ক্ষমতা

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা প্রতিবেদক : ক্ষমতা হচ্ছে দেখানোর জিনিস। ঘরে নিয়ে বসে থাকলে কেউ ক্ষমতাবান হতে পারে না। যার যা যোগ্যতা, সীমা তার চাইতে বেশি করা বা দেখানোর নামই হচ্ছে ক্ষমতা। কারণ, সীমা ছাড়াইতে না পারলে ক্ষমতা দেখোনো যায় না। ক্ষমতা দেখানোটা হচ্ছে অনেকটা জমি দখলের মতো ব্যাপার। আইনগতভাবে এক শতাংশ কিনলেন, পরে আরো এক কাঠা দখল করে নিলেন। ফলে সমাজে যারা ক্ষমতা দেখায়, তাদের এমনিতেই আইনগতভাবে কিছু ক্ষমতা আছে। কিন্তু তারা তাদের সেই ক্ষমতায় সুখী না। তারা আরো ক্ষমতা চায়। তাই এই দেশে এমপিরা তাদের ক্ষমতা নিয়া খুশি নয়, তিনি মনে করেন তার সবকিছু করার ক্ষমতা থাকতে হবে। পুলিশের কর্মকর্তারা আইনের বলেই ক্ষমতা দেখাতে পারেন। কিন্তু তারা মনে করেন, থানা হেফাজতে মানুষ মারলে আবার বিচার কিসের? সরকারি আমলার দাপটের কথা তো বলে শেষ করা যাবে না। কিন্তু তিনি তাতেই সন্তুষ্ট না। তিনি মনে করেন, তিনি যে এলাকায় থাকবেন, সেই এলাকার সবকিছুই তার কথায় হবে। মানুষ কখন ঘর থেকে বের হবে, কার টেলিভিশন থাকবে না থাকবে- সবকিছুতে তার কথাই শেষ কথা। নাহলে আবার আমলা কিসের! এই তো সম্প্রতি মাদারীপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) রহিমা খাতুন বলে দিয়েছেন, তার জেলায় সন্ধ্যার পর কোনো ইয়াং ছেলে-মেয়ে ও শিক্ষার্থীরা বাড়ির বাইরে যেতে পারবে না। যদি প্রয়োজন হয় তাহলে অভিভাবক নিয়ে বাইরে যাবে। এ ছাড়া শহর ও গ্রামের চায়ের দোকানগুলোয় টেলিভিশন থাকা চলবে না। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে শহর-গ্রামের দোকান বন্ধ করতে হবে। দোকানের এই টেলিভিশনের কারণে আড্ডা বেশি হয়। এতে যারা শিক্ষার্থী, তারা পড়াশোনা করে না। আর যারা পড়াশোনা করে না, কৃষক বা কাজ করে, তারা অনেক সময় ধরে এখানে অলস সময় কাটায়। ফলে তার পরিবারে কী হচ্ছে, তার ছেলে-মেয়ে পড়াশোনা করছে কি না, সেদিকে খেয়াল রাখে না। এ কারণে চায়ের দোকানে টেলিভিশন রাখা যাবে না। ডিসি মহোদয় বলেছেন, ফলে সাধারণ মানুষের তো সেটি মানতেই হবে। ডিসিই এখন নির্ধারণ করে দিবেন, কে কতক্ষণ বাইরে থাকবে, কার দোকানে টিভি চলবে, কে বাড়িতে বসে চা খাবে, আর কে দোকানে বসে চা খাবে!!

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..