাহ রায়, সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য মাহমুদুল গনি রিজন, তপন কুমার বর্মন, ছাদেকুল ইসলাম, জাহঙ্গীর মাষ্টার, জেলা কমিটির সদস্য সন্তোষ বর্মন, আসোয়াদ আলী, স্থানীয় নেতা মুকুল, মাহবুব,

রংপুরের মিঠাপুকুর
চাঁন মিয়া, আয়নাল, আব্দুল আজিজ প্রমুখ। এক সপ্তাহে সদর উপজেলার ৩টি পয়েন্টে থেকে ২৫ কিলোমিটার ও সাঘাটা উপজেলার একটি পয়েন্টে ১৫ কিলোমিটার মোট ৪০ কিলোটিার পদযাত্রায় ১৪টি পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। এসব পদযাত্রায় চলাকালে বিভিন্ন গ্রাম থেকে কমরেডরা কাস্তে হাতুড়ি খচিত লাল পতাকা আর ১৭দফা দাবিসহ স্থানীয় দাবি সম্বলিত ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে পদযাত্রায় অংশ নেয়। প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে লাল পতাকার এই মিছিলে অনেক শুভাকাঙ্খী ও সাধারণ মানুষকেও অংশ নিতে দেখা গেছে। ১১ নভেম্বর পদযাত্রার উদ্ধোধনীতে সিপিবির প্রেসিডিয়াম সদস্য মিহির ঘোষ বলেন, জনগণের ভোটাধিকার, বর্তমান সরকারের দুঃশাসনের অবসানসহসহ ১৭ দপা দাবি আর জনজীবনে স্থানীয় সমস্যা সমাধানে আন্দোলন গড়ে তোলার মধ্য দিয়ে দেশে একটি বিকল্প রাজনীতির উত্থান ঘটানোর লক্ষে সিপিবি সারাদেশে এই পদযাত্রা কর্মসূচির ডাক দিয়েছে। ওইদিন বেলা ১২টায় মালিবাড়ী ইউনিয়নের কাবিলের বাজার থেকে শুরু হয়ে ঝাউবাড়ি-গোডাউন বাজার হয়ে ১০ কিলোমিটার পদযাত্রা শেষে বিকেল ৪টায় আবারও কাবিলের বাজার এসে শেষ হয়। এসময় বিভিন্ন

গাইবান্ধার দারিয়াপুর
স্থানে ৪টি পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। বক্তারা ভারতের সাথে অসম চুক্তি বাতিলের দাবি জানিয়ে বলেন, তিস্তার পানির চুক্তি জন্য বাংলাদেশের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়ে এলেও সরকার ভারতের কাছ থেকে তা নিতে সক্ষম হয়নি। এবার অসম চুক্তির মাধ্যমে উল্টা ফেনী নদীর পানি ভারতকে কেন দেয়া হলো দেশের মানুষ তা জানতে চায়। বক্তারা অবিলন্বে এই অসম চুক্তির বাতিল দাবি করেন। বক্তারা বলেন, ভূমিহীন ক্ষেতমজুরসহ গ্রামীন মজুরদের রেজিষ্ট্রেশন কার্ড সরবরাহ, জাতীয় নিম্নতম মজুরী ১৬ হাজার টাকাসহ দুর্নীতির বিরুদ্ধে যে অভিযান চলছে তা অব্যাহত রাখার জন্য জোর দাবি জানান। পরদিন সদর উপজেলা কামারজানী ইউনিয়নের বিভিন্ন সড়কে বিকেল ৩টা থেকে ৫টা পর্যন্ত পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। কামারজানী বন্দর শুরু হয়ে ব্রহ্মপুত্র নদীর বাঁধ দিয়ে নতুন বন্দর হয়ে উত্তর গিদারি একাংশ দিয়ে ৭ কিলোমিটার পদযাত্রা শেষে কামারজানী বন্দরে এসে শেষে হয়। পদযাত্রা চলাকালে ২টি পথসভায় বক্তব্য রাখেন জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য মিহির ঘোষ, জেলা সিপিবি’র সাধারণ

