ইরানের দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র

মধ্যপ্রাচ্যে উড়লো মার্কিন বোমারু বিমান

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

একতা বিদেশ ডেস্ক : ১৮০০ কিলোমিটার দূরের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হেনেছে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র। ১৬ জানুয়ারি ইরানের সেনাবাহিনীর (আইআরজিসি) সামরিক মহড়ার দ্বিতীয় দিনে এই ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়। ভারত মহাসাগরে ছুড়ে দেয়া ক্ষেপণাস্ত্রের সাহায্যে ১ হাজার ৮০০ কিলোমিটার দূরের বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তু ধ্বংস করতে সক্ষম হয়েছে। দূর পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রগুলো এই মরুভূমি থেকে ভারত মহাসাগরের উত্তর অংশে কল্পিত শত্রুর বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত করেছে। এগুলোর আঘাতে সাগরে নির্ধারিত লক্ষ্যবস্তুগুলো পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে যায়। বিপ্লবী বাহিনীর কমান্ডার মেজর জেনারেল হোসেইন সালামি বলেছেন, ‘আমাদের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ প্রতিরক্ষা নীতি হচ্ছে, শত্রুর বিমানবাহী রণতরী ও যুদ্ধজাহাজের বিরুদ্ধে দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার।’সালামি বলেন, ‘আমরা এখন সাগরে চলমান লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম।’ মহড়ার প্রথম দিনে নতুন প্রজন্মের অসংখ্য ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন ব্যবহার করা হয়। মুহুর্মুহু ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপে গোটা মরুভূমি প্রকম্পিত হয়ে ওঠে। মহাযুদ্ধের পরিস্থিতি তৈরি হয়। মহড়ায় বহু বোমারু ড্রোনও ব্যবহার করা হয়েছে। ১৫ জানুয়ারি থেকে ইরানের এই মহড়া শুরু হয়েছিল। এদিকে মধ্যপ্রাচ্যে আবারও বি-৫২ বোমারু বিমান উড়িয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন সেন্ট্রাল কমান্ড (সেন্টকম) জানিয়েছে, প্রতিরক্ষা পরিকল্পনার অংশ হিসেবে উপস্থিতির টহল দিয়েছে এসব বিমান। তবে মেয়াদ পূর্ণের শেষ সময়ে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানের বিরুদ্ধে সামরিক পদক্ষেপ নিতে বলে নিরাপত্তা বিশ্লেষকদের হুঁশিয়ারির মধ্যে টহল দিয়েছে এসব বোমারু বিমান। মার্কিন বিমানের টহলের কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে ইরান। তেহরান বলেছে, হুমকিমূলক কৌশল প্রয়োগের বদলে যুক্তরাষ্ট্রের উচিত সামরিক বাজেট আমেরিকানদের স্বাস্থ্যসেবায় ব্যয় করা। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে। গত নভেম্বরে ইরানের পরমাণু বিজ্ঞানী মোহসিন ফাকরেজাদেহ খুন হওয়ার পর ওয়াশিংটন ও তেহরানের মধ্যে উত্তেজনা নতুন করে বৃদ্ধি পায়। ওই হত্যাকাণ্ডের জন্য মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম মিত্র ইসরায়েলকে দায়ী করে ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি কঠোর প্রতিশোধ নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তবে এই মুহূর্তে কোনও সামরিক সংঘাত যুক্তরাষ্ট্রের নতুন নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের জন্য পররাষ্ট্র নীতিকে জটিল করে ফেলতে পারে। শপথ নেওয়ার পর তেহরানের সঙ্গে কূটনৈতিক যোগাযোগ পুনরায় শুরুর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..