জার্মান নির্বাচনেও ‘বাম জুজু’

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

একতা বিদেশ ডেস্ক: জার্মানির আগামী জোট সরকারে বামপন্থি দলের যোগদানের ‘আশঙ্কা’ দেখিয়ে এসপিডি দলের বিরুদ্ধে প্রচার চালাচ্ছে ম্যার্কেলের শিবির ও উদারপন্থিরা। বামপন্থি ডি লিংকে দলও সরকারে যোগদানে আগ্রহী। জার্মানিতে সাধারণ নির্বাচনের দিন যত এগিয়ে আসছে, বিভিন্ন জনমত সমীক্ষায় সামাজিক গণতন্ত্রী এসপিডি দলের প্রতি সমর্থন তত জোরালো হচ্ছে। অন্যদিকে বিদায়ী চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের ইউনিয়ন শিবির ততই পিছিয়ে পড়ছে। ফলে এসপিডি নেতা ওলাফ শলৎসের নেতৃত্বে আগামী সরকার গঠনের সম্ভাবনা উজ্জ্বল হয়ে উঠছে। এমনটা ঘটলে দেশের সর্বনাশ হতে পারে বলে সতর্ক করে দিচ্ছে ইউনিয়ন শিবির ও উদারপন্থি এফডিপি দল। কারণ সে ক্ষেত্রে জোট সরকার গড়তে বামপন্থি ডি লিংকে দলের যোগদান অপরিহার্য হয়ে উঠতে পারে বলে তাদের যুক্তি। সেই ‘জুজু’ দেখিয়ে ভোটারদের মনে আতঙ্ক সৃষ্টি করার চেষ্টা চালাচ্ছে এই দুই রাজনৈতিক শক্তি। সাবেক পূর্ব জার্মানির কমিউনিস্ট পার্টির একাধিক রূপান্তরের মাধ্যমে আজকের বামপন্থি ডি লিংকে দল সৃষ্টি হয়েছিল। মূলত জার্মানির পূর্বাঞ্চলেই এককালে তাদের রমরমা ছিল। বর্তমানে সমর্থন অনেক কমে এলেও আসন্ন নির্বাচনে কয়েকটি আসন জিতে ‘কিংমেকার’ হয়ে উঠতে পারে এই দল। অভ্যন্তরীণ নীতির ক্ষেত্রে এসপিডি বা সবুজ দলের সঙ্গে কিছু মিল থাকলেও পররাষ্ট্র নীতির প্রশ্নে জার্মানির মৌলিক অবস্থানকে চ্যালেঞ্জ করে অন্যান্য দলের দৃষ্টিতে নিজেদের ‘ক্ষমতায় আসার অযোগ্য’ করে রেখেছে এই দল। বিশেষ করে সামরিক জোট ন্যাটো ও অ্যামেরিকার সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়ে এই দলের অবস্থান তীব্র সমালোচনার কারণ। সেইসঙ্গে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুটিনের প্রতি অত্যন্ত নরম মনোভাবও বামপন্থিদের গ্রহণযোগ্যতা কমিয়ে দিচ্ছে। তাই জোট সরকারে এমন দলের অংশগ্রহণ সম্পর্কে সতর্ক করে দিচ্ছে সিডিইউ, সিএসইউ ও এফডিপি দল। এসপিডি নেতা ওলাফ শলৎস প্রবল চাপ সত্ত্বেও বামপন্থি এই দলের সঙ্গে জোট বাঁধার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেন নি। সবুজ দলও সরাসরি এমন সম্ভাবনা নাকচ করে নি। তবে দুই দলই ডি লিংকের অবস্থানের কড়া সমালোচনা করেছে। শলৎস স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, যে ন্যাটো ও অ্যাটলান্টিকের দুই প্রান্তের মধ্যে সম্পর্কের প্রতি জার্মানির অঙ্গীকার নিয়ে তিনি কোনো দলের সঙ্গেই দরকষাকষির পথে যাবেন না। তাছাড়া সরকারি কোষাগার থেকে লাগামহীন ব্যয়ের দাবিও তাঁর কাছে একেবারেই গ্রহণযোগ্য নয়। ডি লিংকে দল অবশ্য চাপের মুখেও সরাসরি নিজস্ব অবস্থান বদলাতে প্রস্তুত নয়। তবে এই প্রথম জোট সরকারে যোগদানের সুযোগও হাতছাড়া করতে চায় না বামপন্থিরা। এসপিডি ও সবুজ দলের সঙ্গে জোট সরকারের অংশ হবার পক্ষে জোরালো সওয়াল করছে এই দল। সংসদীয় দলের নেতা ডিটমার বার্চ বলেন, ‘‘আমরা সরকারের দায়িত্ব নিতে প্রস্তুত। তাঁর মতে, ন্যূনতম মজুরি বাড়ানো, অত্যন্ত ধনীদের উপর আরও কর চাপানো এবং পুনর্ব্যবহারযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার বাড়ানোর মতো নীতির ক্ষেত্রে এই দল শরিক হিসেবে এসপিডি ও সবুজ দলের সঙ্গে একযোগে কাজ করতে পারে।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..