খুলনা মহানগর
সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য তপন কুমার বর্মন, ক্ষেতমজুর নেতা মশিউর রহমান মইশ্যাল, কামারজানী শাখার নেতা এমদাদুল হক, আক্কাস আলী প্রমুখ। এসময় বক্তারা বলেন, এক সময় জেলার বৃহৎ এই কামারজানি বন্দর বার বার ভাঙ্গনের কবলে পড়লেও স্থায়ী ভাঙ্গনরোধে সরকার কোন উদ্যোগ গ্রহণ করেনি, বরং বন্যার সময় অস্থায়ী কাজের নামে কোটি কোটি টাকা লোপাট করা হয়েছে। বক্তারা ঐতিহ্যবাহী কামারজানী বন্দর রক্ষায় দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা করে ভাঙ্গনরোধের দাবি জানান। বক্তারা এই এলাকার খাস জমি ভূমিদুস্যদের হাত থেকে রক্ষা করে প্রকৃত ভূমিহীন ক্ষেতমজুরদের সুষ্ঠু বন্টনের দাবি জানান। ১৩ নভেম্বর সাঘাটা উপজেলা কমিটির উদ্যোগে ১৫ কিলোমিটার সড়ক পদযাত্রা করা হয়। উপজেলার উল্লা সোনাতলা থেকে বেলা ১২টায় শুরু হয়ে ভন্নতের বাজার, কচুয়া বাজার, মানিকগঞ্জ হয়ে বিকেল ৪টায় বোনারপাড়ায় এসে শেষে হয়। এসময় চারটি পথসভায় অনুষ্ঠিত হয়। পথসভায় বক্তব্য রাখেন জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য মিহির ঘোষ, সিপিবি সাঘাটা

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ
উপজেলা সভাপতি রেজাউল করিম সুইট, জেলা কমিটির সদস্য ও সাধারণ সম্পাদক যোজ্ঞেস্বর বর্মণ, নিবারণ চন্দ্র নুপু, জুয়েল ও ছাত্র ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা সংসদের সভাপতি পংকোজ সরকার প্রমূখ। বক্তারা বলেন, গ্রামীণ মজুরদের রেশনিং ব্যবস্থা চালু, জাতীয় নিম্নতম মজুরী ১৬ হাজার টাকা নির্ধারণসহ দুর্নীতির বিরুদ্ধে যে অভিযান চলছে তা অব্যাহত রাখার জন্য জোর দাবি জানান। বক্তারা এসময় বলেন, সাঘাটা-ফুলছড়ি উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন ব্রক্ষ্রপুত্র নদীগর্ভে চলে গেলেও ভয়াবহ ভাংগন কবলিত দুই উপজেলা রক্ষায় দীর্ঘমেয়াদী স্থায়ী কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। এই দুই উপজেলা নদী সংস্কারের নামে প্রতিবছর কোটি কোটি টাকা ভাঙ্গনরোধে বরাদ্দ এনে তা লুটপাট করা হয়েছে। ১৪ নভেম্বর গাইবান্ধা সদর উপজেলার দারিয়াপুর থেকে লক্ষ্মীপুর রাস্তা সংস্কার ও লক্ষ্মীপুর বন্দরের মসজিদ সংলগ্ন রাস্তা সংস্কারের দাবিতে ৮ কিলোমিটার পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বেলা ২টায় দারিয়াপুর থেকে পদযাত্রা শুরু হয়ে খোর্দ্দ মালিবাড়ী চৌরাস্তা, মাঠ বাজার ও বালাআটা শেষে বিকেল ৪টায় এসে পৌঁছে

