কমরেড হাতেম আলী খান

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

একতা ফিচার : মুক্তবুদ্ধি ও মুক্তচিন্তার কারণে হাতেম আলী খান জমিদারের সন্তান হওয়া সত্ত্বেও একপর্যায়ে তিনি শ্রমজীবী ও কৃষকদের কাতারে চলে আসেন। প্রজা শোষণ-নির্যাতনের জন্য জমিদার বাবার বিরুদ্ধে শ্রমজীবী ও কৃষকদেরকে ঐক্যবদ্ধ করেন।ছেলেকে শ্রমজীবী ও কৃষকদের কাছ থেকে ফিরিয়ে আনার জন্য তাঁর বাবা নানাভাবে চেষ্টা করেছেন। কিন্তু ফেরাতে পারেননি। সারাটা জীবন শ্রমজীবী আর কৃষকদের অধিকার আদায়ের জন্য তিনি লড়াই-সংগ্রাম করেছেন, হয়ে উঠেছেন কিংবদন্তি কৃষক নেতা হাতেম আলী খান। টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার বেলুয়া গ্রামে ১৯০৪ সালের ২৪ নভেম্বর হাতেম আলী খান জন্মগ্রহণ করেন। ১৯১৪ সালে মক্তবের পড়াশুনা শেষ হওয়ার পর তাঁর বাবা তাঁকে হেমনগর উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি করান। স্কুলে ভর্তি হওয়ার কিছুদিন পরে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়।তখন ভারত সরকার সেনাবাহিনীতে যোগদানের জন্য যুব সমাজকে আহ্বান করে। সেই আহ্বানে সাড়া দিয়ে হাতেম আলী খান ১৯১৬ সালে সেনাবাহিনীতে যুক্ত হওয়ার জন্য প্রস্তুতি নেন। হেমনগর স্কুলের সহকারী শিক্ষক তাঁকে বুঝিয়ে সেনাবাহিনীতে যোগদান থেকে বিরত রাখেন। এরপর শিক্ষকদের কথামত পড়াশুনায় মনোযোগ দেন তিনি। এই সময় হাতেম আলী খানের বড় ভাইয়ের বন্ধু মাখম চন্দ দেব তাঁকে সশস্ত্র বিপ্লবী দলের সদস্য হতে উৎসাহিত করেন। তিনি সশস্ত্র বিপ্লবী সংগঠন ‘অনুশীলন সমিতি’র সদস্য হন। পড়াশুনার পাশাপাশি প্রকৃত বিপ্লবী হয়ে ওঠার জন্য বিপ্লবী কর্মকাণ্ডে মনোনিবেশ করেন। ১৯২০ সালে হেমনগর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে হাতেম আলী খান মাধ্যমিক পাস করেন। মাধ্যমিক পাস করার পর তিনি কলকাতার রিপন কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক ভর্তি হন। ব্রিটিশবিরোধী উত্তাল সংগ্রাম তাঁকে প্রবলভাবে আকৃষ্ট করে। ক্ষুদিরাম, প্রফুল্ল চাকীর বিপ্লবী আত্মত্যাগ সেই শৈশব থেকে তাঁকে আলোড়িত করে আসছিল। সবকিছু মিলিয়ে তিনি ধীরে ধীরে রাজনৈতিক আন্দোলন-সংগ্রামে জড়িয়ে পড়েন। রাজনৈতিক আন্দোলন-সংগ্রামের ধারাবাহিকতায় এক সময় পড়াশুনা আর রাজনীতি হয়ে উঠে তাঁর জীবনসঙ্গী। ১৯২০ সালে অসহযোগ আন্দোলনের শুরুতে হাতেম আলী খান রিপন কলেজে পড়াশুনার সময় প্রতিদিন কলেজ স্কোয়ার, বিডন স্কোয়ার, হারিশ পার্ক, ওয়েলিংটন স্কোয়ারের সকল রাজনৈতিক সমাবেশে অংশগ্রহণ করেন। এইসময় তাঁর সাথে পরিচয় হয় বাংলার বিভিন্ন বামপন্থি নেতৃবৃন্দের সাথে। এরপর তিনি এলাকায় এসে বিলেতী পণ্য বর্জন ও জমিদারি দাদন টাকা পরিশোধ না করার জন্য জনগণকে উদ্বুদ্ধ করেন। ১৯১৪-৩০ সাল পর্যন্ত বাংলায় সংগঠিত হয় প্রজা ও কৃষক আন্দোলন। ১৯২০ সাল থেকে হাতেম আলী খান এই আন্দোলনের সাথে যুক্ত ছিলেন। প্রজা ও কৃষকদের সচেতন করে সংগঠিত করার