মৌলভীবাজারে লিচুর বাম্পার ফলন

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
মৌলভীবাজার সংবাদদাতা : মৌলভীবাজারে এবার লিচুর বাম্পার ফলনের আশা করছেন চাষিরা। তারা এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন বাগান পরিচর্যায়। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে গত বছরের চেয়ে এ বছর বেশি লাভের আশা কৃষকদের। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, জেলার সদর উপজেলা, শ্রীমঙ্গল, কুলাউড়া, জুড়ী বড়লেখা, রাজনগর ও কমলগঞ্জ উপজেলার মোট ২৮০ হেক্টর জমিতে লিচু চাষ করা হয়েছে। গত বছর উৎপাদনের পরিমাণ ছিল ১৩ হাজার ১৬ মেট্রিক টন। যার বাজার মূল্য ছিল প্রায় ২৮ কোটি টাকা। এ বছর ফলন আরও বৃদ্ধি পাবে বলে জানিয়েছেন লিচু চাষিরা। এবার বিভিন্ন নামের লিচুর মধ্যে চায়না-৩, বোম্বে, মঙ্গলবারি, বারি-৩, ৪, বেদানাসহ দেশি প্রজাতির লিচু চাষ করা হয়েছে। বর্তমান সময়ে অর্থকরী ফসলের সুনাম অর্জন করেছে লিচু। রসালো এই ফসল হয় মাটির প্রকারভেদে। মৌলভীবাজারে পাহাড়ি টিলাবেষ্টিত এলাকা থাকায় এখানে এই ফসলের ফলন হয় বেশি। মৌলভীবাজার শহরতলির বর্ষীজোড়া এলাকা উঁচু-নিচু পাহাড়ি টিলায় টিলায় গড়ে উঠেছে লোকালয়। এ লোকালয়ে লিচু হয়ে উঠেছে এ এলাকার মানুষের জীবন-জীবিকার প্রধান অবলম্বন। শতাধিক পরিবারের লোকজন মৌসুমি ফলমূল বিক্রি করে স্বাবলম্বী হয়েছেন। বিশেষ করে এ এলাকায় উৎপাদিত লিচুর সুখ্যাতি রয়েছে জেলাজুড়ে। মৌলভীবাজারের লিচু সিলেট বিভাগের বিভিন্ন জেলার মানুষের চাহিদা পূরণে মুখ্য ভূমিকা পালন করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। তবে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে এ এলাকায় লিচু বাগান গড়ে উঠলেও সরকারি পৃষ্ঠপেষকতার অভাবে লিচু বাগানের মালিক ও ইজারাদাররা এ ধরনের প্রতিকূল অবস্থার মুখোমুখি হয়ে থাকেন। জানা যায়, মৌলভীবাজার শহরতলির, সোনাপুর, বর্ষীজোড়া নতুনবাজার, বাংলাটিলা, সালামি টিলা, বড়টিলা, মাতারকাপন এলাকায় জাল দিয়ে আচ্ছাদিত করে রাখা হয়েছে ছোট আকারের লিচুতে ভরা গাছ। বাদুড় ও চামচিকার কবল থেকে লিচু রক্ষায় এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। নতুনবাজার এলাকার লিচু বাগান ইজারা গ্রহণকারী খোকন মিয়া জানান, মৌসুমি ফলের সময় ৪-৫ বছর ধরে লিচু বাগান ইজারা নিয়ে প্রতি মৌসুমে ৪৫-৫০ হাজার টাকা অতিরিক্ত উপার্জন করেন। এ বছর তিনি ৫৫ হাজার টাকায় এক মৌসুমের জন্য তিনটি বাগান ইজারা নেন। গত বছরের তুলনায় এ বছর লিচুর ফলন ভালো। লিচু সুস্বাদু হওয়ায় প্রতি বছর ১১শ-১২শ টাকা হাজার হিসেবে পাইকারি বিক্রি হয়। বর্ষীজোড়া এলাকার আবদুল জব্বার লন্ডনি, ছালেহ আহমদ, সোনাপুর এলাকার কামাল ও আকমল মিয়াসহ অনেকের বাড়িতে লিচু বাগান রয়েছে। তারা লিচু ছোট থাকা অবস্থায় প্রতি মৌসুমের জন্য এককালীন টাকা নিয়ে বাগান ইজারা দেন। এসব বাগানের লিচু বিক্রিসহ নানা কাজ করে শত শত লোক জীবিকা নির্বাহ করছেন। মৌলভীবাজার জেলায় বাণিজ্যিক উপায়ে লিচু চাষ আশান্বিত করেছে মৌসুমী ফল ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে বাগান মালিকদের।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..