শ্রমিক-জনতার লড়াইয়ে অমর হয়ে থাকবেন সুনীল রায়

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

কমরেড সুনীল রায়ের স্মরণসভায় বক্তব্য রাখছেন সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম
একতা প্রতিবেদক : ব্রিটিশবিরোধী সংগ্রামী, প্রখ্যাত শ্রমিক-জননেতা, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)’র সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য, ঢাকা জেলা কমিটির সাবেক সভাপতি কমরেড সুনীল রায়-এর ১৮তম মৃত্যুবার্ষিকীতে আয়োজিত স্মরণসভায় সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেছেন, কমরেড সুনীল রায় সারাজীবন শ্রমিক-মেহনতী মানুষের মুক্তির জন্য লড়াই করে গেছেন। তিনি সেই শ্রমিক-জনতার লড়াইয়ের মধ্যেই অমর হয়ে থাকবেন। তিনি আরও বলেন, দেশের বর্তমানের এই সংকটকালে কমরেড সুনীল রায়-এর কাছ থেকে শিক্ষা নিয়ে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। গত ১১ সেপ্টেম্বর সিপিবি ঢাকা কমিটির মুক্তিভবনের মৈত্রী মিলনায়তনে এ স্মরণসভা হয়। সিপিবি ঢাকা কমিটির সভাপতি মোসলেহউদ্দিনের সভাপতিত্বে এ সভায় কমরেড সেলিম আরও বলেন, কমরেড সুনীল রায় ছিলেন স্পষ্টভাষী, আন্তরিক ও অত্যন্ত ধৈর্যশীল মানুষ। যে কারণে সবাই তাকে আপন করে নিত। কমরেড সেলিম বলেন, বাস্তবিক কর্তব্য পালন ছাড়া পুরানো সমাজ ভাঙা যাবে না। তিনি সবাইকে সুনীল রায়ের আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে শোষণমুক্ত সমাজ কায়েমের সংগ্রামকে অগ্রসর করার আহ্বান জানান। প্রবীণ শ্রমিকনেতা ও সিপিবি’র উপদেষ্টা কমরেড সহিদুল্লাহ চৌধুরী বলেন, শত অত্যাচারের মুখেও কমরেড সুনীল রায় লড়াই অব্যাহত রেখেছিলেন। সাহস, সততা, নিষ্ঠার সাথে লড়াই পরিচালনার জন্য বৃহত্তর ঢাকার সকল কারখানার শ্রমিকদের কছে সুনীল রায় জনপ্রিয় নেতা হয়ে উঠেছিলেন। কমরেড সুনীল রায়ের সময়কালে শ্রমিক-জনতা ঐক্য গড়ে উঠেছিল। দুর্ভিক্ষের সময় যেমন শ্রমিকরা তাদের রেশন দিয়ে দিত, তেমনি শ্রমিকদের সংকটকালেও কারখানার পার্শ্ববর্তী এলাকার গ্রামবাসী এগিয়ে এসেছিল। কমরেড সুনীল রায়কে নিজের রাজনৈতিক শিক্ষক উল্লেখ করে সহিদুল্লাহ চৌধুরী বলেন, তিনি আমার মতো হাজার হাজার সাধারণ শ্রমিককে শ্রেণি সচেতন করে আন্দোলনের সৈনিক হিসেবে গড়ে তুলেছিলেন। স্মরণসভায় আরও বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অধ্যাপক ডা. ফজলুর রহমান, খেলাঘর আসরের কেন্দ্রীয় নেতা রথীন চক্রবর্তী, সিপিবি ঢাকা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ডা. সাজেদুল হক রুবেল, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য সুকান্ত শফি চৌধুরী কমল। কমরেড সুনীল রায়ের সংক্ষিপ্ত জীবনী পাঠ করেন মনিষা চক্রবর্তী। স্মরণসভা পরিচালনা করেন জাহিদ হোসেন খান। সভায় সঙ্গীত পরিবেশন করেন উদীচীর শিল্পীরা।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..