হাওর অঞ্চলকে দুর্গত এলাকা ঘোষণার দাবি সিপিবি’র

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

সুনামগঞ্জে মধ্যনগর উপজেলায় দুর্গত কৃষক-কৃষাণীদের সমাবেশে বক্তব্য রাখছেন সিপিবি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ডা. দিবালোক সিংহ
একতা প্রতিবেদক : হাওর অঞ্চলকে অবিলম্বে দুর্গত এলাকা ঘোষণার দাবিতে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির উদ্যোগে সমাবেশ ও মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এসব সমাবেশে বক্তারা বলেন, সুনামগঞ্জ, নেত্রকোণা, কিশোরগঞ্জ, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজারসহ পুরো হাওর অঞ্চল আজ পানিতে তলিয়ে গেছে। ফলে লক্ষ লক্ষ কৃষকের ধান আজ পানির নিচে তলিয়ে গেছে। এসব কৃষক আজ অসহায় অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে। নেতৃবৃন্দ বলেন, হাওর অঞ্চলের পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্তৃপক্ষের চরম গাফিলতি ও দুর্নীতির কারণে সময়মত বাঁধ নির্মাণ না করা এবং দুর্বল বাঁধ নির্মাণের ফলেই কৃষকের আজ মাথায় হাত। নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে হাওর অঞ্চলকে দুর্গত এলাকা ঘোষণা, পানি উন্নয়ন বোর্ডের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের বিচারের আওতায় আনা, ক্ষতিগ্রস্ত হাওরবাসীদের জন্য হাওরের ইজারা বাতিল করে সাধারণ মানুষকে মাছ ধরার নিশ্চয়তা, সকল ধরনের ঋণের সুদ মওকুফ করে নতুন করে ঋণ প্রদান ও চালসহ খাদ্যসামগ্রী বিতরণের দাবি জানান। এ নিয়ে সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোনায় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সুনামগঞ্জ: ধর্মপাশা উপজেলার মধ্যনগর থানা শাখার উদ্যোগে গত ১৪ এপ্রিল দুপুরে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। মধ্যনগর শহীদ মিনারে অনুষ্ঠিত সমাবেশে মওজ আলীর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম সদস্য ডা. দিবালোক সিংহ, কৃষক সমিতির সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য আজহারুল ইসলাম আরজু, ক্ষেতমজুর সমিতির সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন রেজা, সুনামসঞ্জ জেলা সিপিবি সভাপতি অধ্যাপক চিত্তরঞ্জন তালুকদার, মধ্যনগর থানা শাখার সম্পাদক আব্দুল আউয়ালসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ। সমাবেশে নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে মধ্যনগরসহ হাওর অঞ্চলকে দুর্গত এলাকা ঘোষণার দাবি জানিয়ে বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের গাফিলতি ও দুর্নীতির কারণে প্রতিবছর কৃষকের স্বপ্ন পানিতে তলিয়ে যায়। এবছরও এই সকল দুর্নীতিবাজদের কারণে সকল হাওর অঞ্চল পানিতে তলিয়ে লক্ষ লক্ষ কৃষকের ধান পানিতে তলিয়ে গেছে। বক্তারা অসৎ কর্মকর্তাসহ জড়িতদের বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান। বক্তারা অবিলম্বে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষককে ক্ষতিপূরণ, ব্যাংক ঋণ মওকুফ এবং নতুন করে বিনা সুদে ঋণ দেওয়ার দাবি করেন। বক্তারা হাওরের ইজারা বাতিলেরও দাবি জানান। এছাড়াও হাওর অঞ্চলকে অবিলম্বে দুর্গত এলাকা ঘোষণার দাবি করেছে বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতি হাওর আন্দোলন সমন্বয় কমিটির আহ্বায়ক নলিনী কান্ত সরকার। তিনি এক বিবৃতিতে ক্ষতিগ্রস্ত হাওরবাসীকে কমপক্ষে এক বছরের জন্য চালসহ খাদ্য সামগ্রী সরবরাহ, হাওরের ইজারা বাতিল করে সকলের মাছ ধরার নিশ্চয়তা, হাওর অঞ্চলের সকল নদী খনন, বেড়িবাঁধগুলো যথাসময়ে নির্মাণ, হাওর উন্নয়ন বোর্ডের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের বিচারসহ বিভিন্ন দাবি জানান। নেত্রকোণা: জেলার মোহনগঞ্জ উপজেলার মানশ্রী ও করাচাপুর বাজারে গত ৭ এপ্রিল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এসব সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জেলা সিপিবি’র সাধারণ সম্পাদক নলিনী কান্ত সরকার, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য হাবিবুর রহমান, ক্ষেতমজুর সমিতির নেতা আব্দুল মোমিন। ৮ এপ্রিল সকালে খালিয়াজুরি উপজেলার ইছাপুর বাজারে এবং বিকালে লিপসা বাজার ও শালদিঘায় সমাবেশ, কর্মী সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসব সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জেলা সিপিবি সাধারণ সম্পাদক নলিনী কান্ত সরকার, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য