কবিতা

এখনো আমি উঠে দাঁড়াই

মূল: মায়া এঞ্জেলু ভাবানুবাদ: মাহফুজ জুয়েল

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
ইতিহাসে, তুমি আমাকে পিষে ফেলতে পারো নিচে ফেলে– তোমার তিক্ত বিকৃত মিথ্যা কলমের কালিমার কালি ঢেলে; তুমি আমাকে ছুঁড়ে ফেলতে পারো ময়লা আবর্জনার স্তূপে কিন্তু তখনো, ধূলার মতো আমি উঠে দাঁড়াবো আপন রূপে আমার উচ্ছলতা তোমাকে বিব্রত করে? কেন বসে আছ বিষণ্নতা আঁকড়ে ধরে? আমি এমনভাবে হাঁটি যেন আমার তেলের খনি আছে ঠিক শোয়ার ঘরে বালিশের নিচে বা বিছানার কাছে! স্বতঃস্ফূর্ত স্ফূর্তিতে অসিম রঙ্গে চাঁদ বা সূর্যের মতো নিশ্চিত ¯্রােতের সঙ্গে কিংবা আকাশচুম্বী আশার মতো অবিরত আমি এখনো উঠে দাঁড়াই তুমি চাও আমি ভেঙ্গে পড়ি? মাথা নিচু আর চোখ নত করি? কাঁধ ঝুঁকে পড়ুক অশ্রুর মতো? দুর্বল, অসহায়, কান্নায় বিক্ষত? আমার গর্ব তোমাকে আহত করে? নিহত করে তোমাকে দূরের সুরধ্বনি? আমার হাসিতেই তোমার ফাঁসি যেন উঠান খুঁড়ে পেয়েছি আমি আশ্চর্য এক সোনার খনি? তুমি আমাকে গুলি করতে পারো তোমার মুখের কথায় তুমি আমাকে কেটে ফেলতে পারো তোমার দৃষ্টিপাতে তুমি আমাকে খুন করতে পারো তোমার ঘৃণায় কিন্তু আমি এখনও ঝঞ্ঝার মতো পারি উঠে দাঁড়াতে আমার যৌবন তোমাকে বিব্রত করে? মনে হয় কী এক বিরাট বিস্ময়? আমি যখন নাচি আমার উরুর ভেতরে তখন সাতরাজার ধন হিরা-পান্নাময়? লজ্জার ইতিহাসের কুড়েঘরের বাইরে আমি উঠে দাঁড়াই বেদনার্ত অতীতের শেকড় উপড়ে আমি উঠে দাঁড়াই আমি এক কৃষ্ণসাগর, অন্তর্গত যন্ত্রণার সুবিশাল ঢেউ আমাকে ছাড়া তীরের আর্তনাদ আর জানে না কেউ সন্ত্রাস এবং আতঙ্কের রাত পেছনে ফেলে আমি উঠে দাঁড়াই অবিশ্বাস্য পরিস্কার দিনের আলো ঠেলে আমি উঠে দাঁড়াই ক্রিতদাসের স্বপ্নাশা হয়ে আমি উঠে দাঁড়াই আমি উঠে দাঁড়াই আমি উঠে দাঁড়াই

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..