ক্যাসিনো বাণিজ্য, লুটপাট মাফিয়াতন্ত্র রুখে দাঁড়াও

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

গত ৩০ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামে সিপিবি’র বিক্ষোভ মিছিল
একতা প্রতিবেদক : সারাদেশে সর্বপর্যায়ে অব্যাহত কৃষ্ণ অধ্যায় ক্যাসিনো বাণিজ্য-অপরাধ সিন্ডিকেট-মাফিয়াতন্ত্র, চাঁদাবাজি, লুটপাট, দখলদার, মাস্তানবাজির বিরুদ্ধে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির আহ্বানে সারাদেশে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। চট্টগ্রাম জেলার উদ্যোগে সিনেমা প্যালেস চত্বরে গত ৩০ সেপ্টেম্বর বিক্ষোভ সমাবেশে পার্টির নেতৃবৃন্দ বলেন, ক্ষমতায় থেকে বর্তমান সরকার নানারকম মাফিয়া চক্রকে দীর্ঘদিন থেকে প্রশ্রয় লালন পালন করার বিষময় ফল সাধারণ মানুষকে পিষ্ট করছে। সরকারি দলের ভেতরেই এই মাফিয়াগুলোর বসবাস। এই গণবিরোধী দুষ্টচক্র খুনী মোস্তাক, ফ্রিডম পার্টি, বিএনপি জামাত, জাতীয় পার্টির মধ্যে ছিল, এখন লালিত হচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগে এবং দলের গণসংগঠনগুলোতে। এই অপরাধ চক্রকে গুড়িয়ে দিতে হবে কোনোরকম মোহগ্রস্থতা প্রদর্শন না করে। এক বিশাল মাফিয়াচক্র দেশটাকে নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে। এরা নানারকম চক্রান্তে লিপ্ত। এদের যারা লালন করে, প্রশ্রয় দেয়, এদের থেকে কমিশন খায় তাদেরকে চিহ্নিত করতে হবে, নিশ্চিহ্ন করতে হবে। দেশকে রক্ষা করতে হবে। দেশের মানুষকে রক্ষা করতে হবে। আবদুল নবীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় সদস্য মৃণাল চৌধুরী, জেলা সাধারণ সম্পাদক অশোক সাহা, জেলা সম্পাদকমণ্ডলীর নুরুচ্ছাপা, অমৃত বড়ুয়া, জেলা সদস্য প্রদীপ ভট্টাচার্য, রাহাতউল্লাহ জাহিদ, রবিউল হোসেন, যুবনেতা সেহাবউদ্দিন সাইফু, অনুপম বড়ুয়া পারু, ছাত্র নেতা এ্যানি সেন প্রমুখ। সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিল চট্টগ্রাম নগরের

মানিকগঞ্জ:
প্রধান পথ প্রদক্ষিণ করে। মানিকগঞ্জ: বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি মানিকগঞ্জ জেলা কমিটির উদ্যোগে মানিকগঞ্জ কোর্ট চত্বরে প্রতিবাদী মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। অধ্যাপক আবুল ইসলাম শিকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আজহারুল ইসলাম আরজু, মুক্তিযোদ্ধা মিজানুর রহমান হযরত, মজিবুর রহমান মাস্টার, আরশেদ আলী মাস্টার, নজরুল ইসলাম ও দুলাল বিশ্বাস। এছাড়া ক্যাসিনো অর্থনীতির অবসান, বেপরোয়া লুটপাট, চাঁদাবাজি, অনৈতিক পন্থায় সম্পদের পাহাড় গড়ার প্রতিরোধ সংগ্রাম জোরদার করার আহ্বান জানিয়ে ২৮ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ যুব ইউনিয়ন মানিকগঞ্জ জেলা সংসদ, শহরের শহীদ রফিক চত্বরে প্রতিবাদী মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত করেছে। যুব ইউনিয়ন মানিকগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি আসাদুজ্জামান সেন্টুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ছাত্র ইউনিয়নের জেলা সভাপতি আনোয়ার হোসেন দুর্জয়, সাধারণ সম্পাদক শাহীনুর রহমান শাহীন এবং যুব ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আরশেদ আলী মাস্টার। সমাবেশে দুর্নীতি বিরোধী অভিযান নামকাওয়াস্তে না করে সারা দেশে ছড়িয়ে জোরদার করার আহ্বান জানান বক্তারা। সিলেট : সিলেট নগরীর সিটি পয়েন্টে গত ৩০ সেপ্টেম্বর বিকেল পাঁচটায় বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি সিলেট জেলা কমিটির উদ্যোগে অপরাধ-সিন্ডিকেট, মাফিয়াতন্ত্র, ক্যাসিনোবাণিজ্য, ঘুষ, দুর্নীতি, চাঁদাবাজি, বেপরোয়া লুটপাট ও দখলবাজ গডফাদারদের রাজত্ব গুড়িয়ে দিয়ে অপরাধীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবিতে

