‘গ্রেপ্তার শ্রমিকদের মুক্তি দাও, মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার কর’

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা প্রতিবেদক : আশিয়ানা গামের্ন্টের দুই শ্রমিক নেতা মুন্না ও রাসেল হোসেনের মুক্তি এবং গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সভাপতি অ্যাড. মন্টু ঘোষ ও সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদারসহ ১২ গার্মেন্ট শ্রমিক নেতা ও রামপুরার আশিয়ানা গার্মেন্ট কারখানার শ্রমিকদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)’র সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, বেআইনীভাবে বন্ধ ঘোষিত রামপুরার আশিয়ানা গার্মেন্ট কারখানার শ্রমিকদের আলোচনার জন্য বিজিএমইএ ভবনে ডেকে বিজিএমইএ নেতৃবৃন্দের নির্দেশে বিজিএমইএ’র নিরাপত্তারক্ষী, কর্মচারী, কর্মকর্তাবৃন্দ তাদের ওপর বর্বর হামলা চালিয়েছে। ৩৭ জন শ্রমিক এতে আহত হন। বিজিএমইএ গার্মেন্ট টিইউসির সভাপতি অ্যাড. মন্টু ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদার, কার্যনির্বাহী সভাপতি কাজী রুহুল আমিন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাদেকুর রহমান শামীম, সাংগঠনিক সম্পাদক কেএম মিন্টুসহ কেন্দ্রীয় সম্পাদকমণ্ডলীর ১২ জনসহ আরো ১৫০ জন শ্রমিকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে। এরপর গত ৪ ফেব্রুয়ারি কারখানার সামনে থেকে মুন্না ও রাসেল হোসেনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। সিপিবি নেতৃবৃন্দ গ্রেপ্তার রাসেল ও মুন্নার অনতিবিলম্বে মুক্তি এবং শ্রমিক নেতাদেরসহ আশিয়ানা গার্মেন্ট শ্রমিকদের ওপর বিজিএমইএ’র দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান। বিশ্ব ট্রেড ইউনিয়ন ফেডারেশনের বিবৃতি : আশিয়ানা গার্মেন্ট শ্রমিকদের আলোচনায় ডেকে বিজিএমইএ-র কর্মকর্তার নেতৃত্বে শ্রমিক নেতাদের ওপর নির্লজ্জ হামলার কড়া প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে পাঁচ মহাদেশের ৯২ মিলিয়ন শ্রমিকের প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠন বিশ্ব ট্রেড ইউনিয়ন ফেডারেশন (ডব্লিউএফটিইউ)। গত ৭ ফেব্রুয়ারি দেওয়া বিবৃতিতে তারা গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের নেতৃবৃন্দের ওপর মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও আশিয়ানা গার্মেন্ট-এর আটক ২ শ্রমিককে অবিলম্বে মুক্তি দেয়ার দাবি জানায়।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..