শোকসভা, স্মরণসভা

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
শেরপুরে মণি সিং’র মৃত্যবার্ষিকী পালিত বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি সিপিবি শেরপুর উপজেলার উদ্যোগে কমরেড মণি সিং এর ৩০তম মৃত্যবার্ষিকী যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করা হয়। মুক্তিযোদ্ধা সংসদ পৌর কমান্ড কার্যালয়ে তার কর্মময় জীবনের উপর আলোকপাত করেন সিপিবি উপজেলা কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা হরিশংকর সাহা, সাঃ সম্পাদক শ্রীকান্ত মাহাতো, সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা নিমাই ঘোষ, বাংলাদেশ ক্ষেত মজুর সমিতির বিভাগীয় সমন্বয় কমিটির সদস্য আবদুস সামাদ, ক্ষেতমজুর নেতা রফিকুল ইসলাম ভবাণী প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি বগুড়ায় মণি সিংহের স্মরণসভা ব্রিটিশবিরোধী সংগ্রামী, টঙ্ক আন্দোলনের মহানায়ক, মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রবাসী বিপ্লবী সরকারের অন্যতম উপদেষ্টা, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সাবেক সভাপতি কমরেড মণি সিংহের ৩০তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এক স্মরণসভা উপজেলা কমিটির উদ্যোগে বীর মুক্তিযোদ্ধা সন্তোষ কুমার পালের সভাপতিত্বে গত ৩১ ডিসেম্বর বিকাল ৪টায় সাতমাথাস্থ পার্টি কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সভা সঞ্চালনা করেন সদর উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক শাহনোয়াজ খান পাপ্পু। বক্তব্য রাখেন সিপিবি বগুড়া জেলা কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জিন্নাতুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ফরিদ, ঐক্যন্যাপের কেন্দ্রীয় নেতা মাহফুজুল হক দুলু, অ্যাড. দুলাল কুন্ডু, হাফিজ আহমেদ, অ্যাড. লুৎফর রহমান, শ্রমিকনেতা ফজলুর রহমান, মতিয়ার রহমান, লিয়াকত আলী, হাসান আলী শেখ, আব্দুল মান্নান, হরিশংকর সাহা, যুবনেতা সাজেদুর রহমান ঝিলাম, ছাত্রনেতা সোহানুর রহমান প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি সত্যেন সেনের ৪০তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন সত্যেন সেনের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে তাঁর দেখানো পথে একটি অসাম্প্রদায়িক চেতনায় সমৃদ্ধ, মৌলবাদমুক্ত, শোষণহীন, সাম্যবাদী সমাজ গঠনের লক্ষ্যে আজীবন লড়াই-সংগ্রাম চালানোর প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী। উদীচী’র প্রতিষ্ঠাতা শিল্পী-সংগ্রামী-সাহিত্যিক-সাংবাদিক-কৃষক নেতা সত্যেন সেনের ৪০তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ৫ জানুয়ারি বিকালে উদীচী কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উদীচী নেতারা এ প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। সত্যেন সেনের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানের শুরুতেই সত্যেন সেনের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে ও প্রদীপ প্রজ্বলনের মাধ্যমে শ্রদ্ধা জানানো হয়। এরপর শুরু হয় আলোচনা সভা। করোনা মহামারির মধ্যেও সীমিত পরিসরে আয়োজিত অনুুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সদস্য নিবাস দে। উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সাধারণ সম্পাদক অমিত রঞ্জন দে’র সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি হাবিবুল আলম, সাধারণ সম্পাদক জামসেদ আনোয়ার তপন, সহ-সাধারণ সম্পাদক সঙ্গীতা ইমাম, ইকবালুল হক খান এবং কেন্দ্রীয় সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য বিমল মজুমদার। সভায় বক্তাারা বলেন, ১৯০৭ সালের ২৮ মার্চ জন্মগ্রহণ করা সত্যেন সেন আজীবন সত্য, সুন্দর, ন্যায়ের পক্ষে কথা বলেছেন। ছাত্রজীবন থেকেই নানা ধরনের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে সক্রিয়ভাবে যুক্ত ছিলেন তিনি। