চলে গেলেন দ্বিজেন শর্মা

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

একতা প্রতিবেদক : প্রাণ-প্রকৃতির মায়া কাটিয়ে চিরবিদায় নিয়েছেন দেশে বিদেশে ‘নিসর্গপ্রেমী’ হিসেবে পরিচিত লেখক দ্বিজেন শর্মা। রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৫ সেপ্টেম্বর ভোর পৌনে ৪টার দিকে তার মৃত্যু হয়। তার বয়স হয়েছিল ৮৮ বছর। গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে দ্বিজেন শর্মাকে গত ১৪ সেপ্টেম্বর বারডেম হাসপাতাল থেকে স্কয়ার হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেদিন সন্ধ্যায় শুরু হয় কিডনি ডায়ালাইসিস। বার্ধক্যজনিত নানা জটিলতা ছাড়াও ফুসফুসের সংক্রমণে ভুগছিলেন তিনি। নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হলে গত আগাস্ট মাসে দ্বিজেন শর্মাকে বারডেমে ভর্তি করা হয়। মেয়ে শ্রেয়সী শর্মা লন্ডন থেকে ফিরলেই তার শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হবে বলে পরিবারসূত্র জানিয়েছে। দ্বিজেন শর্মা রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় নানা প্রজাতির গাছ লাগিয়েছেন, তৈরি করেছেন উদ্যান ও বাগান। গাছের পরিচর্যা ও সংরক্ষণ এবং প্রকৃতিবান্ধব শহর গড়ার জন্য আজীবন প্রচার চালিয়ে গেছেন। উদ্ভিদ জগৎ, প্রকৃতি বিজ্ঞান আর বিজ্ঞান ভাবনা নিয়ে লিখেছেন প্রায় দেড় ডজন বই। ১৯২৯ সালের ২৯ মে মৌলভীবাজারের বড়লেখায় দ্বিজেন শর্মার জন্ম। বাবার কারণে ছোটবেলা থেকেই লতা-পাতা, বৃক্ষ আর অরণ্য-প্রকৃতির সঙ্গে সখ্য গড়ে ওঠে তার। কলকাতা সিটি কলেজ থেকে স্নাতক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর করে দ্বিজেন শর্মা উদ্ভিদবিজ্ঞানের শিক্ষক হিসেবে করিমগঞ্জ কলেজ, বি এম কলেজ ও নটর ডেম কলেজে চাকরি করেন। পরে প্রগতি প্রকাশনে চাকরি নিয়ে মস্কো চলে যান, সেখানে কুড়ি বছর কাটিয়ে দেশে ফিরে কাজ করেন এশিয়াটিক সোসাইটিতে। তার লেখা বিভিন্ন বইয়ের মধ্যে রয়েছে- ‘সপুষ্পক উদ্ভিদের শ্রেণীবিন্যাস’, ‘ফুলগুলি যেন কথা’, ‘গাছের কথা ফুলের কথা’, ‘এমি নামের দুরন্ত মেয়েটি’, ‘নিসর্গ নির্মাণ ও নান্দনিক ভাবনা’, ‘সমাজতন্ত্রে বসবাস’, ‘জীবনের শেষ নেই’, ‘বিজ্ঞান ও শিক্ষা: দায়বদ্ধতার নিরিখ’, ‘ডারউইন ও প্রজাতির উৎপত্তি’, ‘বিগল যাত্রীর ভ্রমণ কথা’, ‘গহন কোন বনের ধারে’, ‘হিমালয়ের উদ্ভিদরাজ্যে ডালটন হুকার’, ‘বাংলার বৃক্ষ’। সাপ্তাহিক একতার সঙ্গেও তার যোগাযোগ ছিল আমৃত্যু। বামধারার রাজনীতির সঙ্গে পরোক্ষ সংযোগের কারণে কিছুকাল আত্মগোপনে ছিলেন, থাকতে হয়েছে কারাবাসেও। লেখালেখির জন্য তিনি ভূষিত হয়েছেন একুশে পদক, বাংলা একাডেমি পুরস্কারসহ বিভিন্ন জাতীয় সম্মাননায়। সিপিবির শোক বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)’র সভাপতি কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক কমরেড মো. শাহ আলম এক বিবৃতিতে প্রকৃতি ও নিসর্গবিদ, বিজ্ঞানলেখক দ্বিজেন শর্মার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, ছোটবেলা থেকেই দ্বিজেন শর্মা ছিলেন প্রকৃতি-প্রেমিক। বৃক্ষ, অরণ্য আর প্রকৃতির সঙ্গে তাঁর ছিল বিশেষ সখ্য। প্রাণ ও প্রকৃতির সংরক্ষণে, প্রকৃতির বৈচিত্র্য সন্ধানে তিনি নিজেকে নিয়োজিত রেখেছিলেন। প্রকৃতিবান্ধব শহর গড়ে তোলার জন্যও তিনি আজীবন প্রচার চালিয়েছেন। যে রুশ সাহিত্য মানুষকে সমাজ পরিবর্তনের লড়াইয়ে অনুপ্রাণিত করেছে, সেই রুশ সাহিত্যকে এ দেশের মানুষের কাছে তুলে ধরতে অনুবাদক হিসেবে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, সিপিবির শুভানুধ্যায়ী হিসেবে দ্বিজেন শর্মা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। তাঁর ব্যতিক্রমী ভূমিকা স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তাঁর মৃত্যুতে দেশের অপূরণীয় ক্ষতি হলো। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ প্রয়াতের শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যবৃন্দ ও বন্ধু-বান্ধবদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।
প্রথম পাতা
জনজীবনের ওপর ধারাবাহিক আক্রমণ তুমুল আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে
‘জেরুজালেম ইসরাইলের রাজধানী’, স্বীকৃতি যুক্তরাষ্ট্রের
সিপিবি’র কড়া প্রতিবাদ
মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদী হস্তক্ষেপ প্রতিহত কর
স্বাধীন হলাম মুক্তি পেলাম না!
স্বামীর লাঠির আঘাতে মৃত্যু উদীচী কর্মী লিজার
ডাকসু’র দাবিতে উন্মুক্ত সংলাপ ১৩ ডিসেম্বর অনশনে শিক্ষার্থী, ছাত্র ইউনিয়নের সংহতি
চীনা কমিউনিস্ট পার্টির প্রতিনিধিদলের সঙ্গে সিপিবি নেতাদের সাক্ষাৎ
রংপুর সিটিতে সিপিবি-বাসদের প্রার্থী আব্দুল কুদ্দুস
মানবতাবিরোধী অপরাধে ৭ রাজাকারের বিরুদ্ধে মামলা
৫৪ শতাংশের বেশি নারী সহিংসতার শিকার
‘চিনেছি-জেনেছি-বুঝেছি’

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..