জম্মু-কাশ্মিরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবার মুক্তি

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

একতা বিদেশ ডেস্ক : এক বছরেরও বেশি সময় গৃহবন্দি থাকার পর মুক্তি পেয়েছেন জম্মু-কাশ্মিরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও পিপলস ডেমোক্র্যাটিক পার্টির (পিডিপি) প্রেসিডেন্ট মেহবুবা মুফতি। ১৪ অক্টোবর রাত পৌনে ১০টা নাগাদ তাকে মুক্তি দেওয়া হয়। মেহবুবার মুক্তির বিষয়টি টুইট করে জানিয়েছেন জম্মু-কাশ্মির সরকারের মুখপাত্র রোহিত কানসাল। বিতর্কিত একটি আইনের অধীনে তাকে কোনো অভিযোগ ছাড়াই দু’বছর আটকে রাখার অনুমোদন দেয়া হয়। জম্মু-কাশ্মিরের বিশেষ অধিকার ও স্বায়ত্তশাসন বাতিলে ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ প্রত্যাহারের পর ২০১৯ সালের ৫ আগস্ট রাজ্যটির তিন সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লাহ, ওমর আবদুল্লাহ ও মেহবুবা মুফতিসহ শীর্ষস্থানীয় রাজনীতিকদের আটক করে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। ২০২০ সালের শুরুতে ওমর আব্দুল্লাহ ও ফারুখ আব্দুল্লাহসহ কয়েকজনকে মুক্তি দেওয়া হয়। তবে গৃহবন্দি ছিলেন মেহবুবা। অভিযোগ রয়েছে, বিভিন্ন অজুহাতে তার গৃহবন্দির সময়কাল বাড়ানো হয়। সর্বশেষ জুলাইয়ে তিন মাসের জন্য মেহবুবার গৃহবন্দির সময়কাল বাড়িয়েছিল প্রশাসন। ৩৭০ অনুচ্ছেদ প্রত্যাহারের পর মেহবুবাকে প্রথমে দু’টি সরকারি বাসস্থানে আট মাস গৃহবন্দি করে রাখা হয়। তারপর এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে তাকে ফের আটক করা হয় জননিরাপত্তা আইনে। এরপর তার বাসভবন ‘ফেয়ার ভিউ’য়ে স্থানান্তরিত করা হয় মেহবুবাকে। সেই বাসভবনকে অস্থায়ী জেলে পরিণত করা হয় এবং সেখানেই গৃহবন্দি করে রাখা হয় পিডিপি নেত্রীকে। এই আটকাদেশকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছিলেন তার মেয়ে। তার মায়ের একাউন্ট ব্যবহার করে তিনি টুইট করেছেন। এতে তার মেয়ে লিখেছেন, অবশেষে মিসেস (মেহবুবা) মুফতির অবৈধ আটকবস্থার ইতি ঘটছে। এই কঠিন সময়ে আমাকে সমর্থন দেয়ার জন্য ধন্যবাদ জানাই সবাইকে। গত বছর আগস্টে ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেয়ার আগে অধিকারকর্মী, স্থানীয় রাজনীতিক ও ব্যবসায়ীসহ কয়েক হাজার মানুষকে আটক করে ভারত সরকার।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..