সিলেট
এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। কমিউনিস্ট পার্টি সিলেট জেলা কমিটির সদস্য সাথী রহমানের সভাপতিত্বে এবং যুব নেতা নিরঞ্জন দাস খোকনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সিপিবি সিলেট জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এডভোকেট আনোয়ার হোসেন সুমন, ছাত্র নেতা নাবিল এইচ। সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিপিবি সিলেট জেলা কমিটির সহ-সাধারণ সম্পাদক খায়রুল হাছান, সিপিবি শাহপরান থানা শাখার সম্পাদক তুহিন কান্তি ধর, যুব নেতা রশিদ আহমদ রাশেদসহ সিপিবি, যুব ইউনিয়ন, উদীচী, খেলাঘর, ছাত্র ইউনিয়নের নেতা ও কর্মীবৃন্দ। সমাবেশে বক্তারা বলেন, ক্ষমতাসীন দলের অঙ্গসংগঠন আওয়ামী যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দের প্রত্যক্ষ পরিচালনায় অবৈধ ক্যাসিনোবাণিজ্য, চাঁদাবাজি, বেপরোয়া লুটপাট ও মাফিয়াতন্ত্র গুঁড়িয়ে দিয়ে চিহ্নিত অপরাধী ও তাদের গডফাদারদের গ্রেফতার করে অবিলম্বে বিচারের আওতায় নিয়ে আসতে হবে। ক্যাসিনোর মাধ্যমে বিভিন্ন ক্লাব ও বাসা-বাড়ীতে অপরাধ সিন্ডিকেটের যে ভয়াবহ বাস্তবতা প্রকাশ পেয়েছে, তার বিরুদ্ধে যথাযথ পদক্ষেপ নিয়ে শক্তহাতে এগুলো দমন করার জন্য বক্তারা সরকারের প্রতি জোর আহ্বান জানান। খুলনা : অবৈধ ক্যাসিনো বাণিজ্য, ঘুষ, দুর্নীতি, লুটপাটের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)’র কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে গত ৩০ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫টায় খুলনা নগরীর পিকচার প্যালেস মোড়ে এক মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সিপিবি’র কেন্দ্রীয় সদস্য ও খুলনা জেলা সভাপতি ডা.

শেরপুর
মনোজ দাশের সভাপতিত্বে এবং মহানগর সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মো. বাবুল হাওলাদারের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন– পার্টির কেন্দ্রীয় সদস্য এস এ রশীদ, অরুণা চৌধুরী, মহানগর সভাপতি এইচ এম শাহাদাৎ, জেলা সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. রুহুল আমিন, সিপিবি নেতা শেখ আব্দুল হান্নান, অ্যাড. চিত্তরঞ্জন গোলদার, সুতপা বেদজ্ঞ, কিশোর রায়, অশোক সরকার, অ্যাড. নিত্যানন্দ ঢালী রুস্তম আলী হাওলাদার, মঞ্জুরুল আলম বুলবুল, শ্রীবাস অধিকারী, ওয়াহিদুর রেজা বিপলু, সাইদুর রহমান বাবু, আব্দুর রহমান মোল্লা, যুব ইউনিয়নের জেলা সাধারণ সম্পাদক জয়ন্ত মুখার্জী, যুব ইউনিয়ন নেতা আফজাল হোসেন রাজু, শেখ রাজিব, ছাত্র ইউনিয়ন নেতা উত্তম রায়, কৃষ্ণেন্দু বাছাড়, রকি বিশ্বাস প্রমুখ। সমাবেশে বক্তারা বলেন, গণতন্ত্রের অনুপস্থিতির কারণে জবাবদিহিতা ও স্বচ্ছতা না থাকায় অবাধ লুটপাট ও দুর্নীতির ফলশ্রুতিতে অবৈধ ক্যাসিনো নামক জুয়াসহ অবৈধ কর্মকাণ্ড সীমা ছাড়িয়ে গেছে। লুটেরাদের বাড়িতে বাড়িতে টাকার ভল্ট, স্বর্ণের খনি পাওয়া যাচ্ছে। একশ্রেণির অসাধু রাজনীতিবিদদের প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ মদদে এ দুর্নীতিবাজরা এহেন কোনো অপকর্ম নেই যা অবশিষ্ট রেখেছে। মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী দল হিসেবে বর্তমান ক্ষমতাসীনদের কাছ থেকে জাতির প্রগতিশীল অংশ অন্তত এটি আশা করে না। রাজনীতিবিদ নামধারী লুটেরাদের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে সুবিধাবাদীরা অবৈধ সিন্ডিকেট তৈরির মাধ্যমে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য লাগামহীন করে তুলেছে। অন্যদিকে কৃষক তার ফসলের ন্যায্যমূল্য না

