তিন বছরে বস্তিতে ৯৫৩টি অগ্নিকাণ্ড

শূন্য থেকে আসে আগুন পুড়িয়ে যায় চলে

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

পুড়ে যাওয়া মহাখালীর সাততলা বস্তির ধ্বংসস্তুপ থেকে পরিবারের সামান্য সম্বলটুকু উদ্ধারের চেষ্টা এক নারীর
একতা প্রতিবেদক : রাজধানী ঢাকায় ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে তিনটি বস্তিতে অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে। এই তিনটি অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে রাজধানীর মহাখালীর সাততলা বস্তি, রাজধানীর মোহাম্মদপুর বাবর রোডের বিহারিপট্টি ও মিরপুরের কালশী বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন বাউনিয়াবাদের বস্তিতে। এতে পুড়ে গেছে ৩০০ ঘর আর ৫০টি দোকান। নিম্ন আয়ের অনেক মানুষ সবকিছু হারিয়ে এই শীতের মধ্যে খোলা আকাশের নিচে আশ্রয় নিয়েছে। ফায়ার সার্ভিসের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৩ নভেম্বর মধ্যরাতে লাগা আগুনে মহাখালীর সাততলা বস্তির ২০০ ঘর ও ৩৫টির বেশি দোকান পুড়েছে। এর পরদিন প্রায় কাছাকাছি সময়ে মিরপুরের কালশী বস্তিতে লাগা আগুনে ৫৫টি ঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এর আগে ২০১৯ সালের গত ২৬ ডিসেম্বরের মধ্যরাতেও এই বস্তিতে অগ্নিকাণ্ড ঘটেছিলো। ফায়ার সার্ভিস তখন জানিয়েছিল, ওই আগুনে বস্তির শতাধিক ঘর ভস্মীভূত হয়েছিল। বস্তির বাসিন্দারা তখন জানিয়েছিলো, ষড়যন্ত্র করে তাদের বস্তিতে আগুন দেওয়া হয়েছিলো। সূত্র জানায়, এসব আগুনের ঘটনায় মামলা হয়। ২০১৭ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত তিন বছরে বস্তিতে ৯৫৩টি অগ্নিকাণ্ড ঘটলেও একটিতেও অভিযোগপত্র দাখিল করেনি পুলিশ। তাই কাউকে দায়ীও করা যায়নি। প্রশ্ন আসতে পারে, তাহলে আগুন কি শূন্য থেকে এসে সবকিছু পুড়িয়ে চলে যায়? বিশ্লেষকরা বলছেন, উচ্ছেদ ও দখল নিতে এসব বস্তিতে বারবার আগুন লাগানোর অভিযোগ করা হলেও কারণ খতিয়ে দেখা হচ্ছে না। এসব অগ্নিকাণ্ডে দেশের অর্থনীতির যেমন ক্ষতি হচ্ছে, তেমনি অমানবিক একটি পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে। সাধারণত বস্তিগুলো সরকার বা ব্যক্তি মালিকানাধীন পরিত্যক্ত জমিতে গড়ে ওঠে। অনেক সময় ভূমি মালিক জমি খালি করার জন্য বস্তিতে আগুন লাগিয়ে দেন। এমন ঘটনা আগেও ঘটেছে। তাই সিটি করপোরেশন, থানা-পুলিশসহ সংশ্লিষ্টদের তদন্ত করে অগ্নিকাণ্ডের কারণ বের করতে হবে। পাশাপাশি ভুক্তভোগীদের সহায়তায় স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান, অর্থাৎ সিটি করপোরেশনকে এগিয়ে আসতে হবে।’ ফায়ার সার্ভিসের তথ্য মতে, চলতি বছর জানুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত ১০ মাসে ৯৩টি বস্তিতে অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে। এর মধ্যে ঢাকায় ২৭ এবং চট্টগ্রামে ২৯টি বস্তিতে আগুন লাগে। ২০১৯ সালে সারা দেশে ১৭৪টি, ২০১৮ সালে ৫২৫টি এবং ২০১৭ সালে ২৫৪টি বস্তিতে অগ্নিকাণ্ড ঘটে। এই তিন বছরে সবচেয়ে বেশি অগ্নিকাণ্ড ঘটে চট্টগ্রামের বস্তিতেÍ৬০২টি। ঢাকায় ঘটেছে ৯৬টি বস্তিতে। গত ৩০ অক্টোবর কল্যাণপুরের নতুন বাজার বস্তির ৭ নম্বর সেকশন এলাকায় অগ্নিকাণ্ডে দুজন দগ্ধও হয়। এই বস্তির ৮ নম্বর সেকশন এলাকায় ২০১৬ সালের ২২ জানুয়ারি ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ঘটে। মিরপুরের রূপনগরের ৭ নম্বর সেকশনের ঝিলপাড় চলন্তিকা বস্তিতে গত বছরের ১৬ আগস্ট, গত ২৪ জানুয়ারি এবং ১১ মার্চ তিনবার অগ্নিকাণ্ড ঘটে। এতে শত শত ঘর পুড়ে গেছে। ছোট হয়ে এসেছে বস্তির পরিধি। কয়েকজন বাসিন্দা বলেন, স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই দীর্ঘদিন ধরে বস্তিটি নিয়ন্ত্রণ করে একটি প্রভাবশালীচক্র। সরকারি জায়গার নিয়ন্ত্রণ নিতে মরিয়া আরো কিছু ব্যক্তি।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..