গণতন্ত্র না থাকলে নারীরাই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় : সেলিম

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

একতা প্রতিবেদক : দেশে যখন গণতন্ত্র থাকে না সমাজে তখন শোষণ নিপীড়ন বাড়তেই থাকে এবং এর ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয় নারী সমাজ। এসব কারণেই আজ বাংলাদেশে যে কোনো সময়ের চেয়ে বেশি নারী নির্যাতন, খুন-ধর্ষণ ও শিশু হত্যা দেখা যাচ্ছে। প্রতিদিনই দেশের কোনো না কোনো স্থানে একাধিক নারী-শিশু খুন-ধর্ষণ, নির্যাতন-নিপীড়নের শিকার হচ্ছে। এর কোনটারই সুষ্ঠ বিচার বা শাস্তি হচ্ছে না। এসব অন্যায়ের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে গত ২ মার্চ সিপিবি নারী সেল আয়োজিত সমাবেশে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম এসব বলেছেন। সিপিবি নারী সেলের আহ্বায়ক কমরেড লক্ষ্মী চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন শিক্ষাবিদ, সাপ্তাহিক একতার সম্পাদক এ.এন. রাশেদা, সিপিবি কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদক জলি তালুকদার, মাকসুদা আক্তার লাইলী, লুনা নূর, মনিরা বেগম অনু, লাকী আকতার, শাহান আরা বেগম, সাকী খন্দকার, আনোয়ারা বেগম, কাজী রীতা। সিপিবি সভাপতি বলেন, নারী মুক্তির লড়াই একটি রাজনৈতিক মতাদর্শিক লড়াই। সমাজে নারীর অবস্থান কি হবে তা আসলে নির্ভয় করে নারীর প্রতি রাষ্ট্রের কী দৃষ্টিভঙ্গী, তার উপর। পুঁজিবাদ নারীকে পণ্যে পরিণত করে, মৌলবাদ নারীকে অধীনস্তে পরিণত করে। এ দুই-ই সমভাবে নারীমুক্তি ও নারীর সমানাধিকারের বিরোধী শক্তি, কাজেই এ দুয়ের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হবে যা প্রকারান্তওে সমাজ পরিবর্তনেরও লড়াই। সভাপতির বক্তব্যে লক্ষ্মী চক্রবর্তী বলেন, আন্তর্জাতিক নারী দিবস শ্রমিক নারীর রাজনৈতিক অধিকার প্রতিষ্ঠার একটি অর্জন। ন্যায্য মজুরি-শ্রমঘণ্টা বণ্টনের আন্দোলন আজ সারা বিশ্বের নারী মুক্তির লড়াইয়ের অফুরান প্রেরণার উৎস পরিণত হয়েছে। অন্যান্য বক্তারা বলেন, পুঁজিবাদ নারী দিবসের তাৎপর্যকে গ্রাস করে তাকে একটি ভোগবাদী উদ্যাপন করেছে। এ ব্যাপারে আমাদের সজাগ থাকতে হবে। রাষ্ট্রে বিচারহীনতা ও জবাবদিহীতার অভাব সর্বোপরি গণতন্ত্রহীনতার কারণে নারী-নির্যাতন-শোষণ বেড়েই চলে, কাজেই নারী মুক্তির লড়াই নারীর স্বাধীনতা এবং সমাজ পরিবর্তনের জন্য সমান তালে পরিচালিত করতে হবে। এদিন বিকাল ৩টায় সিপিবি’র কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পার্টির পতাকা উত্তোলন করে নারী দিবসের কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। তিনি সারাদেশে অব্যাহত খুন-ধর্ষণ নির্যাতনের বিরুদ্ধে নারী আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান নিয়ে প্রতীকী মশাল প্রজ্বলন করে পরে নারী কমরেডদের কাছে মশাল হস্তান্তর করেন।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..