রাজপথে বামপন্থি

আওয়ামী লীগের এই ভূমিধস বিজয় কলঙ্কের

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা প্রতিবেদক : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সরকারি দলের ভূমিধস বিজয় মর্যাদা ও গৌরবের নয়, কলঙ্কের ও লজ্জার। সারাদেশকে অচল করে দিয়ে দেশের মানুষের এক বিরাট অংশের ভোটাধিকার হরণ করা, পুলিশসহ রাষ্ট্রীয় বাহিনীগুলো নিয়ন্ত্রণে ও সরকারদলীয়দের নিরঙ্কুশ কর্তৃত্বে সরকারি দল ও জোটকে যেভাবে বিজয়ী দেখানো হচ্ছে তা সরকারি দলের জন্য রাজনৈতিক ও নৈতিক পরাজয়। বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির ঢাকাস্থ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্যদের সভায় গত ১ জানুয়ারি নির্বাচন পর্যালোচনা সভায় এসব কথা বলা হয়। সভায় আরো বলা হয়, আওয়ামী লীগের মতো একটি ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক ও তাদের নেতৃত্বাধীন সরকারকে মানুষের ভোটাধিকারের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে যে নজিরবিহীন জালিয়াতি, কেন্দ্রদখল, প্রকাশ্যে সিল মারতে বাধ্য করা, বিরোধী দলীয় প্রার্থীদেরকে লাঞ্চিত ও তাদের নির্বাচনী এজেন্টদেরকে বের করে দিয়ে তামাশার যে নির্বাচন করা হল তা একদিকে নির্বাচনী ব্যবস্থার ন্যূনতম বিশ্বাসযোগ্যতাকে ধ্বংস করে দিয়েছে। অন্যদিকে দেশের ন্যূনতম ও গণতান্ত্রিক কাঠামোকেও বিধ্বস্ত করে দিয়েছে। সভার প্রস্তাবে বলা হয়, সরকারি দলের পক্ষে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করার জন্য পুলিশসহ রাষ্ট্রীয় সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানসমূহকে যেভাবে ব্যবহার করা হয়েছে তাও রীতিমত নজিরবিহীন। রাষ্ট্রীয় সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানসমূহের দলীয়করণ গোটা রাষ্ট্র ব্যবস্থাকেই মারাত্মক বিপদাপন্ন করে তুলেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রনে রেখে যেভাবে সরকার ও সরকারি দলের পক্ষে একতরফা প্রচারে বাধ্য করা হচ্ছে তাতে বস্তুনিষ্ঠ তথ্যাদি চাপা পড়ে যাচ্ছে। সভার প্রস্তাবে প্রতারণাপূর্ণ তামাশার নির্বাচন ও নির্বাচনী ফলাফল বাতিল করে অনতিবিলম্বে নিরপেক্ষ তদারকি সরকারের অধীনে পুনঃনির্বাচনের দাবি জানানো হয়। প্রস্তাবে বলা হয়, সরকারি দলের এই নিরঙ্কুশ বিজয় দেশে নিরঙ্কুশ একনায়কতন্ত্র ও স্বৈরতন্ত্রের বিপদ আরো বাড়িয়ে দেবে। সভার অপর প্রস্তাবে জনগণের ভোটাধিকার হরণে সরকারি ছক কার্যকরী করার প্রধান সহযোগী হওয়ায় এবং গোটা নির্বাচনী ব্যবস্থার বিশ্বাসযোগ্যতা ধ্বংস করে দেবার কারণে অনতিবিলম্বে নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ দাবি করা হয়। পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হকের সভাপেিতত্ব অনুষ্ঠিত এই সভায় উপস্থিত ছিলেন পার্টির কেন্দ্রীয় নেত্রী বহ্নিশিখা জামালী, আকবর খান, মোফাজ্জল হোসেন মোশতাক, ডা. খন্দকার মোসলেউদ্দীন, মাহমুদ হোসেন প্রমুখ।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..