হাবিবুর রহমান, উপজেলার সভাপতি জয়নাল আবেদীন, সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী, নিরঞ্জন সরকার, বিদুর সরকারসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। সমাবেশে নেতৃবৃন্দ হাওরের ইজারা বাতিল করে সকলের মাছ ধরার নিশ্চয়তা দাবি করেন। লিপসা বাজারের সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, হাওর প্লাবিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এক শ্রেণির অসৎ ব্যবসায়ী চালের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। ৯ এপ্রিল মোহনগঞ্জের গাগলাজুড় বাজারে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, নলিনী কান্ত সরকার, হাবিবুর রহমান, এনামুল হক বাচ্চু, গোলাম রাব্বানী, আব্দুল মোমিন, মশিউর রেজা। সমাবেশে নেতৃবৃন্দ নেত্রকোনার হাওর অঞ্চলকে দুর্গত এলাকা ঘোষণার দাবি জানান। হবিগঞ্জ: অবিলম্বে হাওর অঞ্চলকে দূর্গত এলাকা ঘোষণা, ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের পুনর্বাসন, কৃষি ঋণ মওকুফ, বিনা সুদে কৃষি ঋণ প্রদান, দায়ী পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের শাস্তির দাবিতে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ হবিগঞ্জ জেলার যৌথ উদ্যোগে স্থানীয় খোয়াই ব্রীজ পয়েন্ট থেকে একটি মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। শেষে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে নিমতলায় এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। জেলা সিপিবি সভাপতি হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে ও জেলা বাসদ সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট জুনায়েদ আহমেদ এর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, বাসদ নেত্রী সম্পা বসু, জেলা সিপিবি সাধারণ সম্পাদক পীযুষ চক্রবর্তী, আব্দুর রশীদ, বাসদ নেতা মুজিবুর রহমান ফরিদ, লোকমান আহমেদ, কৃষকনেতা অনু মিয়া। সংহতি বক্তব্য রাখেন, জেলা বারের সাবেক সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট মুরলী ধর দাশ। অন্যান্য নেতৃবৃন্দের মাঝে উপস্থিত ছিলেন সিপিবি নেতা সাহেব আলী, মনজিল মিয়া, রনজিত সরকার, বাসদ নেতা ডা. সুনীল রায়, ভূমিহীন নেতা মুক্তার আলী, ছাত্রনেতা আব্দুল হাফিজ প্রমুখ। সভায় বক্তাগণ দেশের অর্থনীতির অন্যতম চালিকাশক্তি কৃষকসমাজকে পুনর্বাসনসহ গ্রামে গ্রামে রেশনিং ব্যবস্থা চালু করা এবং পুণরায় কৃষি ঋণ প্রদানের দাবি জানান। কিশোরগঞ্জ : হাওড়াঞ্চলকে দুর্গত এলাকা ঘোষণা করে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দেয়া, কৃষি ঋণ মওকুফসহ বিভিন্ন দাবিতে কিশোরগঞ্জে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)’র উদ্যোগে সমাবেশ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শহরের গৌরাঙ্গবাজার এলাকায় দেড় ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধনে সিপিবির জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতাকর্মীরা ছাড়াও নানা শ্রেণি পেশার লোকজন এতে অংশ নেয়। জেলা সিপিবির সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও জেলা সিপিবির সদস্য বাহার উদ্দিন বাচ্চুর পরিচালনায় সমাবেশে বক্তৃতা করেন জেলা কৃষক সমিতির সভাপতি ডা. এনামুল হক ইদ্রিস, জেলা সিপিবির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এনামুল হক, সাবেক সাধারণ সম্পাদক রফিউল আলম চৌধুরী মিলাদ, জেলা ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম সাত্তার, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি রিপন রায় লিপু, জেলা ক্ষেতমজুর সমিতির সভাপতি সেলিম উদ্দিন খান, জেলা সিপিবি নেতা মোস্তফা কামাল নান্দুসহ অন্যরা। বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, হাওর এলাকার স্থানীয় প্রশাসনের চরম উদাসীনতায় পাউবির কর্মকর্তারা বাঁধ নির্মাণের নামে কোটি কোটি টাকা আত্মসাত করেছে। সরকার সেইসব দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের এখনো প্রত্যাহার করে শাস্তির আওতায় আনছে না। অথচ অকাল বন্যায় হাওরাঞ্চলের কৃষকের একমাত্র উৎপাদিত ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের চরম গাফিলতির কারণে। বক্তারা অবিলম্বে হাওড় এলাকাকে দুর্গত এলাকা ঘোষণা করে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দেয়াসহ কৃষি ঋণ মওকুফের জন্য সরকারের নিকট জোর দাবি জানিয়েছেন।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..