চায়না পাটোয়ারী জামিনে মুক্ত

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা প্রতিবেদক : ছাত্র ইউনিয়ন রাঙামাটি জেলা সংসদের সাংস্কৃতিক সম্পাদক চায়না পাটোয়ারী জামিনে ছাড়া পেয়েছে। গত ১২ জুন রাঙামাটি জেলা কারাগার থেকে চায়না ছাড়া পায় বলে সংগঠনের নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন। গত মাসে রাঙামাটির ছাত্রলীগকর্মী এহসান উদ্দিন ঋতুর ৫৭ ধারায় দায়ের করা একটি মামলায় চায়নাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তথ্য প্রযুক্তি আইনে করা ওই মামলার আরেক আসামী ছাত্র ইউনিয়ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতা শাওন। তথ্য প্রযুক্তি আইনের এ মামলা প্রত্যাহার ও চায়নার মুক্তির দাবিতে গত ৪ জুন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে ছাত্র ইউনিয়ন। সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, হীন রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্যই ৫৭ ধারাকে ব্যবহার করা হচ্ছে। ক্ষমতাসীনরা সমালোচনা সহ্য করতে পারছে না। জনবিরোধী নীতি, লুটপাট, দুর্নীতি অবাধ করতেই ৫৭ ধারাকে ব্যবহার করা হচ্ছে। এ ধরণের জনবিরোধী কোনো শাসকই মানুষের কণ্ঠরোধ করতে পারেনি, এ সরকারও পারবে না। ৫৭ ধারাকে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের অন্যতম হাতিয়ার উল্লেখ করে ছাত্রনেতারা অবিলম্বে এ ধারা বাতিলের দাবি জানান। সমাবেশ থেকে পার্বত্য শান্তি চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়ন চেয়ে বলা হয়, রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় পাহাড়ে আদিবাসীদের উপর নিপীড়ন-নির্যাতন চলছে। লংগদুতে ছয় আদিবাসীর মৃত্যুর দায়ও রাষ্ট্রকে নিতে হবে। ছাত্র ইউনিয়ন সভাপতি জি এম জিলানী শুভ ও সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী ছাড়াও সমাবেশে সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা বক্তব্য দেন। এদিকে রাষ্ট্রীয় দমন পীড়ন, ৫৭ ধারা বাতিল ও সাম্প্রদায়িকীকরণ রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছে প্রগতিশীল ছাত্রজোট। এছাড়া গত ৭ জুন সংবাদ মাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে জোটের নেতৃবৃন্দ ছাত্র ইউনিয়ন নেতা চায়না পাটোয়ারি ও শাওন বিশ্বাসের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় করা মামলার প্রত্যাহার দাবি করেন। একইসঙ্গে ৫৭ ধারা বাতিলের দাবি জানিয়ে বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, সুলতানা কামাল, ইমরান এইচ সরকার, সনাতন উল্লাস, লিটন নন্দীসহ বিভিন্ন নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে যেসব প্রহসনমূলক মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে, সেগুলোও প্রত্যাহার করতে হবে।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..