আবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে যুক্তরাষ্ট্র-চীন বাণিজ্যযুদ্ধ

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

একতা বিদেশ ডেস্ক : আবার যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে বাণিজ্যযুদ্ধ মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, বাণিজ্য আলোচনার চুক্তি ভঙ্গ করেছে চীন। ৯ মে দু’দেশের মধ্যে বাণিজ্য নিয়ে সমঝোতামূলক আলোচনার আগে এমন মন্তব্য করেন তিনি। এতে দু’পক্ষের মধ্যে বিরোধ কতটা প্রকট তার প্রকাশ পেয়েছে। ওদিকে বেইজিংও কড়া মন্তব্য করেছে। তারা বলেছে, যদি যুক্তরাষ্ট্র চীনা পণ্যের ওপর শুল্কহার বাড়ায় তাহলে তারা প্রতিশোধ হিসেবে প্রয়োজনীয় পাল্টা ব্যবস্থা নেবে। গত ৩রা মে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প চীনের ২০,০০০ কোটি ডলার মূল্যের পণ্যের ওপর শুল্কহার দ্বিগুণের বেশি করার প্রত্যয় ঘোষণা করেন। এরপরই চীন ওই মন্তব্য করল। ৯ মে দু’পক্ষের মধ্যে এ নিয়ে আলোচনার আগে ট্রাম্প চীনকে অভিযুক্ত করেছেন। বলেছেন, বাণিজ্য নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র যে দরকষাকষি করছিল সে বিষয়ক চুক্তি ভঙ্গ করেছেন চীনা নেতারা। ফ্লোরিডায় এক র্যালিতে তিনি সমর্থকদের বলেন, তারা (চীন) চুক্তি ভঙ্গ করেছে। তারা এটা করতে পারে না। তাদেরকে মূল্য পরিশোধ করতেই হবে। সম্প্রতি দৃশ্যত দু’পক্ষ বাণিজ্য যুদ্ধ শেষ করে এনেছিল বলে মনে হয়েছিল। কিন্তু ৫ মে অকস্মাৎ ট্রাম্প টুইটারে বলেন, এ সপ্তাহ থেকে চীনা ২০,০০০ কোটি ডলার মূল্যের পণ্যের ওপর শুল্কহার বৃদ্ধি করবে যুক্তরাষ্ট্র। এক্ষেত্রে নতুন শুল্কহার চালু করা হতে পারে। এরপর যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য প্রতিনিধি রবার্ট লাইহাইজার চীনকে অভিযুক্ত করেন। বলেন, তারা তাদের প্রতিশ্রুতি থেকে পশ্চাতে সরে যাচ্ছে। তবু বেইজিংয়ের সঙ্গে একটি বাণিজ্য চুক্তি সম্ভব বলে তিনি মনে করেন। এদিকে বিতর্কিত দক্ষিণ চীন সাগরে নতুন করে নৌ শক্তি প্রদর্শন করেছে যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, ভারত ও ফিলিপিন্স। জাপানের একটি রণতরীর সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের গাইডেড মিসাইল ডেস্ট্রয়ার মহড়া দিয়েছে। তাছাড়া, চীনের দাবিকৃত জলসীমার মধ্যে এ মহড়ায় দুটি ভারতীয় নৌজাহাজ এবং ফিলিপিন্সের একটি টহল জাহাজও ছিল। যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনী ৯ই মে একথা জানিয়েছে। এর আগেও দক্ষিণ চীন সাগরে এমন যৌথ মহড়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। কিন্তু এবার চার দেশের এ মহড়া চীনকে নতুন চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প চীনা পণ্যের ওপর নতুন করে আরো বেশি শুল্ক আরোপের হুমকি দেওয়ার এ সময়ের মধ্যে এই মহড়া অনুষ্ঠিত হল। জাপান মহড়ায় তাদের বড় একটি যুদ্ধজাহাজ ‘ইজুমো’ পাঠিয়েছে। আর ভারত আইএনএস কলকাতা নামের একটি ডেস্ট্রয়ার এবং আইএনএস শক্তি নামের একটি ট্যাংকার পাঠিয়েছে। এক সপ্তাহব্যাপী এ মহড়া শেষ হয়েছে ৮ই মে। চীনের দাবি করা একটি দ্বীপ ঘেঁষে ৬ই মে যুক্তরাষ্ট্র দুটি যুদ্ধজাহাজ পাঠানোর পর এ মহড়া অনুষ্ঠিত হল। যুক্তরাষ্ট্রের ওই পদক্ষেপের প্রতিবাদ জানিয়ে নিজেদের সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘন হওয়ার অভিযোগ করেছে চীন। নৌ মহড়া চালানোর ব্যাপারে মার্কিন নৌবাহিনী বলছে, তারা বিশ্বজুড়ে আন্তর্জাতিক জলসীমায় এমন অবাধ নৌ অভিযান পরিচালনা করে আসছে। এমনকি মিত্রদেশগুলোর নিজেদের বলে দাবি করা সাগরাঞ্চলেও তারা এমন মহড়া চালায়। এক্ষেত্রে রাজনৈতিক দিকটিকে গুরুত্ব দেওয়া হয় না। দক্ষিণ চীন সাগরকে নিজেদের বলে দাবি করে আসছে চীন। ব্রুনাই, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, ফিলিপিন্স, তাইওয়ান ও ভিয়েতনামও এ অঞ্চল তাদের বলে দাবি করে আসছে। তবে সেখানে যুক্তরাষ্ট্র, জাপান কিংবা ভারতের এমন দাবি নেই।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..