জমি ফেরতের দাবিতে গোবিন্দগঞ্জে বিক্ষোভ সমাবেশ

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি : গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সাঁওতাল হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তার, সাঁওতাল-বাঙালিদের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারসহ বাপ-দাদার জমি ফেরতের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন সাঁওতালরা। গত ৯ সেপ্টেম্বর সকাল ১১টায় গোবিন্দগঞ্জ-দিনাজপুর আঞ্চলিক সড়কের কাটামোড় নামকস্থানে এ বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে মাদারপুর জয়পুরপাড়া থেকে সাঁওতালদের একটি বিক্ষোভ মিছিল গোবিন্দগঞ্জ-দিনাজপুর আঞ্চলিক সড়কে প্রায় তিন কিলোমিটার প্রদক্ষিণ করে সমাবেশে অংশ নেন। বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) সাহেবগঞ্জ বাগদাফার্ম শাখা এই কর্মসূচির আয়োজন করে। তিন সাঁওতাল হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তার, সাঁওতাল-বাঙালিদের বিরুদ্ধে করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার সহ বাপ-দাদার জমি ফেরতের দাবিতে এ বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন কমিউনিস্ট পার্টির সাহেবগঞ্জ বাগদা ফার্ম শাখার সাধারণ সম্পাদক গণেশ মুরমু। বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সিপিবি কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য ও গাইবান্ধা জেলা সভাপতি মিহির ঘোষ ও সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য প্রতিভা সরকার ববি, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা সিপিবি সভাপতি তাজুল ইসলাম, সিপিবি সদস্য আল মামুন মোবারক, সাহেবগঞ্জ বাগদাফার্ম ভূমি পুনরুদ্ধার সংগ্রাম কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাফরুল ইসলাম প্রধান, উপজেলা ক্ষেতমজুর সমিতির সাধারণ সম্পাদক ওয়াহেদুন্নবী মিলন, উপজেলা কৃষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রঞ্জু, আদিবাসী নেত্রী কেরিনা হাসদা, রুমিলা কিসকু, উপজেলা যুব ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান। সমাবেশে বক্তারা বলেন, তিন সাঁওতালের রক্তে ভেজা সাহেবগঞ্জ বাগদাফার্মের এই জমি। বর্তমানে এই জমিতে বিভিন্ন ধরণের ফসল চাষাবাদ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন সাঁওতালরা। আমরাও ইপিজেড চাই। সরকারের অনেক জমি পতিত রযেছে। সেখানে ইপিজেড করা হোক। এই তিন ফসলি জমিতে নয়। বক্তারা আরও বলেন, শর্ত সাপেক্ষে স্থানীয় সাঁওতাল-বাঙালীদের কাছ থেকে সাহেবগঞ্জ বাগদাফার্মের এই জমি রিকুইজিশন করেছিল তৎকালীন পাকিস্তান সরকার। জমি রিকুইজিশনের সেই শর্ত ভঙ্গ হওয়ায় জমিগুলো তারা ফেরত নিয়ে চাষাবাদ করছেন। এত কিছুর পরও সাহেবগঞ্জ বাগদা ফার্মের জমিতেই ইপিজেড করতে হবে কেন? এটা সাঁওতালদের প্রতি চরম অন্যায় করা হবে। এর পিছনে গভীর ষড়যন্ত্র আছে বলেও তাঁরা দাবি করেন। তাঁরা আরও বলেন, কর্মসংস্থানের জন্য ইপিজেড হতে হবে, তবে তা সাঁওতালের রক্তে ভেজা মাটি সাহেবগঞ্জ বাগদা ফার্মে নয়। তিন সাঁওতাল হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের গ্রেপ্তার, সাঁওতাল-বাঙালীদের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার সহ বাপ-দাদার জমি ফেরতে দাবী জানান বক্তারা। উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ৬ নভেম্বরে সাহেবগঞ্জ ইক্ষুখামারে আখ কাটাকে কেন্দ্র করে চিনিকল শ্রমিক, পুলিশ ও সাঁওতালদের ত্রিমুখি সংঘর্ষ হয়। এসময় পুলিশের গুলিতে শ্যামল হেমব্রম, রমেশ টুডু ও মঙ্গল মার্ডি নামে তিন সাঁওতাল মারা যান। আহত হন উভয়পক্ষের কমপক্ষে ৩০জন।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..