মুখ থুবড়ে পড়েছে কুমিল্লার কালিকাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
কুমিল্লা সংবাদদাতা : কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ১০ শয্যা বিশিষ্ট কালিকাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স জনবল সংকট আর অযত্ন-অবহেলায় মুখ থুবড়ে পড়ে আছে। এতে কাক্সিক্ষত স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছেন না সাতটি ইউনিয়নের প্রায় দেড় লক্ষাধিক মানুষ। সেবা বঞ্চনার শিকার এলাকার মানুষের অভিযোগ-উপজেলার প্রথম ও প্রাচীন এ হাসপাতাল দীর্ঘ বছর ধরে ডাক্তার, নার্সসহ কর্মকর্তা-কর্মচারী সংকটে ভুগছে, এখানে কর্তৃপক্ষেরও তেমন কোনো নজর নেই। জানা যায়, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে চৌদ্দগ্রাম উপজেলার কালিকাপুর এলাকায় মনোরম পরিবেশে ১৯৫৯ সালে পাঁচ একর ভূমিতে এই হাসপাতালটি স্থাপন করা হয়। ওই সময় এই হাসপাতালটি ছিল উপজেলাবাসীর স্বাস্থ্যসেবার জন্য একমাত্র ভরসা। পরবর্তীতে উপজেলা সদরে ৫০ শয্যার একটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স স্থাপন করা হয়। এরপর থেকে ধীরে ধীরে ১০ শয্যার কালিকাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটির কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে। এটি বর্তমানে এলাকার জনগণের স্বাস্থ্যসেবায় তেমন কোনো কাজে আসছে না। এখানে ডাক্তার-নার্সসহ ২১ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী থাকার কথা থাকলেও বর্তমানে আছেন মাত্র ১০ জন। অস্থায়ীভাবে দুইজন ডাক্তার দেড় লাখের অধিক জনগণের স্বাস্থ্যসেবায় নিয়োজিত আছেন। এখানে চারজন নার্স থাকার কথা থাকলেও নেই একজনও। এ ছাড়া জরুরি বিভাগ থাকলেও কার্যক্রম নেই। রোগীদের শয্যাকক্ষে তালা ঝুলছে। তবে কখন তালা ঝুলানো হয়েছে তা কর্মরতদের কেউ জানাতে পারেননি। ফার্মাসিস্ট, মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট ল্যাব নেই। সহ-সেবক ও অফিস সহায়কসহ চারজন করে থাকার কথা থাকলেও আছেন মাত্র দুইজন করে। বাবুর্চি, ক্লিনারের পদগুলোও শূন্য।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..