গাইবান্ধা
পাওয়ায় সর্বশান্ত হচ্ছে। বক্তারা এহেন অপকর্ম প্রতিরোধে শুধু আইওয়াশ নয় কিংবা রাজধানী কেন্দ্রিক নয় বরং সারাদেশে অভিযান পরিচালনার আহ্বান জানান। গাইবান্ধা : ভোটাধিকারহরণকারী, চাঁদাবাজ, দুর্নীতিবাজ ক্যাসিনো ঘুষ, দখলদার গডফাদার, সন্ত্রাসীদের রাজত্ব গড়িয়ে দেয়ার দাবিতে দেশব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি গাইবান্ধা জেলা কমিটি ৩০ সেপ্টেম্বর জেলা শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জেলা সভাপতি মিহির ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, জেলা ছাত্র ইউনিয়ন সভাপতি পংকোজ সরকার প্রমুখ। সভায় বক্তারা বলেন, ৩০ ডিসেম্বর রাতের অন্ধকারে জনগণের ভোটাধিকার হরণকারী জনবিচ্ছিন্ন এই সরকার দায়িত্ব নিয়ে ফ্যাসিবাদী চরিত্রে রুপধারণ করেছে। এ সরকার এর আগে হেফাজতকে সাথে নিয়ে শিক্ষাব্যবস্থাকে ধ্বংস করেছে। এখন চাঁদাবাজ, দুর্নীতিবাজ, ক্যাসিনো ঘুষ, দখলদার গডফাদার, সন্ত্রাসীদের নিয়ে দেশটাকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে গেছে। এসময় বক্তারা অবিলন্বে চাঁদাবাজ, দুর্নীতিবাজ ক্যাসিনো, ঘুষ, দখলদার গডফাদার, সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে এদের সমস্ত অপকর্মের রাজত্ব¡ গড়িয়ে দেয়ার দাবি জানান। নারায়ণগঞ্জ : অপরাধ সিন্ডিকেট, মাফিয়াতন্ত্র গুড়িয়ে দেওয়ার দাবিতে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি-সিপিবি’র উদ্যোগে দেশব্যাপী ৩০ সেপ্টেম্বর বিক্ষোভ দিবস পালিত হয়। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির উদ্যোগে

নারায়ণগঞ্জ
চাষাড়া শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে বিকাল ৪টায় বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সিপিবি নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি হাফিজুল ইসলাম। বক্তব্য রাখেন সিপিবি নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক শিবনাথ চক্রবর্তী, জেলা কমিটির সদস্য জাকির হোসেন, বিমল কান্তি দাস, দুলাল সাহা, আব্দুল হাই শরীফ, শাহানারা বেগম, ইকবাল হোসেন, এম.এ. শাহীন প্রমুখ। নেতৃবৃন্দ বলেন, ক্ষমতাসীন দলের অঙ্গ সংগঠন আওয়ামী যুবলীগ ও স্বেচ্ছাসেবকলীগের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দের প্রত্যক্ষ পরিচালনায় অবৈধ ক্যাসিনো বাণিজ্য পরিচালিত হচ্ছে। গত কয়েকদিন ধরে দেশবাসী ঘুষ, দুর্নীতি, চাঁদাবাজি, লুটপাট ও ক্যাসিনো বাণিজ্য প্রত্যক্ষ করছে। পুলিশের সহযোগিতায় সন্ত্রাসী বাহিনীর মাধ্যমে যুবলীগের নেতারা ঢাকার ক্রীড়া ক্লাবগুলোকে ক্যাসিনো বানিয়েছে। তাদের প্রত্যক্ষ পরিচালনায় অবাধে মদ, জুয়া, দেহ ব্যবসা চলছে ক্লাবগুলোতে। এগুলোর অবৈধ আয় থেকে সম্পদের পাহাড় গড়েছে নিয়ন্ত্রকরা। ভাগ পাচ্ছে গডফাদার, দলীয় নেতা এবং প্রশাসনের কোন কোন কর্তাব্যক্তিরা। ঘুষ-দুর্নীতি সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে ঢুকে গেছে। গত ১১ বছর যাবৎ আওয়ামীলীগ টানা ক্ষমতায় রয়েছে এবং তাদের ছত্রছায়ায় এই মাফিয়াতন্ত্র গড়ে উঠছে। সম্প্রতিকালে সরকারের ক্যাসিনোবিরোধী এই অভিযানকে জনগন আইওয়াশ মনে করছে। অতীতের সরকারগুলোও এই ধরনের আইওয়াশ করত। নেতৃবৃন্দ বলেন এই দুষ্টচক্র গুঁড়িয়ে দিতে সরকার সক্ষম হবে না। প্রয়োজন হবে গণ আন্দোলনের। সিপিবি দেশবাসীকে সেই আন্দোলনে সামিল হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছে।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..