কাতারে ৬৫০০ অভিবাসী শ্রমিকের মৃত্যু

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

একতা বিদেশ ডেস্ক : বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ কাতারে গত ১০ বছরে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল ও শ্রীলঙ্কার সাড়ে ছয় হাজারেরও বেশি অভিবাসী শ্রমিক মারা গেছে। বিভিন্ন দেশের সরকারি উৎসগুলো থেকে পাওয়া তথ্য মিলিয়ে এমন চিত্র পাওয়া গেছে। ২০১০ সালের ডিসেম্বরের এক রাতে বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ হওয়ার গৌরব অর্জন করে কাতার। আর তখন থেকে শুরু করে দক্ষিণ এশিয়ার এই পাঁচ দেশের গড়ে ১২ জন করে শ্রমিক প্রতি সপ্তাহে মারা গেছে। এক দশক ধরে বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল ও শ্রীলঙ্কার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের থেকে তথ্য সংগ্রহ করে মোট ৫ হাজার ৯২৭ জনের মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে। অপরদিকে কাতারে থাকা পাকিস্তান দূতাবাস জানিয়েছে গত এক দশকে ৮২৪ পাকিস্তানি শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে সেখানে। মধ্যপ্রাচ্যের দেশটিতে শ্রমিকের মৃত্যুর সংখ্যা অত্যন্ত বেশি। তবে এখানে শুধু দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর হিসেবই রয়েছে। এর সঙ্গে ফিলিপিন্স ও কেনিয়া থেকে কাতারে পাঠানো বিপুল সংখ্যক মারা যাওয়া শ্রমিকদের সংখ্যা যোগ করা হয়নি। গত ১০ বছরে কাতার প্রধানত ২০২২ সালের বিশ্বকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টকে কেন্দ্র করে অবিশ্বাস্য নির্মাণ কর্মসূচি শুরু করেছে। নতুন সাতটি স্টেডিয়ামের পাশাপাশি বহু বড় প্রজেক্টের নির্মাণ ইতোমধ্যেই শেষ করা অথবা হওয়ার পথে। নতুন বিমানবন্দর, সড়ক, গণপরিবহন ব্যবস্থা, হোটেল ও নতুন শহর, সবই বিশ্বকাপের অতিথিদের জন্য জন্য তৈরি করা হয়েছে। উপসাগরীয় দেশগুলোতে শ্রমিকদের অধিকার নিয়ে কাজ করা ফেয়ারস্কয়ার প্রজেক্টের পরিচালক নিক ম্যাকগিহান জানান, মৃত্যুর রেকর্ডগুলো পেশা ও কাজের স্থান অনুযায়ী তালিকাবদ্ধ করা না হলেও যারা মারা গেছেন তাদের অনেকেই বিশ্বকাপের অবকাঠামো প্রকল্পগুলোতে কাজ করতেন, এটি ধরে নেওয়া যায়। বিশ্বকাপের স্টেডিয়াম নির্মাণ কাজের সঙ্গে সরাসরি জড়িত থাকা শ্রমিকদের মধ্যে ৩৭ জনের মৃত্যু হয়। আয়োজক কমিটির মতে ৩৪ জনের মৃত্যু ‘কাজের সঙ্গে সম্পর্কিত কারণে’ হয়নি। এর মধ্যে এমন বেশ কয়েকজন শ্রমিক স্টেডিয়াম নির্মাণস্থলেই সংজ্ঞা হারিয়ে মারা গেছেন। এসব তথ্য ২০ লাখ অভিবাসী শ্রমিকের সুরক্ষায় কাতার যে ব্যর্থ হয়েছে সেটিই তুলে ধরছে। মূলত তরুণ শ্রমিকদের এই উচ্চ মৃত্যুর কারণ তদন্ত করতেও ব্যর্থ হয়েছে কাতার। মৃত্যুর পরিসংখ্যানের পেছনে ধ্বংস হয়ে যাওয়া বহু পরিবারের কাহিনী আছে যারা তাদের পরিবারের প্রধান উপার্জনক্ষম ব্যক্তিটিকে হারিয়েছেন। এসব পরিবার ক্ষতিপূরণ পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করে আছেন আর অনেক পরিবার তাদের প্রিয়জনের মৃত্যুর পরিস্থিতি নিয়েও বিভ্রান্ত। বাংলাদেশি শ্রমিক মোহাম্মদ শহীদ মিয়া শ্রমিকদের জন্য নির্ধারিত বাসস্থানে খোলা বৈদ্যুতিক তারের সংস্পর্শে আসা মেঝেতে জমে থাকা পানি থেকে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা যান। ভারতের মধু বোল্লাপাল্লির পরিবার বুঝেই উঠতে পারছেন না কীভাবে ৪৩ বছর বয়সী স্বাস্থ্যবান লোকটি কাতারে কাজ করার সময় ‘স্বাভাবিক কারণে’ মারা গেল। কাতারের নির্মম মৃত্যুর এসব সংখ্যা দাপ্তরিক স্প্রেডশিটের লম্বা তালিকায় কারও নামের পাশে মৃত্যুর কারণ হিসেবে উপর থেকে পড়ে একাধিক ভোঁতা আঘাত, ফাঁসিতে ঝুলে থাকার কারণে শ্বাসকষ্টে মৃত্যু বা কারও মৃতদেহ পচন ধরায় কারণ নির্ণয় করা যায়নি বলে লেখা আছে। তবে সবচেয়ে বেশি আছে তথাকথিত ‘স্বাভাবিক মৃত্যু’; যেখানে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ অথবা শ্বাসতন্ত্র বিকল হওয়াকে দায়ী করা হয়েছে। ভারতীয়, নেপালি ও বাংলাদেশি শ্রমিকদের ৬৯ শতাংশের মৃত্যুর স্বাভাবিক কারণে হয়েছে। গার্ডিয়ানের আগের প্রতিবেদনে বলা হয়েছিলো, শ্রেণিবদ্ধকরণ প্রায়ই কোনো ময়নাতদন্ত ছাড়াই করা হয়েছে। ২০১৯ সালে গ্রীষ্মকালে কাতারের তীব্র গরম সম্ভবত বহু শ্রমিকের মৃত্যুর উল্লেখযোগ্য একটি কারণ।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..