৫ হাজারের বেশি বিদ্রোহী নিহত

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা বিদেশ ডেস্ক : ইথিওপিয়ার সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে গোলযোগপূর্ণ উত্তরাঞ্চলীয় তাইগ্রে এলাকায় যুদ্ধরত বিদ্রোহী বাহিনীর সাড়ে পাঁচ হাজারের বেশি সদস্যকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। দেশের যুদ্ধপ্রবণ উত্তরাঞ্চলে দীর্ঘদিন ধরেই সেনাবাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহীদের সংঘর্ষ চলছে। গত বছরের নভেম্বর থেকেই সংঘাতে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে ওই অঞ্চল। ইথিওপিয়ার সিনিয়র লেফটেন্যান্ট জেনারেল বাচা দেবেলে দাবি করেছেন, ২ হাজার ৩০০ বিদ্রোহী আহত হয়েছেন। এবং তারা ২ হাজার জনকে বন্দী করেছেন। তবে বাচা দেবেলে এটা নিশ্চিত করেননি যে, এই হতাহতের সংখ্যা কতদিনের। তবে ধারণা করা হচ্ছে এই সংখ্যা সাম্প্রতিক সময়েরই। ওই সামরিক কর্মকর্তা আরও জানিয়েছেন, সংঘর্ষে আরও দুই হাজার তিনশো বিদ্রোহী আহত হয়েছে এবং আরও দুই হাজার বিদ্রোহীকে আটক করা হয়েছে। এদিকে জাতিসংঘ বলছে, ওই অঞ্চলের কয়েক লাখ মানুষ দুর্ভিক্ষের কবলে পড়েছে। গত জুনে জাতিসংঘের মানবিক সহায়তা কার্যক্রম সমন্বয় সংস্থা ইউএনওসিএইচএ-এর প্রধান মার্ক লোকক বলেন, দুর্ভিক্ষ আরও প্রকোট আকার ধারণ করতে পারে। ছড়িয়ে পড়তে পারে পার্শ্ববর্তী আমহারা ও আফার এলাকায়। এমন পরিস্থিতিতে সেখানে শিগগিরই মানবিক সাহায্য পাঠানোর আহ্বান জানান তিনি। শান্তিতে নোবেলজয়ী আবি আহমেদ ২০১৮ সালে ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী হন। এর আগ পর্যন্ত ওই অঞ্চলের রাজনীতির নিয়ন্ত্রণ ছিল টাইগ্রে পিপলস লিবারেশন ফ্রন্ট বা টিপিএলএফের হাতে। সংগঠনটি ১৯৯১ সালে সামরিক সরকারকে উৎখাত করে ক্ষমতা দখল করে। কিন্তু ২০২০ সালে ইথিওপিয়ার সেনাবাহিনী এবং টিপিএলএফ-এর মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। তারপর থেকে এখন পর্যন্ত ওই অঞ্চলে বিশৃঙ্খলা বিরাজ করছে। এদিকে লে. জেনারেল দেবেলে অভিযোগ করেছেন টিপিএলএফ ইথিওপিয়াকে বিভক্ত করার চেষ্টা করছে। তিনি বলেন, টাইগ্রে এবং আমহারার সীমান্তবর্তী হুমেরা অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার চেষ্টা করছে বিদ্রোহীরা। তবে এ বিষয়ে টিপিএলএফ-এর পক্ষ থেকে কোনো মন্তব্য করা হয়নি।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..