শ্রমিকদের দাবি আদায়ে সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত হোন : সহিদুল্লাহ চৌধুরী

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

লতিফ বাওয়ানী জুট মিলস শ্রমিক ইউনিয়নের বার্ষিক সাধারণ সভায় বক্তব্য রাখছেন প্রখ্যাত শ্রমিকনেতা সহিদুল্লাহ চৌধুরী
একতা প্রতিবেদক : প্রখ্যাত শ্রমিক নেতা ও টিউসির সভাপতি সহিদুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন,‘পাটকলগুলোর অবস্থা দেখে মনে হয়, মিলগুলো রাষ্ট্রায়ত্ত খাত থেকে বেসরকারি মালিকানায় পরিণত করার জন্য গোপনে গোপনে প্রচেষ্টা চলছে। অথবা এগুলো বন্ধ করে দেওয়া হবে। গত ১৭ মার্চ বিকেলে ডেমরার ‘বাওয়ানী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে’ লতিফ বাওয়ানী জুট মিলস শ্রমিক ইউনিয়নের বার্ষিক সাধারণ সভায় তিনি একথা বলেন। এতে আবু তাহেরের সভাপতিত্বে ও এস এম শুভর সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, লতিফ বাওয়ানী জুট মিলস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের, রেজিস্টার অব ট্রেড ইউনিয়নের নারায়ণগঞ্জ শাখার প্রতিনিধি সাদেকুজ্জামান প্রমুখ। সহিদুল্লাহ চৌধুরী আরও বলেন, অপচয়, যন্ত্রপাতি ক্ষয়ে যাওয়া এবং মানসম্মত কাঁচামালের অভাবে মিলগুলো অব্যাহতভাবে ঘাটতির সম্মুখীন হচ্ছে। ধার-দেনা পরিশোধের ক্ষমতাও আজ নেই। এই পুরানা যন্ত্রপাতির কারণে এবং মানসম্মত সুতার অভাবে মিলের আয় অস্বাভাবিকভাবে হ্রাস পেয়েছে। এ ধরনের সমস্যার সমাধান না করে কর্মকর্তারা শ্রমিকদের দোষারোপ করছে। ফলে শ্রমিকেরা নানাভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছে। তিনি বলেন, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন দুইগুণ বাড়লেও শ্রমিকদের বকেয়া পরিশোধ করা হয় নাই। কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যে বেতন শ্রমিকরা যোগান দেয় তাদের মজুরি কমিশন এখনও পর্যন্ত ঘোষিত হয়নি। এইসব সমস্যার সমাধানে আন্দোলন সংগ্রামতো অনেক পরের কথা, দৃশ্যমান কার্যকর কোনো উদ্যোগ লক্ষ্য করা যায় না। এইসব সমস্যার সমাধানে আমাদের আরও বেশি সোচ্চার হতে হবে। সেইসঙ্গে দাবি আদায়ের লক্ষ্যে শ্রমিকদের ঐক্যবদ্ধ করার মাধ্যমে আন্দোলন সংগ্রামের প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে। এসময় তিনি আগামী দিনে মজুরি কমিশনের দাবিতে শক্তিশালী ও কর্যকর সংগ্রাম গড়ে তোলার ঘোষণা দেন। সংগ্রামের দৃঢ প্রত্যয় ও অঙ্গীকার ব্যক্ত করে সহিদুল্লা চৌধুরী বলেন, শত্রুরা ভেতর এবং বাইরে থেকে আমাদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করার চেষ্টা করবে। সেদিকে আমাদের সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। আমাদের ইউনিয়নকে ঘিরে শ্রমিকসহ সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর মধ্যে যে আগ্রহের সৃষ্টি হয়েছে তা কাজে লাগিয়ে নিজেদের সাংগঠনিক অবস্থান সুদৃঢ় করতে হবে। তাহলে বিজয় আমাদের সুনিশ্চিত। সভায় সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের বলেন, লড়াকু আমাদের এই ইউনিয়ন আগামীতে শ্রমিকদের দাবি আদায়ের জন্য ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করে যাবে।বিগত সিবিএ নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার পরেও আমাদের নেতাকর্মী ও সাধারণ শ্রমিকেরা নির্যাতনের শিকার হয়েও শ্রমিকদের পাশে থাকার চেষ্টা করেছে। ভবিষ্যতেও আমাদের সকল বিভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। সভায় আব্দুল কাদের সাধারণ সম্পাদকের রিপোর্ট, মো. ইউসুফ অর্থ রিপোর্ট, সহ-সভাপতি মুজিবর রহমান গঠনতন্ত্রের সংশোধনী প্রস্তাব উত্থাপন করেন। শ্রমিকেরা সর্বসম্মতভাবে সকল প্রস্তাব অনুমোদন করেন।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..