বুলেট-বৃষ্টি থেকে ৫০ গজ দূরে ছিলেন তামিমরা!

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

একতা প্রতিবেদক : একদিন পরই ছবির মতো শান্ত আর শান্তির শহর ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালে শুরু হওয়ার কথা ছিল তামিম-মুশফিকদের সফরর শেষ টেস্ট। তার আগেই ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলায় হাত থেকে অল্পের জন্য প্রাণে বাঁচলেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা। গত ১৫ মার্চ স্থানীয় সময় বেলা দেড়টার দিকে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে হামলায় তিন প্রবাসী বাংলাদেশিসহ ৪৯ জনের প্রাণহানি হয়। ওই দিন হ্যাগলি ওভালের পাশেই আল নূর ও শহরতলির লিনউডে মসজিদে জুমার নামাজ আদায়রত মুসলিমদের ওপর হামলা চালায় অস্ট্রেলিয়ার এক নাগরিক। হামলার পর পরই অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন হামলাকারীর পরিচয় নিশ্চিত করে তাকে ‘কট্টর ডানপন্থি’ দাবি করেন। তবে তার নাম প্রকাশ করেননি মরিসন। আর দ্বিতীয় মসজিদে হামলাকারী একই ব্যক্তি কি না, তা-ও এখনও নিশ্চিত নয়। ওইদিন প্রথম হামলাটি হয় মাহমুদউল্লাহ-তামিমরা যেখানে অনুশীলন করছিল সেই হ্যাগলি ওভাল গ্রাউন্ডের খুব কাছে। লিটন দাস ও নাঈম হাসান ছাড়া বাংলাদেশ দলের সবাই মাঠে অনুশীলনে ছিলেন। অনুশীলন শেষে তারা ওই মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করতে যান। ঠিক তার আগেই মসজিদের ভেতর সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয়। শোনার পর আতঙ্কিত খেলোয়াড়েরা তখনই দৌড়ে হ্যাগলি ওভালে ফেরত আসেন। পরে তাদের হোটেলে নিয়ে আসা হয়। এর কিছুক্ষণ পরই শহরতলির লিনউডে মসজিদে হামলা চালানো হয়। হামলার কয়েক ঘণ্টা পর এক্সপ্রেস নামের একটি স্থানীয় গণমাধ্যম জানায়, ২৮ বছর বয়সী ওই শ্বেতাঙ্গ হামলাকারী অস্ট্রেলিয়া থেকে এসে গত দুই বছর ধরে এ হামলার পরিকল্পনা করছিলেন। হামলাকারী জানিয়েছেন, ইউরোপের দেশগুলোতে বিদেশি হামলাকারীদের বিরুদ্ধে প্রতিশোধপরায়ণ হয়ে তিনি এ হামলার পরিকল্পনা করেন। হামলাকারী হামলাটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে লাইভ করেছেন। ভিডিওতে হামলাকারী স্বয়ংক্রিয় বন্দুক নিয়ে গাড়ি থেকে নেমে মসজিদের প্রবেশ কক্ষ থেকেই মুসল্লিদের ওপর নির্বিচারে বৃষ্টির মতো গুলি ছুড়তে শুরু করেন। হামলার পরই বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ওখানে ক্রিকেটারদের জন্য পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছিল না। শেষ টেস্ট বাতিল করে শনিবারই দেশে ফেরার কথা বাংলাদেশের। এই উগ্র চরমপন্থি জঙ্গি হামলার নিন্দা প্রকাশ করেছে খোদ আইসিসি’সহ গোটা ক্রিকেটবিশ্ব। বিশ্ব নেতৃবৃন্দ থেকে শুরু করে বড় বড় ক্রিকেট তারকারাও উপরের সারির বিশ্বশান্তির দেশ হিসেবে পরিচিত নিউজিল্যান্ডে সিজদায় থাকা মুসল্লিদের ওপর প্রাণঘাতি বর্বরোচিত এ হামলার তীব্র নিন্দা জানান এবং বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..