জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ গ্রেপ্তার

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

একতা বিদেশ ডেস্ক : গত সাত বছর ধরে ইকুয়েডর দূতাবাসে আশ্রয় নিয়ে থাকা উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে গ্রেপ্তার করেছে ব্রিটিশ পুলিশ। অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক অ্যাসাঞ্জ ২০১০ সালে পেন্টাগন ও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের লাখ লাখ সামরিক ও কূটনৈতিক গোপন নথি ফাঁস করে দিয়ে বিশ্বজুড়ে হৈ চৈ ফেলে দিয়েছিলেন। ওই সব নথির মধ্যে মার্কিন বাহিনীর বিরুদ্ধে আফগান যুদ্ধসম্পর্কিত ৭৬ হাজার এবং ইরাক যুদ্ধ সম্পর্কিত আরো ৪০ হাজার নথি ছিল, যা যুক্তরাষ্ট্র সরকার ও পেন্টাগনকে চরম বেকায়দায় ফেলে দেয়। এ নিয়ে আলোচনার মধ্যে সুইডেনে অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের মামলা হয়। গ্রেপ্তার এড়াতে ২০১২ সালে অ্যাসাঞ্জ লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে আশ্রয় নেন। তারপর থেকে তিনি সেখানেই ছিলেন। সুইডেনের সেই মামলা খারিজ হলেও ব্রিটিশ আইন ভাঙায় আবার গ্রেপ্তার হওয়ার ভয়ে অ্যাসাঞ্জ বের হতে পারছিলেন না। লন্ডন পুলিশের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, এবার তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে আদালতের সমনে হাজির না হওয়ার কারণে। ইকুয়েডরের প্রেসিডেন্ট লেনিন মোরেনো বলেছেন, বারবার ‘আন্তর্জাতিক আইন লংঘনের’ কারণে অ্যাসাঞ্জের আশ্রয় বাতিল করা হয়েছে। তবে উইকিলিকস বলছে, বেআইনিভাবে অ্যাসাঞ্জের আশ্রয় বাতিল করেছে ইকুয়েডর। এদিকে নিউ ইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, অ্যাসাঞ্জকে ধরিয়ে দেওয়ার বিনিময়ে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ঋণ মওকুফ চেয়েছেন ইকুয়েডরের প্রেসিডেন্ট মোরেনো। অ্যাসাঞ্জকে গ্রেপ্তারের খবর জানিয়ে যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ বলেছেন, ‘আমি নিশ্চিত করছি, জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ এখন পুলিশ হেফাজতে আছেন এবং তাকে যুক্তরাজ্যে বিচারের মুখোমুখি হতে হচ্ছে।’ অ্যাসাঞ্জকে তুলে দেওয়ার জন্য ইকুয়েডরকে ধন্যবাদ জানান ব্রিটেনের এই মন্ত্রী। ‘কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়,’ বলেন তিনি। এই দূতাবাস ছাড়তে অস্বীকৃতি জানানো অ্যাসাঞ্জ (৪৭) বলে আসছিলেন, সেখান থেকে বেরোলে উইকিলিকসের কর্মকাণ্ড নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে যুক্তরাষ্ট্রে হস্তান্তর করা হবে। স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড জানিয়েছে, ইকুয়েডর সরকার আশ্রয় প্রত্যাহার করায় রাষ্ট্রদূত তাদের দূতাবাসে ডেকে পাঠিয়েছিলেন। এক বিবৃতিতে তারা বলেছেন, ওয়েস্টমিনস্টার ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে হাজির করার আগ পর্যন্ত সেন্ট্রাল লন্ডন পুলিশ স্টেশনে রাখা হবে অ্যাসাঞ্জকে। বিবিসি বলছে, উইকিলিকস দূতাবাসে অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে গোয়েন্দা কার্যক্রম পরিচালনার বিষয়টি ধরে ফেলার ঘোষণা দেওয়ার পরদিন তার বিরুদ্ধে এই পদক্ষেপ নেওয়া হল।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..