মরণ রে...

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা প্রতিবেদক : গানে আছে, ‘সব মরণ নয় সমান’। সমান হবে কেমনে, সব মানুষই তো সমান না। মানুষে মানুষে কতো ফারাক! এখন সব মানুষের মরণ যদি সমান হয়, তাহলে তো আর ফারাক থাকে না। এই কারণে বোধ হয়, মরণে মরণেও ফারাক আছে। এই কারণেই কি মানুষের স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টি চেয়েছিলেন প্রখ্যাত সাংবাদিক। ব্যাপারটা কি ধনী আর গরিবের মতো? মানে, ধনী মানুষ চিকিৎসা করা অবস্থায় শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত হাসপাতাল বা ক্লিনিকে স্বাভাবিক মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। আর গরিব? গরিবের মৃত্যু হয়, পথেঘাটে, আগাড়ে-বাগাড়ে, মাটিচাপা পড়ে। তাদের জীবনে স্বাভাবিক মৃত্যুর কোনো গ্যারান্টি নাই। এই ধরুন, সিলেটের পাথর তোলা শ্রমিকদের কথা। সেখানকার গোটা সীমান্ত এলাকা জুড়ে মৃত্যুর ফাঁদ পাতা রয়েছে। এলাকার ক্ষমতাসীন দলের লোকেরা সেখান থেকে অবৈধভাবে পাথর তোলে। গরিবরা সেখানে গিয়ে শ্রমিকের কাজ করে। পাথর তোলার সময় মাটিচাপা পড়ে তারা মারা যায়। তখন তাদের লাশ ‘হাপিস’ হয়ে যায়। সঙ্গে মালিকও ‘নাই’ হয়ে যান। কিন্তু তিনি আবার ফিরে আসেন। এসে আবার শ্রমিক হত্যার আয়োজন করেন। তার পেছনে থাকে যথারীতি প্রশাসন আর পুলিশ। সর্বশেষ সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলংয়ে গত ১৬ মার্চ সকালে পাথর তুলতে গিয়ে মাটি চাপায় দুই শ্রমিক নিহত হয়েছেন। পিয়াইন নদীর তীরবর্তী নয়াবস্তি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এর আগে গত ৮ মার্চ জাফলংয়ে একইভাবে গর্ত করে পাথর উত্তোলন করতে গিয়ে মন্দিরবস্তি এলাকায় মাটিচাপায় এক শ্রমিক নিহত হয়েছিলেন। এভাবে পাথর তুলতে গিয়ে শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনা প্রতিদিনের। কিন্তু কোনো বিচার নাই। গরিবের মৃত্যু তো...

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..