ক্ষেত্রে তাঁর ভূমিকা ছিল অনন্য। ১৯২১ সালে বিভিন্ন অঞ্চলে প্রজা আন্দোলন জোরদার হয়ে উঠার পর তিনি বেলুয়ায় চলে আসেন। তিনি বিভিন্ন এলাকার কৃষকদের সংগঠিত করে জমিদার ও সুদখোর মহাজনদের বিরুদ্ধে জোরালো আন্দোলন গড়ে তোলেন। হাতেম আলী খানের নেতৃত্বে ওই এলাকার কৃষকরা জমিদারের খাজনা, মহাজনদের দাদন ও বর্গা জমির ফসল প্রদান করা বন্ধ করে দেন। ১৯২০-৩০ সাল পর্যন্ত বাংলায় সংগঠিত প্রজা ও কৃষক আন্দোলনে তাঁর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। ১৯২৬ সালে রিপন কলেজ থেকে হাতেম আলী খান বি.এ. পাস করার পর জমিদার বাবা তাঁকে বিয়ে দিয়ে সংসারী করার উদ্যোগ নেন। অবশ্য তাঁকে বিয়ে দেয়ার চেষ্টা বি.এ. পাসের পূর্বেই শুরু করেন তিনি। র্দীর্ঘ ৩ বছর চেষ্টার পর ছেলেকে বিয়েতে রাজি করাতে সক্ষম হন। ১৯২৭ সালে হাতেম আলী খান কসিমুন্নেসা খানমকে বিয়ে করেন। কসিমুন্নেসা ছিলেন আব্দুল করিম খানের মেয়ে। বিয়ের কিছুদিন পর তাঁর বাবা জমিদার নায়েব আলী খান মারা যান। উচ্চ মাধ্যমিক পড়ার সময় থেকেই বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম ও কমরেড মুজফফর আহমদের সাথে হাতেম আলী খানের যোগাযোগ ছিল। তাঁরাই পত্রিকার নাম ঠিক করে দিয়েছিলেন- ‘সর্বহারা’। তাঁর রাজনৈতিক চিন্তাভাবনা বিকাশে এ দুজনের গুরুত্বর্পূণ ভূমিকা রয়েছে। ‘সর্বহারা’ পত্রিকাটি ৬ মাস প্রকাশ হওয়ার পর নানা কারণে বন্ধ হয়ে যায়। কিছুদিন পর আবার হাতেম আলী খান পত্রিকা প্রকাশের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। তবে এবার পত্রিকার মাধ্যমে সমাজতন্ত্র ও সাম্যবাদের কথা মানুষের মাঝে প্রচার করার উদ্দেশ্যে ‘চাষীমজুর’ ও ‘দিনমজুর’ নামে দুটি পত্রিকা প্রকাশ করেন। কিছুদিন পর টাকার অভাবে পত্রিকা দুটি বন্ধ হয়ে যায়। এরপর তিনি গ্রামের নিরক্ষর মানুষকে লেখাপড়া শেখানোর উদ্দেশ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ার উদ্যোগ গ্রহণ করেন। ১৯৩৯ সালে ময়মনসিংহের ভালুকা থানার বাটাজোর গ্রামে স্থানীয়দের নিয়ে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। ওই এলাকায় স্কুলের প্রধান শিক্ষক না পাওয়ার কারণে তিনিই প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব নেন। পাশাপাশি তিনি ওই এলাকায় কৃষকদের সংগঠিত করার উদ্দেশ্যে কৃষক সংগঠন গড়ে তোলেন। ১৯৩৮ সালে রংপুর কৃষক সমিতির প্রথম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এই সম্মেলনে তিনি কৃষকদের সংগঠিত করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। একই বছর সারা ভারতের কৃষক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় নেত্রকোনায়। এতেও তিনি যুক্ত ছিলেন। তিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করে ৩ বছরের মধ্যে স্কুলটিকে মডেল হাইস্কুলে রূপান্তরিত করেন। এটি ১৯৪২ সালে বোর্ডের মঞ্জুরী পায়। স্কুলটি বোর্ডের মঞ্জুরী পেলে তিনি বেলুয়ার ভূয়াপুর স্কুলে সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। বেলুয়াতেও তিনি ‘জনতা উচ্চ বিদ্যালয়’ নামে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। সাথে সাথে অব্যাহত রাখেন কৃষক সংগঠনের কাজ। হাতেম আলী খান একে একে বলরামপুর, নলিন ও ধূবলিতে হাইস্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। এই স্কুলগুলোতে উপযুক্ত প্রধান শিক্ষক না পাওয়ায় তিনি নিজেই একই সাথে ৩টি স্কুলের প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। দরিদ্র ছাত্রদের পড়াশুনার খরচ তিনি বহন করতেন। পিছিয়ে পড়া ছাত্রদেরকে নিয়ে আলাদাভাবে কোচিং ক্লাস করাতেন। ছেলেমেয়েদেরকে স্কুলে পাঠানোর জন্য অভিভাবকদেরকে তিনি উদ্বুদ্ধ করতেন। তাঁর অক্লান্ত প্রচেষ্টায় বৃহত্তর রংপুর, দিনাজপুর অঞ্চলে শিক্ষার বিস্তার ঘটে। শিক্ষা বিস্তারের পাশাপাশি তিনি কৃষক সমিতির সংগঠন ও আন্দোলন গড়ে তোলার কাজও চালিয়ে যান। ১৯৪৩ সালে সুসং দূর্গাপুরে কৃষক সম্মেলন এবং ময়মনসিংহের নালিতাবাড়িতে প্রাদেশিক কৃষক সমিতির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এ সকল সম্মেলনে কৃষকদের সংগঠিতকরণে তাঁর যথেষ্ট ভূমিকা ছিল। তেভাগা আন্দোলন, টংক আন্দোলন, নানকার আন্দোলন নাচোলের কৃষক বিদ্রোহ এ সমস্ত আন্দোলন-সংগ্রামে কৃষকদের সংগঠিত করতে হাতেম আলী খান প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ভূমিকা পালন করেন। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে তিনি ভূমিকা পালন করেন। তিনি ওই সময় কমিউনিস্ট পার্টি থেকে টাঙ্গাইলে ভাষা আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন। ১৯৫৭ সালের মার্চ মাসে কৃষকদের নিয়ে ঢাকায় একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এই বৈঠকে ভাসানীর নেতৃত্বে প্রাদেশিক কৃষক সমিতি গঠন করা হয়। এ সময় হাতেম আলী খান কৃষক সংগঠন গড়ে তোলার জন্য অন্যান্য নেতৃবৃন্দের সাথে অক্লান্ত পরিশ্রম করেন। ওই বছর ডিসেম্বর মাসে ভাসানীর নেতৃত্বে কৃষক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে মাওলানা ভাসানীকে সভাপতি করে এবং হাতেম আলী খানকে সাধারণ সম্পাদক করে কৃষক সমিতি পুনর্গঠন করা হয়। ১৯৫৮ সালে পাকিস্তান সরকারের রোষানলে পড়ে হাতেম আলী খান আত্মগোপনে যান। ১৯৬৩ সালের প্রথম দিকে তিনি প্রকাশ্যে আসেন। ওই বছর কৃষক নেতা জিতেন ঘোষ জেল থেকে মুক্তি পান। জিতেন ঘোষ ও হাতেম আলী খান একত্রে মিলে ওসমান গনি রোডে কৃষক সমিতির কার্যক্রম পরিচালনা করেন। ১৯৬৪ সালে কাশ্মীরের হযরতবাল মসজিদ থেকে ইসলাম ধর্মের স্মৃতিচিহ্ন চুরি হয়ে যায়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ঢাকা ও খুলনাতে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা শুরু হয়। যার ফলে ওসমান গনি রোডে কৃষক সমিতির কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। কিছুদিন পর টাঙ্গাইল যাওয়ার পথে গোয়েন্দা পুলিশ হাতেম আলী খানকে গ্রেফতার করে পুলিশ সদরে নিয়ে যায় এবং অমানুষিক নির্যাতন করে। সাত দিন তাঁকে নির্যাতন করা হয়। ফলে তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। এই অসুস্থতা তাঁকে জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত বহন করতে হয়েছে। নানা চড়াই-উৎরাই পার হয়ে ১৯৬৬ সালে ন্যাপ সোভিয়েতপন্থি ও চীনাপন্থি হিসেবে দু’ভাগে বিভক্ত হয়। এমন পরিস্থিতিতে কুলাউড়ায় কৃষক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এ সম্মেলনে দু’টি প্যানেল হয়। চীনাপন্থিরা ভাসানীকে সভাপতি ও আব্দুল হককে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করে। সোভিয়েতপন্থিরা আমজাদ হোসেনকে সভাপতি ও হাতেম আলী খানকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করে। কৃষক সমিতি দ্বিধাবিভক্ত হওয়ায় কৃষক আন্দোলন ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ফলে হাতেম আলী খান ব্যথিত হন। তবু হাল ছাড়লেন না। আবার শুরু করলেন কৃষকদের সংগঠিত করার কাজ। ১৯৬৭ সালে ঢাকায় কৃষক সমাবেশের আয়োজন করেন। এই সমাবেশ থেকে পুলিশ তাঁকে গ্রেফতার করে রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা দেয়। এসময় তিনি আড়াই বছর কারাগারে ছিলেন। ১৯৬৯ সালে গণ অভ্যূত্থানের সময় মুক্তি পান। মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি টাঙ্গাইলে ছিলেন। শারীরিক অসুস্থতার কারণে সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে সৈনিকের ভূমিকা পালন করতে পারেননি। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধে তরুণদের উৎসাহ প্রদান, মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য অর্থ, খাবার সংগ্রহের কাজ তিনি জীবনবাজী রেখেই করেছেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি আবার পুরোদমে কৃষক সমিতির কাজ শুরু করেন। ১৯৭২ সালের মার্চ মাসে নরসিংদীর বেলাবোতে এক কৃষক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রায় এক লক্ষ কৃষকের সমাবেশ ঘটেছিল। এই সম্মেলনে মনি সিংহ সভাপতি ও হাতেম আলী খান সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৭৩ সালে তিনি সোভিয়েত কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণে সোভিয়েত ইউনিয়নে যান। ১৯৭৪ সালে দ্বিতীয় কৃষক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এই সম্মেলনে হাবিবুর রহমান সভাপতি ও আমজাদ হোসেন সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন। শারীরিক অসুস্থতার কারণে হাতেম আলী খান এই সম্মেলনের সিনিয়র সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৭৪ সালে তৃতীয় কৃষক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এই সম্মেলনে হাতেম আলী খান সভাপতি ও ফজলুল হক খন্দকার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। দীর্ঘদিন লড়াই-সংগ্রাম শেষে ১৯৭৭ সালের ২৪ অক্টোবর তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..