সুনামগঞ্জ
লক্ষীপুর বাজারে। সেখানে অনুষ্ঠিত হয় সমাবেশ। দীর্ঘদিন রাস্তা সংস্কার না হওয়ায় বিক্ষুদ্ধ শতাধিক এলাকাবাসী সমাবেশে অংশ নিয়ে প্রতিবাদ জানায়। সমাবেশে বক্তারা বলেন, দারিয়াপুর থেকে লক্ষ্মীপুর রাস্তাটি দীর্ঘদিন থেকে সংস্কার না করায় বর্তমানে চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। কিন্তু এই রাস্তা সংস্কারের কোন উদ্যোগ কর্তৃপক্ষ নিচ্ছে না। সেই সাথে লক্ষ্মীপুর বন্দরের মসজিদ সংলগ্ন রাস্তাটিতে দীর্ঘদিন থেকে বিশাল গর্তের সৃষ্টি হয়ে আছে। প্রতিনিয়ত সেখানে ঘটছে দুর্ঘটনা। বক্তারা এসময় বলেন, গাইবান্ধা-সুন্দরগঞ্জ সড়কের মত একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়কে কিভাবে দিনের পর দিন এভাবে গর্ত হয়ে থাকে তা ভেবে বিস্মিত হতে হয়। বক্তারা অনতিবিলম্বে রাস্তা সংস্কারের কাজ না করা হলে এলাকার মানুষকে সাথে নিয়ে রাস্তা অবরোধ হরতালের মতো কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে বলে হুসিয়ারি উচ্চারণ করেন। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য মিহির ঘোষ, জেলা সিপিবি’র সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, জেলা কমিটির সম্পাদকমন্ডলীর

মিরপুরের ৮-১২ নং ওয়ার্ড
সদস্য তপন কুমার বর্মণ, সদর উপজেলা সিপিবি’র সভাপতি ছাদেকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. মুরাদ জামান রব্বানী, জেলা কমিটির সদস্য সুভাষ শাহ রায়, সন্তোষ বর্মণ, মশিউর রহমান মইশাল, সিপিবি দারিয়াপুর অঞ্চল কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, লক্ষ্মীপুর শাখার সম্পাদক আব্দুল জলিল প্রমুখ। আগামী ৩০ নভেম্বর জেলা শহর সংলগ্ন এলাকা থেকে পদযাত্রা নিয়ে স্থানীয় শহিদ মিনারে এসে ১০০ কিলোমিটার পদযাত্রা সমাবেশের মধ্য দিয়ে শেষ হবার কথা রয়েছে। ঠাকুরগাঁও: দেশব্যাপী পদযাত্রা কর্মসূচীর অংশ হিসেবে সিপিবি পীরগঞ্জ উপজেলা কমিটি ঠাকুরগাঁও-এর উদ্যেগে গত ১০ নভেম্বর ১০ কিলোমিটার পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হয় । ৭নং হাজীপুর ইউনিয়নের বোর্ড হাট থেকে শুরু করে ৯নং সেনগাও ইউনিয়নের চৌরঙ্গী বাজার পর্যন্ত এ পদযাত্রা কর্মসূচী পালিত হয়। এ সময় হাজীপুর বোর্ড হাট, আমতলী বাজার, নতুন হাট, লেংরা টাউন বাজার ও চৌরঙ্গী বাজারে পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। পথসভায় বক্তব্য রাখেন সিপিবি পীরগঞ্জ উপজেলা কমিটি ঠাকুরগাঁও এর সভাপতি এনামুল হক দুলাল, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবু সায়েম,

সূত্রাপুরের ৪৫-৪৬নং ওয়ার্ড
সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য মোর্তূজা আলম, মেহেদী হাসান লেনিন, সদস্য প্রভাত সমির, মসিহর রহমান, ছাত্র নেতা লিটন সরকার ও শুভ শর্মা। খুলনা: দুঃশাসন হঠাও, ব্যবস্থা বদলাও, বিকল্প গড়ো, জান বাঁচাও, দেশ বাঁচাও স্লোগানকে সামনে রেখে গ্যাস-পানির দাম বৃদ্ধি, চাকরিবিহীন কথিত উন্নয়ন, শিক্ষা-স্বাস্থ্য নিয়ে ব্যবসা, সামাজিক নৈরাজ্য, ধর্ষণ-খুন-রাহাজানি, শিশু ও নারী হত্যা-পাচার, মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজী, সুন্দরবন ধ্বংস, সড়কে অনিয়ম, ব্যাংকগুলোর অব্যবস্থাপনা, নৈরাজ্য, লুটপাট, ক্যাসিনো বাণিজ্যের মাধ্যমে সরকারি দলের লুটপাট প্রভৃতির বিরুদ্ধে এবং ভোট ও ভাতের দাবিতে ১৫ নভেম্বর পদযাত্রা করে সিপিবি খুলনা মহানগর কমিটি। পদযাত্রাটি সকাল ১০টায় বয়রা বাজার বাসস্ট্যান্ড থেকে শুরু হয়ে খুলনা মেডিকেল কলেজ, সোনাডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড, এম এ বারী সড়কস্থ আলীর ক্লাব মোড় থেকে বানরগাতী, নর্থখাল ব্যাঙ্ক রোড দিয়ে শেরে বাংলা রোডস্থ আমতলা পুরোন নির্বাচন কমিশন অফিসের সামনে দিয়ে রায়পাড়া, মতলেবের মোড়, দোলখোলা, পিটিআই মোড়, টুটপাড়া কবরখানা মোড়, হাজী মহসীন রোড, যশোর রোড হয়ে হাদিস

