হিসাব

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা প্রতিবেদক : হিসাব মেলানো কঠিন। হোক সে রাজনীতি বা আর্থিক। রাজনীতির হিসাব মেলানো এত সহজ না। সবসময় সব হিসাব মিলবে তাও না। কারণ, কেউ হিসাব মিলিয়ে কাজ করতে চায়, আবার কেউ হিসাব মেলাতে চায় না। কেউ কেউ আবার হিসাব মেলাতে গিয়ে গরমিল করে ফেলে। এর মধ্যে আবার আরেক ফেকরা হচ্ছে, প্রথমে যে হিসাব মিলবে, পরে গিয়ে সেই হিসাব আর নাও মিলতে পারে। এই কারণেই বোধহয় বলা হয়ে থাকে, রাজনীতিতে শেষ বলে কোনো কথা নেই। কারণটা বোধহয় ওই ‘হিসাবের’ মধ্যেই নিহিত আছে। সম্প্রতি আবার সেই হিসাবের রাজনীতি বাংলাদেশে ফিরে এসেছে। সেই হিসাব দাখিল করেছেন বর্তমান তথ্যমন্ত্রী, জাসদের নেতা হাসানুল হক ইনু। তিনি জাসদের একাংশের সভাপতি, তাঁর দল ১৪ দলের শরিক। ইনু কুষ্টিয়া-২ মিরপুর-ভেড়ামারা আসনের সংসদ সদস্য। তিনি মিরপুরে আয়োজিত দলের সভায় সরকার, জাসদ এবং তাঁর নিজের একটি হিসাব দিয়েছেন। জোটের রাজনীতিতে সবারই নিজস্ব হিসাব থাকে। এটাই স্বাভাবিক। সবসময় যে সেটা প্রকাশ করা হয় তাও না। কিন্তু তথ্যমন্ত্রী কড়ায়-গণ্ডায়, টাকা-পয়সার এই হিসাব জনগণের সামনে তুলে ধরেছেন। কিন্তু প্রশ্ন উঠেছে, ইনুর দেওয়া সেই হিসাব কি আসলেই মিলেছে? তথ্যমন্ত্রী সেদিন আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘আপনি (আওয়ামী লীগ নেতা) আশি পয়সা। আর এরশাদ, দিলীপ বড়ুয়া, মেনন আর ইনু মিললে এক টাকা হয়। আমরা যদি না থাকি, তাহলে আশি পয়সা নিয়ে রাস্তায় ফ্যা-ফ্যা করে ঘুরবেন। এক হাজার বছরেও ক্ষমতার মুখ দেখবেন না।’ তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, ‘আমি জাসদ করি, কিন্তু দলবাজি করি না, পায়ে পা লাগিয়ে ঝগড়া করি না। মারামারি চাই না, আমি শান্তি চাই। তাই বলে জাসদের এটাকে দুর্বলতা ভাববেন না। জাসদের শক্তি আছে, লাঠি আছে। আমরা যদি মনে করি, জাসদের লাঠি যে রাস্তায় যাবে, সেই রাস্তায় আর কেউ থাকবে না।’ বেশ, বেশ, এখানে একটা হিসাব পাওয়া গেল। এরশাদ, দিলীপ বড়ুয়া, মেনন আর ইনু মিলে ২০ পয়সা। ইনু সাহেব যদিও সেখানে বলেননি, ২০ পয়সার মধ্যে তিনি নিজে কত? জাতি যখন সেই হিসাব করতে করতে দিস্তা-দিস্তা কাগজ শেষ করে ফেলেছে, সেই সময় তথ্যমন্ত্রীই জাতির প্রতি সদয় হয়ে অঙ্কের সমাধান দিয়ে দিলেন। পরদিন ঢাকায় ফিরে এক সংবাদ সম্মেলনে বললেন, ‘এক টাকার মধ্যে ৮০ পয়সার মালিক হয়েও শেখ হাসিনা আমাদের মতো এক পয়সা, দুই পয়সার মালিকদের জোটভুক্ত করে এক টাকা করেছেন। এটা তাঁর মহানুভবতা। আমাদের এক পয়সা, দুই পয়সার মালিকদের মন্ত্রী বানিয়ে মহানুভবতার পরিচয় দিয়েছেন, আমরাও কৃতজ্ঞতার সঙ্গে তার প্রতিদান দিচ্ছি। তাঁর নির্দেশে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি।’ হাসানুল হক ইনু যেদিন এই হিসাব দিলেন সেদিন ছিল ৯ নভেম্বর। তার পরদিনই ১০ নভেম্বর; স্বৈরাচার সামরিক শাসক এরশাদবিরোধী আন্দোলনে শহীদ নূর হোসেন দিবস। এখন জাতিকে আবার হিসাব করতে বসতে হবে, স্বৈরাচারবিরোধী ইনু সাহেব যদি এক পয়সা হন তাহলে স্বৈরাচার এরশাদের দাম কত??

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..