আপিল আদালতেও ট্রাম্পের ‘ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা’ স্থগিত

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা বিদেশ ডেস্ক : ছয় দেশের নাগরিকদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নতুন ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা স্থগিতের যে আদেশ হাওয়াইয়ের আদালত দিয়েছিল, আপিল আদালতেও তা বহাল রাখা হয়েছে। গত মার্চের মাঝামাঝি ওই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হওয়ার কথা থাকলেও হাওয়াইয়ের ফেডারেল আদালতের স্থগিতাদেশে তা আটকে যায়। সেই স্থগিতাদেশ তুলতে তিন মাস পর আপিল আদালতে গিয়েছিল ট্রাম্প প্রশাসন। কিন্তু সান ফ্রান্সিসকো নাইন্থ সার্কিট কোর্ট অব আপিল ১২ জুন আগের আদেশই বহাল রাখে। আপিল আদালত বলেছে, প্রেসিডেন্টের ওই নির্বাহী আদেশ যুক্তরাষ্ট্রের বিদ্যমান অভিবাসী আইনের লঙ্ঘন। আদালতের এই সিদ্ধান্তকে ট্রাম্প প্রশাসনের জন্য আরও একটি আইনি পরাজয় হিসেবে দেখছেন বিশ্লেষকরা। অভিবাসনে কড়াকড়ি আরোপের পাশাপাশি এ ধরনের নিষেধাজ্ঞা জারি ছিল ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি। আপিল আদালতের আদেশের প্রতিক্রিয়ায় অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশনস বলেছেন, বিচারকদের সঙ্গে তিনি একমত হতে পারছেন না। আর হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র শন স্পাইসার বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতে সন্ত্রাসী হামলা, সহিংসতা ও রক্তপাত বন্ধে যত ধরনের সুযোগ আছে, তা ব্যবহার করতেই প্রেসিডেন্ট ওই আদেশ দিয়েছিলেন। অবশ্য আপিল আদালতের এই আদেশেও ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা নিয়ে আইনি লড়াইয়ের শেষ হচ্ছে না। ট্রাম্প প্রশাসন এ মাসের শুরুতেই নির্বাহী আদেশ নিয়ে বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যের আদালতের সিদ্ধান্ত বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের শরণাপন্ন হয়েছে। সেখানেই এর চূড়ান্ত মীমাংসা হবে। প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ গ্রহণের মাত্র এক সপ্তাহের মাথায় গত ২৭ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা বিষয়ে প্রথমবার নির্বাহী আদেশ জারি করেছিলেন ট্রাম্প। যা নিয়ে বিমানবন্দরগুলোতে ব্যাপক বিশৃঙ্খলা এবং বিশ্বজুড়ে বিক্ষোভ দেখা দেয়। সাত দিনের মাথায় সিয়াটলের ফেডারেল আদালত ওই নির্বাহী আদেশের বাস্তবায়ন ‘স্থগিত’ করে দেয়। ৯ ফেব্রুয়ারি একটি আপিল আদালত ওই আদেশ বহাল রাখে। এক মাস পর মার্চের ৬ তারিখ ট্রাম্প ছয়টি মুসলিম দেশের নাগরিকদের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার নতুন নির্বাহী আদেশ জারি করেন। নতুন ওই আদেশে আগের তালিকা থেকে ইরাককে বাদ দেওয়া হয়, সিরিয়ার নাগরিকদের ওপর অনির্দিষ্টকালের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হয়। কিন্তু কার্যকর হওয়ার কয়েক ঘণ্টা আগে হাওয়াই ও মেরিল্যান্ডের দুটি আদালত ওই নির্বাহী আদেশের বাস্তবায়ন স্থগিত করে। গত ২৬ মে আপিল আদালত মেরিল্যান্ডের সিদ্ধান্তটি বহাল রাখে। হাওয়াইয়ের আদালতের আদেশ বহালের সিদ্ধান্ত আসে ১২ জুন। নির্বাচনী প্রচারে ট্রাম্প ‘যুক্তরাষ্ট্রে মুসলমান প্রবেশ পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়ার’ প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। তবে পরে কিছুটা সরে এসে মার্চে যে সংশোধিত ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা তিনি দেন, তাতে ইরান, লিবিয়া, সিরিয়া, সোমালিয়া, সুদান ও ইয়েমেনের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে ৯০ দিনের নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। পাশাপাশি ১২০ দিনের নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয় সব শরণার্থীর প্রবেশে। সান ফ্রান্সিসকোর নাইন্থ সার্কিট কোর্ট অব আপিল কোর্ট হাওয়াইয়ের আদালতের আদেশ পর্যালোচনা করে বলছে, কী কারণে ওই ছয় দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে বাধা দেওয়া হবে ট্রাম্পের আদেশে তা ব্যাখ্যা করা হয়নি। সেইসঙ্গে শরণার্থীরা কীভাবে যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থের ক্ষতি করছে তাও বলা হয়নি।
প্রথম পাতা
জনজীবনের ওপর ধারাবাহিক আক্রমণ তুমুল আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে
‘জেরুজালেম ইসরাইলের রাজধানী’, স্বীকৃতি যুক্তরাষ্ট্রের
সিপিবি’র কড়া প্রতিবাদ
মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদী হস্তক্ষেপ প্রতিহত কর
স্বাধীন হলাম মুক্তি পেলাম না!
স্বামীর লাঠির আঘাতে মৃত্যু উদীচী কর্মী লিজার
ডাকসু’র দাবিতে উন্মুক্ত সংলাপ ১৩ ডিসেম্বর অনশনে শিক্ষার্থী, ছাত্র ইউনিয়নের সংহতি
চীনা কমিউনিস্ট পার্টির প্রতিনিধিদলের সঙ্গে সিপিবি নেতাদের সাক্ষাৎ
রংপুর সিটিতে সিপিবি-বাসদের প্রার্থী আব্দুল কুদ্দুস
মানবতাবিরোধী অপরাধে ৭ রাজাকারের বিরুদ্ধে মামলা
৫৪ শতাংশের বেশি নারী সহিংসতার শিকার
‘চিনেছি-জেনেছি-বুঝেছি’

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..