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে ছিল তাঁর সরব উপস্থিতি। এছাড়াও, কৃষক আন্দোলনেরও অন্যতম পুরোধা ব্যক্তিত্ব ছিলেন সত্যেন সেন। একটি অসাম্প্রদায়িক চেতনায় সমৃদ্ধ, মৌলবাদমুক্ত, সাম্যবাদী সমাজ গঠনের লক্ষ্যে ১৯৬৮ সালের ২৯ অক্টোবর সত্যেন সেন ও রণেশ দাশগুপ্তসহ বেশ কয়েকজন প্রগতিশীল মুক্ত চিন্তার মানুষের সক্রিয় অংশগ্রহণে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী। বহু বছরের লড়াই-সংগ্রাম ও ঘাত-প্রতিঘাত পেরিয়ে বর্তমানে দেশের সর্ববৃহৎ গণসাংস্কৃতিক সংগঠন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে উদীচী। বক্তারা বলেন, বর্তমান সময়ে যখন বাংলা ও এই ভূখণ্ডের আবহমান সংস্কৃতির উপর নতুন করে আঘাত এসেছে, যখন ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে একটি গোষ্ঠী রাজনৈতিক ফায়দা লোটার চেষ্টা করছে, যখন রাজনীতিতে আদর্শের কথা ভুলে গিয়ে নানামুখী আপোস দেখা যাচ্ছে তখন সত্যেন সেনের আদর্শ আমাদের সঠিক পথ দেখাবে। আর তাই, সত্যেন সেনের দেখানো পথে একটি অসাম্প্রদায়িক চেতনায় সমৃদ্ধ, মৌলবাদমুক্ত, সাম্যবাদী সমাজ গঠনের লক্ষ্যে আজীবন লড়াই-সংগ্রাম চালিয়ে যাবে উদীচী। ১৯৮১ সালের ৫ জানুয়ারি মৃত্যুবরণ করেন সত্যেন সেন। আলোচনা ছাড়াও অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন উদীচী’র শিল্পীরা। তারা পরিবেশন করেন সত্যেন সেন রচিত ‘মানুষেরে ভালোবাসি এই কি মোর অপরাধ’, ‘দিনে যদি হোস রে কানা কী হবে আর রাত্রি হলে’ গান দু’টি। এছাড়াও পরিবেশন করেন গান- ‘আগুনের পরশমনি ছোঁয়াও প্রাণে’। একক আবৃত্তি পরিবেশন করেন মিজান সুমন। বিজ্ঞপ্তি মানিকগঞ্জে সত্যেন সেন’র মৃত্যুবার্ষিকী পালিত বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী’র প্রতিষ্ঠাতা, ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের কিংবদন্তি বিপ্লবী, সাহিত্যিক এবং শ্রমিক-সংগঠক সত্যেন সেন’র ৪০তম মৃত্যুবার্ষিকী তাঁর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ ও প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মধ্যদিয়ে মানিকগঞ্জে পালিত হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায় উদীচী মানিকগঞ্জ জেলা সংসদ কার্যালয় প্রাঙ্গণে এ কর্মসূচি পালন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, উদীচী মানিকগঞ্জ জেলা সংসদের সহসভাপতি মজিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মামুন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এম.আর.লিটন, সংগীত বিষয়ক সম্পাদক সুধীর বিশ্বাস ও রাহুল সরকার প্রমুখ। কর্মসূচিতে উদীচী’র নেতাকর্মীরা বিপ্লবী সত্যেন সেনের কর্মময় সংগ্রামী জীবন নিয়ে আলোচনা এবং স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন। বিজ্ঞপ্তি আনোয়ার হোসেন আরিফের মৃত্যুবার্ষিকীতে আলোচনা সভা বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি চাঁদপুর জেলার সাবেক সহ-সাধারণ সম্পাদক, কৃষকনেতা, সাবেক শিক্ষক, বীরমুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন আরিফের ২৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে গত ১৫ জানুয়ারি বিকাল ৩ টায় তাঁর সমাধিতে কমিউনিস্ট পার্টি, যুব ইউনিয়ন, ছাত্র ইউনিয়ন, উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর নেতৃবৃন্দ শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন। পরে মঠখোলায় আলোচনা সভা কৃষক নেতা তাজু প্রধানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সিপিবি চাঁদপুর জেলা সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন মিয়াজী, বীর মুক্তিযোদ্ধা অজিত সাহা, বীর মুক্তিযোদ্ধা সরদার আবুল বাশার, জেলা উদীচীর সভাপতি অধ্যাপক দুলাল দাস, বীর মুক্তিযোদ্ধা বাসুদেব মজুমদার, সদর উপজেলা সিপিবির সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন, শিক্ষক নেতা বিলাল হোসেন, ছাত্র ইউনিয়ন চাঁদপুরের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সজীব অধিকারী স্বাগত, ছাত্র ইউনিয়ন জেলা সভাপতি প্রণব ঘোষ, যুব নেতা মো. শাহিন প্রধানিয়া। সভা পরিচালনা করেন শহর যুব ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো.নূরে আলম। বিজ্ঞপ্তি আব্দুস সাত্তার তারার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে স্মরণসভা বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র (টিইউসি)’র কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-সভাপতি, বগুড়া জেলা শাখার সভাপতি, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) বগুড়া জেলা কমিটির সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য, বগুড়া সদর উপজেলা কমিটির সভাপতি, বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ ও প্রখ্যাত শ্রমিক নেতা প্রয়াত কমরেড আব্দুস সাত্তার তারার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এক স্মরণসভা সম্প্রতি সাতমাথাস্থ উদীচী কার্যালয়ে বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র বগুড়া জেলা শাখার সহ-সভাপতি ফজলুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভা সঞ্চালনা করেন টিইউসি বগুড়া জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমান। বক্তব্য রাখেন সিপিবি বগুড়া জেলা কমিটির সভাপতি জিন্নাতুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ফরিদ, সাবেক সভাপতি হাফিজ আহমেদ, উদীচী বগুড়া জেলা সভাপতি মাহমুদুস সোবাহান মিন্নু, ঐক্য ন্যাপের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মাহফুজুল হক দুলু, আব্দুল সালাম, সাজেদুর রহমান ঝিলাম, সাইফুজ্জামান টুটুল, সোহরাব হোসেন, রেজাউল করিম, বুলু মিয়া, দুলাল চন্দ্র দাস প্রমুখ। নেতৃবৃন্দ বলেন, প্রয়াত আব্দুস সাত্তার তারা একজন সাচ্চা বিপ্লবী, খাঁটি দেশপ্রেমিক বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ ও প্রখ্যাত শ্রমিক নেতা ছিলেন। তিনি একাধিকবার জেল খেটেছেন, আত্মগোপনে থেকেছেন। তিনি একজন শ্রমিক দরদী দক্ষ সংগঠক ছিলেন। তাঁর মৃত্যুতে শ্রমিক আন্দোলনের অপূরণীয় ক্ষতি সাধিত হয়েছে। বিজ্ঞপ্তি সিপিবি নেতা জি এম শাজাহানের মৃত্যুতে খুলনায় শোকসভা বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) খুলনা মহানগর সম্পাদকমণ্ডলীর সাবেক সদস্য, বেকারী শ্রমিক ইউনিয়ন খুলনা জেলার সাবেক সাধারণ সম্পাদক টিইউসি নেতা জি এম শাজাহান-এর মৃত্যুতে এক শোকসভা পার্টির মহানগর কমিটির উদ্যোগে গত ৭ জানুয়ারি বিকেল ৫টায় দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। দলের মহানগর সভাপতি এইচ এম শাহাদাতের সভাপতিত্বে এবং সহ-সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. নিত্যানন্দ ঢালীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত শোকসভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন–সিপিবি কেন্দ্রীয় সদস্য ও খুলনা জেলা সভাপতি ডা. মনোজ দাশ, কেন্দ্রীয় সদস্য এস এ রশীদ, গণসংহতি আন্দোলনের জেলা সমন্বয়কারী মুনীর চৌধুরী সোহেল, জেলা সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. এম এম রুহুল আমিন, মহানগর সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মোঃ বাবুল হাওলাদার, জেলা সহ-সাধারণ সম্পাদক শেখ আব্দুল হান্নান, সিপিবি নেতা সুতপা বেদজ্ঞ, মিজানুর রহমান বাবু, বীর মুক্তিযোদ্ধা নিতাই পাল, রুস্তম আলী হাওলাদার, তোফাজ্জেল হোসেন, কিংশুক রায়, জাহানারা আক্তারী, ফজলুল হক, হুমায়ুন কবীর, মাহফুজুর রহমান মুকুল, টিইউসি মহানগর সভাপতি রঙ্গলাল মৃধা, সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান বাবু, সিপিবি নেতা অশোক বিশ্বাস, সুজিত সাহা, অ্যাড. সুব্রত কু-ু, অ্যাড. প্রীতিষ মণ্ডল, টিইউসি নেতা কামরুল ইসলাম খোকন, হাবিব মাতুব্বর, মহানগর যুব ইউনিয়নের আহ্বায়ক আফজাল হোসেন রাজু, সদস্য সচিব সৈয়দ রিয়াসাত আলী রিয়াজ, যুব ইউনিয়ন নেতা শেখ রবিউল ইসলাম, সাবেক ছাত্র নেতা উত্তম রায়, জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সৌমিত্র সৌরভ, ছাত্র ইউনিয়ন নেতা নাহিদ হাসান, এল এম আরমান, প্রশান্ত মণ্ডল, অপু আবীর বিশ্বাস, তনিম মল্লিক প্রমুখ। বক্তারা বলেন, কমরেড জি এম শাজাহান ছিলেন পার্টির আদর্শ এবং সিদ্ধান্তের প্রতি সর্বদা আনুগত্যশীল। নিজের ব্যক্তিগত ও পারিবারিক জীবনের বিদ্যমান সংকটের ঊর্ধ্বে উঠে পার্টি এবং পার্টির আদর্শকেই সর্বাধিক গুরুত্ব দিতেন। তাঁর উপর অর্পিত দায়িত্ব পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পালনের ক্ষেত্রে তিনি ছিলেন সর্বোচ্চ আন্তরিক ও সচেষ্ট। শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়েও আমৃত্যু পার্টির সভ্যপদ ধারণ করেছেন গর্ব সহকারে। আজকের দিনে ভোগবাদী, লুটপাট, ধান্দাবাজীর তথাকথিত প্রচলিত রাজনীতির মাঠে কমরেড শাজাহানের মত কমিউনিস্ট খুবই প্রয়োজন। বিজ্ঞপ্তি

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..