সিপিবি’র প্রতিক্রিয়া

সাম্প্রদায়িক পদস্খলন

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা প্রতিবেদক : ‘হেফাজতে ইসলামের নেতৃবৃন্দসহ কওমি মাদ্রাসার আলেমদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শিক্ষা বিভাগের নিয়ন্ত্রণের বাইরে কওমি মাদ্রাসার সর্বোচ্চ সনদকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রির স্বীকৃতি ঘোষণা, সুপ্রিম কোর্টের ভাস্কর্য অপসারণের ইচ্ছা প্রকাশসহ যেসব পদক্ষেপ গ্রহণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন তার বেশির ভাগকেই অগ্রহণযোগ্য বলে আখ্যায়িত করেছেন এবং সেসবকে প্রত্যাখ্যান করেছে’ বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)। পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবু জাফর আহমেদ গত ১২ এপ্রিল এক বিবৃতিতে এসব কথা বলেন। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, এসব পশ্চাদমুখী পদক্ষেপ কেবল মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারা থেকে পদস্খলনই নয়, তা অনেক ক্ষেত্রে পাকিস্তানি আমলের সাম্প্রদায়িক পশ্চাদপদতাকেও ছাড়িয়ে গেছে। সাম্প্রদায়িকতা ও সাম্প্রদায়িক শক্তির কাছে আত্মসমর্পণ ও তার সঙ্গে মিতালী স্থাপনের যে নীতি সরকার অনুসরণ করছে, একদিকে তা যেমন মুক্তিযুদ্ধের অবশিষ্ট অর্জনগুলোকে বিনষ্ট করবে, সঙ্গে সঙ্গে তা হবে চরম আত্মঘাতী। এই ভ্রান্ত ও বিপজ্জনক পথ দেশে জঙ্গিবাদের শক্তির বিকাশ ও বিস্তারের ক্ষেত্রে তৈরি করে দিবে। ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তে অর্জিত বাংলাদেশের এরূপ পরিণতি মেনে নেয়া যায় না। সাম্প্রদায়িক পদস্খলন রুখে দাঁড়ানো এখন একটি প্রধান কর্তব্য হিসেবে আবির্ভুত হয়েছে। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ মুক্তিযুদ্ধের চেতনা-ধারা তথা জাতীয়তাবাদ-সমাজতন্ত্র-গণতন্ত্র-ধর্মনিরপেক্ষতার রাষ্ট্রীয় আদর্শ, সমুন্নত রাখতে সংগ্রাম জোরদার করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছেন। এই আদর্শ থেকে বিচ্যুতি আজ যে বিপজ্জনক পর্যায়ে উপনীত হয়েছে তার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর জন্য নেতৃবৃন্দ দেশের বুদ্ধিজীবী সমাজসহ দেশের সব গণতান্ত্রিক-অসাম্প্রদায়িক দল ও শক্তি এবং জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..