পারমাণবিক চুক্তির অংশবিশেষ স্থগিত ইরানের

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

একতা বিদেশ ডেস্ক : ছয় বিশ্বশক্তির সঙ্গে ইরানের সই হওয়া বহুল আলোচিত ‘পারমাণবিক চুক্তি’র দুইটি ধারা স্থগিত করেছে দেশটি। এ নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছে ইউরোপিয়ান দেশগুলো। তারা বলছে, পারমাণবিক চুক্তির ধারা লঙ্ঘন করলে গুরুতর পরিণতি ভোগ করতে হবে ইরানকে। চুক্তির ইউরোপিয়ান ৩ দেশ- যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও জার্মানি বলেছে, তারা এই চুক্তি ততদিন সমর্থন দেবে, যতদিন ইরান নিজের অঙ্গীকার ধরে রাখবে। যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার আমলে এই চুক্তি সই হলেও, বর্তমান ট্রাম্প প্রশাসন এই চুক্তি থেকে সরে এসেছে। চুক্তির আওতায় যেসব অর্থনৈতিক অবরোধ ও নিষেধাজ্ঞা থেকে নিস্তার পেয়েছিল ইরান, সেগুলো পুনর্বহাল করা শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এরই প্রেক্ষিতে চুক্তির অংশবিশেষ স্থগিত করার কথা ঘোষণা দিয়েছে ইরান। এ খবর দিয়েছে বিবিসি। খবরে বলা হয়, ২০১৫ সালে হওয়া ওই চুক্তির উদ্দেশ্য ছিল ইরানের পারমাণবিক উচ্চাকাঙ্খা বাতিলের বিনিময়ে দেশটির বিরুদ্ধে পশ্চিমা অবরোধ তুলে নেয়া। কিন্তু ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন সেই অবরোধ পুনর্বহাল করতে শুরু করায় ভীষণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ইরানের অর্থনীতি। ইরানের মুদ্রার রেকর্ড দরপতন হয়েছে। বার্ষিক মুদ্রাস্ফীতি চারগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভাদ জারিফ বলেছেন, ইরান সর্বশেষ যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা নেওয়ার অধিকার চুক্তির মধ্যেই রয়েছে। মার্কিন নিষেধাজ্ঞা থেকে ইরানকে সুরক্ষা দিতে ইউরোপিয়ান দেশগুলোকে ৬০ দিনের সময় বেঁধে দিয়েছে ইরান। অন্যথায় চুক্তির ওই ধারা দু’টি বাতিল করে উঁচু মাত্রায় সমৃদ্ধকৃত ইউরেনিয়াম উৎপাদন পুনরায় শুরু করার হুমকি দিয়েছে দেশটি। এদিকে লন্ডন সফররত মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেছেন, ইরানের সর্বশেষ বিবৃতি উদ্দেশ্যমূলকভাবে অস্পষ্ট করে দেওয়া হয়েছে। পম্পেও বলেন, যদিও ইরানকে প্রতিরোধে পশ্চিমা মিত্রদের সঙ্গে একমত যুক্তরাষ্ট্র, তবুও পারমাণবিক চুক্তি নিয়ে ইউরোপিয়ানদের সঙ্গে মতপার্থক্য রয়েছে দুই পক্ষের। তিনি ইঙ্গিত দিয়ে বলেন, মানবিক সহায়তা ছাড়া ইরানের সঙ্গে কেউ বাণিজ্য করলে যুক্তরাষ্ট্র ব্যবস্থা নেবে। এক অনির্ধারিত সফরে ইরাকে গিয়ে সেখান থেকে সরাসরি লন্ডনে যান পম্পেও। সাম্প্রতিক সময়ে, যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা বৃদ্ধি পেয়েছে। মার্কিন কর্মকর্তারা তাদের ও মিত্রদের সামরিক বাহিনীকে অবহিত করেছে যে, ইরানের কাছ থেকে হুমকি বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে এক্ষেত্রে বিস্তারিত বলা হয়েছে কমই। সম্প্রতি পারস্য উপসাগরে একটি মার্কিন বিমানবাহী ক্যারিয়ার মোতায়েন করা হয়েছে।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..