অনশন করে দাবি আদায় শিক্ষকদের

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

তীব্র ঠাণ্ডার মধ্যে দাবি আদায়ে ৬ দিন জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অনশন করে নন এমপিও শিক্ষকরা
একতা প্রতিবেদক : ভয়াবহ ঠাণ্ডার মধ্যেও টানা ছয়দিন-রাত অনশন চালিয়ে প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস অর্জন করে নিয়েছেন নন-এমপিও শিক্ষকরা। এর আগে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের আশ্বাসেও ভোলেনি তারা। অনশনের এক পর্যায়ে অর্থমন্ত্রীর হয়ে শিক্ষামন্ত্রী কর্মসূচি প্রত্যাহারের কথা বললেও রাজি হননি তারা; অনশন চালিয়েই যান। এরপর ৫ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে এমপিওভুক্তির দাবি পূরণের আশ্বাস পেয়ে অনশন ভাঙেন শিক্ষকরা। সরকারি অনুমোদনে কার্যক্রম চালানো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর এমপিওভুক্তির দাবিতে গত ২৬ ডিসেম্বর থেকে প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে আসছিলেন দেশের বিভিন্ন এলাকার কয়েকশ শিক্ষক। গত ৩১ ডিসেম্বর থেকে তারা আমরণ অনশন শুরু করেন। তাদের অনশন ভাঙাতে গত মঙ্গলবার শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ প্রেস ক্লাবের সামনে গেলেও এমপিওভুক্তির সুনির্দিষ্ট দিনক্ষণের দাবিতে অনশন চালিয়ে যান শিক্ষকরা। ছয় দিনের অনশনে অর্ধশতাধিক শিক্ষক অসুস্থ হয়ে পড়লে তাদের চিকিৎসাও দেওয়া হয়। এরই মধ্যে ১ জানুয়ারি বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) পক্ষ থেকে তাদের আন্দোলনের প্রতি সংহতি জানানো হয়। সিপিবি’র প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুল্লাহ ক্বাফী রতন, সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স, জলি তালুকদারসহ বিভিন্ন নেতাকর্মীরা শিক্ষকদের যৌক্তিক আন্দোলনের পক্ষে অবস্থান নেন। তারা অনশনরত শিক্ষকদের সঙ্গে কিছুক্ষণ কাটান এবং তাদের খোঁজ-খবর নেন। একই সময়ে আন্দোলনরত শিক্ষকদের সঙ্গে সমর্থন জানান বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ ও গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার শীর্ষ নেতৃবৃন্দ। দেশে বর্তমানে এমপিওবিহীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আছে সোয়া পাঁচ হাজার। এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-কর্মচারীর সংখ্যা প্রায় ৮০ হাজার। সর্বশেষ ২০১০ সালে এক হাজার ৬২৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করে সরকার।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..