ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের বেহাল ১৫০ মিটারে দুর্ভোগ

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
রাজবাড়ী সংবাদদাতা : পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা না থাকায় রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া লঞ্চঘাটের কাছে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের প্রায় ১৫০ মিটার বর্তমানে বেহাল হয়ে পড়েছে। সামান্য বৃষ্টিতেই খানাখন্দে আটকে থাকছে পানি। নোংরা কাদা-পানিতে নাকাল হতে হচ্ছে এ রুট দিয়ে চলাচলকারী হাজারো যাত্রীকে। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন সড়কের পাশের ব্যবসায়ীরা। স্থানীয়রা জানান, পানি জমে থাকায় মহাসড়কের এ অংশটুকু মেরামত করেও কোনো লাভ হচ্ছে না। মেরামতের কিছুদিনের মধ্যেই আবারো ভেঙে যাচ্ছে। সৃষ্টি হচ্ছে বড় বড় গর্ত। এসব গর্তে যানবাহনের চাকা পড়লেই পানি ছিটকে পথচারীরা ভিজে যাচ্ছে। তাছাড়া গর্তে পড়ে প্রায়ই যানবাহন বিকল হওয়ার পাশাপাশি ঘটছে দুর্ঘটনা। খালেক মোল্লা নামে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার এক চালক বলেন, ঈদুল ফিতরের আগে ও পরে এ সড়কে যাত্রীর চাপ বেশি ছিল। ওই সময় মহাসড়কের এ অংশে বেশ কয়েকবার আমার রিকশা বিকল হয়েছে। ভারী ট্রাকের চাকা এখানকার গর্তে পড়লে ঘণ্টার পর ঘণ্টা চেষ্টা করেও তোলা যায় না। বাসচালক হানিফ দেওয়ান বলেন, ঈদের আগে কর্তৃপক্ষ এ অংশ কোনোমতে মেরামত করে। কিন্তু বর্ষার কারণে ফের এ ১৫০ মিটার চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এখানে স্থায়ীভাবে মেরামতের পাশাপাশি পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করা না হলে এ দুরবস্থা কাটবে না। এ বিষয়ে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ রনি বলেন, দৌলতদিয়া লঞ্চঘাটের কাছে এ সড়ক কয়েকবার মেরামত করা হয়েছে। কিন্তু এখানে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় মেরামতের দু-এক মাসের মধ্যেই সড়ক আবারো বেহাল হয়ে যাচ্ছে। সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ রাজবাড়ীর নির্বাহী প্রকৌশলী খায়রুল বাশার মো. সাদ্দাম হোসেন বলেন, ঢাকা-খুলনা মহাসড়কটি সওজের তত্ত্বাবধানে রয়েছে। দৌলতদিয়া লঞ্চঘাটের কাছে ক্ষতিগ্রস্ত ওই সড়কের দুই পাশে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। সেখানে পানি নিষ্কাশনের তেমন কোনো ব্যবস্থা নেই। ফলে সড়কটি বারবার ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। ওই স্থানে ১০০ মিটার এলাকায় পানি নিষ্কাশনের জন্য ড্রেন তৈরিতে ৯ লাখ টাকার একটি দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। কাজটি সমাপ্ত হলে এ সমস্যার সমাধান হবে। উল্লেখ্য, দেশের গুরুত্বপূর্ণ নৌ-রুট রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া। এ নৌপথে প্রতিদিন পারাপার হয় কয়েক হাজার মানুষ। দৌলতদিয়ায় যাত্রী ও যানবাহন পারাপারের জন্য ছয়টি ফেরিঘাট ও একটি লঞ্চঘাট রয়েছে।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..