পল্টন শাখা
পার্কে এসে শেষ হয়। কর্মসূচিতে খুলনা–মহানগর সভাপতি এইচ এম শাহাদাৎ, সাধারণ সম্পাদক এড. মো. বাবুল হাওলাদার, সদর থানা সাধারণ সম্পাদক এড. নিত্যানন্দ ঢালী, সোনাডাঙ্গা থানা সাধারণ সম্পাদক রুস্তম আলী হাওলাদার, ওয়াহিদুর রেজা বিপলু, হুমায়ুন কবির, শেখ জাকারিয়া, নাহিদ হাসান উপস্থিত ছিলেন। যশোর: দুর্নীতি, সন্ত্রাস, সাম্প্রদায়িকতা ও সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে রুখে দাড়ানোর দাবিতে ১৪ নভেম্বর বিকাল ৪ টায় যশোর জেলা আইনজীবি সমিতির ১নং ভবনের সামনে থেকে মনিহার পর্যন্ত বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)র যশোর জেলা কমিটির আয়োজনে পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। এই পদযাত্রা চলাকালীন সময় বিভিন্ন মোড়ে বক্তব্য রাখেন কমিউনিস্ট পার্টির জেলা কমিটির সভাপতি এ্যাড. আবুল হোসেন, জেলা সাধারণ সম্পাদক ইলাহ্দাত খান, এ্যাড আমিনুর রহমান হিরু, মফিজুর রহমান নান্নু, চিন্ময় বিশ্বাস, আব্দুল জলিল। সুনামগঞ্জ: বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) সুনামগঞ্জ জেলা কমিটির উদ্যোগে পথযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১১ নভেম্বর সদর উপজেলার বৃহত্তর রঙ্গাচর ইউনিয়নের হালুয়ার ঘাট বাজার

থেকে বিরামপুর গ্রাম পর্যন্ত ৩ কিলোমিটার জায়গা পথযাত্রা করে। পথযাত্রা শেষে হালুয়ারঘাট বাজারের গোদারাঘাটে একটি পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় বক্তব্য রাখেন সিপিবি সুনামগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক চিত্তরঞ্জন তালুকদার, সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. এনাম আহমেদ, জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আসাদ মনি, কলেজ ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নিমাই সরকার, শহর ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি গোতম দাস, ছাত্র নেতা অর্পন দাস। এসময় ১৭ দফা দাবি সংবলিত লিফলেট বিতরণ করা হয়। নরসিংদী: সিপিবি বেলাব উপজেলার নারায়ণপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে খামারেরচর পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। পদযাত্রায় অংশগ্রহণ করেন সিপিবি’র কেন্দ্রীয় কমিটির সহকারী সাধারণ সম্পাদক কাজী সাজ্জাদ জহির চন্দন। উপস্থিত ছিলেন সিপিবি বেলাব উপজেলার সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন শান্তি, মোস্তাফিজুর রহমান, আতাউর রহমান খান, কমরেড তারা মিয়াসহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। সিপিবি বেলাব উপজেলায় ২৫ কিলোমিটার পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হবে। তার অংশ হিসেবে গত ১৪ নভেম্বর এই পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..