শোক সভা

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
চট্টগ্রামে অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের শোক সভা বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি চট্টগ্রাম জেলার উদ্যোগে মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রবাসী সরকারের উপদেষ্টা, বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ, ন্যাপ-সিপিবি-ছাত্র ইউনিয়ন গেরিলা বাহিনীর অন্যতম সংগঠক, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ)-এর সভাপতি অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের শোকসভা গত ৩১ আগস্ট অনুষ্ঠিত হয়। শোকসভায় সুধীবৃন্দ এবং নেতৃবৃন্দ বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে ন্যাপ-কমিউনিস্ট পার্টি-ছাত্র ইউনিয়নের বিশেষ গেরিলা বাহিনী পরিচালনাসহ সমাজতান্ত্রিক বিশ্বের দেশগুলিকে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে সমর্থন প্রদানে তাঁর ভূমিকা চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হয়েও সাধারণ মানুষের মুক্তির সংগ্রাম তথা সমাজতন্ত্রের লক্ষভিশারী কঠিন সংগ্রামে তিনি তার জীবন উৎসর্গ করেছেন। সেই বিচারে অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ সৎ, নীতিনিষ্ঠ রাজনীতির একজন বরপুত্র। নেতৃবৃন্দ বলেন, দেশের মানুষের সার্বিক কল্যাণের লক্ষ্যে সংগ্রাম গড়ে তুলতে হলে অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের জীবন থেকে শিক্ষা নিতে হবে। তিনি ছিলেন বাম প্রগতিশীল আন্দোলনের খাঁটি কর্ণধার। বিদ্যমান দূবৃত্তায়িত লুঠেরা রাজনীতি অর্থনীতি রুখতে হলে বাম প্রগতির বিকল্প শক্তি বলয় গড়ে তুলতে হবে । কমরেড বালাগাত উল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শোকসভায় আলোচনা করেন মৃণাল চৌধুরী, অধ্যাপক অশোক সাহা, অধ্যাপক কানাই লাল দাশ, নূরুচ্ছাফা ভুঁইয়া, ড.গণেশ রায়, আহম্মদ নূর, আবদুল হালিম দোভাষ, ন্যাপের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আলী নেওয়াজ, ন্যাপর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মৃদুল কান্তি দাশ প্রমুখ। শোকসভার প্রারম্ভে অধ্যাপক মোজাফফর আহমদকে শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। বিজ্ঞপ্তি খুলনায় মোজাফফর আহমেদের শোক সভা ন্যাপ সভাপতি, মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের উপদেষ্টা, মুক্তিযুদ্ধের ন্যাপ-ছাত্র ইউনিয়ন-কমিউনিস্ট পার্টি গেরিলা বাহিনীর সংগঠক অধ্যাপক মোজাফফর আহমেদ স্মরণে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) খুলনা জেলা ও মহানগর কমিটির উদ্যোগে এক শোকসভা গত ৪ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সিপিবি জেলা সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সদস্য ডা. মনোজ দাশের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শোকসভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন, কেন্দ্রীয় সদস্য এস এ রশীদ, জেলা সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. রুহুল আমিন, মহানগর সভাপতি এইচ এম শাহাদাৎ, সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মো. বাবুল হাওলাদার, জেলা নেতা শেখ আব্দুল হান্নান, সোনাডাঙ্গা থানা সভাপতি নিতাই পাল, সাধারণ সম্পাদক রুস্তম আলী হাওলাদার, সদর থানা সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. নিত্যানন্দ ঢালী, খালিশপুর থানা সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান রাসেল, মহানগর নেতা জাহানারা আক্তারী, সাবেক ছাত্রনেতা মাহাবুবুল আলম বুলবুল, অ্যাড. সুব্রত কু-ু, প্রদীপ সাহা, তরুণ সরকার, হুমায়ুন কবির, টিইউসি নেতা কামরুল ইসলাম খোকন, যুব ইউনিয়ন নেতা জয়ন্ত মুখার্জী, আফজাল হোসেন রাজু, ছাত্র ইউনিয়ন নেতা উত্তম রায়, সৌরভ সমাদ্দার, কৃষ্ণেন্দু বাছাড় প্রমুখ। বক্তারা বলেন, অধ্যাপক মোজফফর আহমেদ মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের জীবিত সর্বশেষ উপদেষ্টা। বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনসহ বাম প্রগতিশীল রাজনীতিতে তাঁর ভূমিকা ও লেখনি ছিল অনবদ্য। তিনি নীতিতে ছিলেন অটুট। বাংলাদেশের বাম প্রগতিশীল রাজনীতিকদের অভিভাবক অধ্যাপক মোজাফফর আহমেদ দেশের বিভিন্ন ক্রান্তি লগ্নে জাতির অভিভাবক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। বক্তারা মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের উপদেষ্টা এবং বাংলাদেশের রাজনীতির একটি উজ্জ্বল নক্ষত্র অধ্যাপক মোজাফফর আহমেদের মৃত্যুর পর রাষ্ট্রীয়ভাবে কোনো শোক পালন না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব দানকারী দল ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত থাকা সত্ত্বেও রাষ্ট্রের এ ধরনের ভূমিকা জাতির প্রগতিশীল অংশকে মারাত্মকভাবে হতাশ করেছে। বিজ্ঞপ্তি

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..