রাশিয়ার বিরুদ্ধে নতুন করে নিষেধাজ্ঞা

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email

একতা বিদেশ ডেস্ক : রাশিয়ার বিরুদ্ধে নতুন করে নিষেধাজ্ঞা জারি করতে যাচ্ছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। ১৩ অক্টোবর লুক্সেমবার্গে ইইউ পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের এক বৈঠকে এ মতৈক্য হয়েছে। রুশ সরকার কর্তৃক দেশটির বিরোধীদলীয় নেতা আলেক্সাই নাভালনি-কে বিষ প্রয়োগে হত্যাচেষ্টার দায়ে এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। এর আগে ৩ অক্টোবর আলেক্সি নাভালনিকে বিষ প্রয়োগের ঘটনায় রাশিয়ার বিরুদ্ধে নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) কাছে আহ্বান জানিয়েছেন জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস। জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস নিউজ পোর্টালকে টি-অনলাইনকে বলেন, ‘আমি নিশ্চিত নিষেধাজ্ঞা ছাড়া আর কোনো বিকল্প নেই।’ তিনি আরও বলেন, ‘নিষেধাজ্ঞাগুলোর অবশ্যই একটি লক্ষ্য থাকতে হবে এবং আনুপাতিকভাবে তৈরি করতে হবে। এ ধরনের আন্তর্জাতিক রাসায়নিক অস্ত্র কনভেনশনের মারাত্মক লঙ্ঘনের জবাব না দিয়ে এড়িয়ে যাওয়া যায় না। এ বিষয়ে আমরা ইউরোপে ঐক্যবদ্ধ হয়েছি।’ এই নিষেধাজ্ঞা অবশ্য এখনই চালু হচ্ছে না। কারণ, আগে এর খসড়া তৈরি হবে। ওই খসড়া নিয়ে পর্যালোচনা করবেন আইন বিশেষজ্ঞরা। এরপরই সদস্য দেশগুলোর সম্মতি নিয়ে চূড়ান্ত নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে। জার্মানি ও ফ্রান্সের মতে, রুশ কর্তৃপক্ষ জড়িত না থাকলে নাভালনিকে বিষ প্রয়োগ করা সম্ভব হতো না। মস্কো এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের কোনও যুক্তিগ্রাহ্য ব্যাখ্যা দিতে পারেনি। জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস বলেছেন, নাভালনিকে বিষ প্রয়োগের ফল পেতে হবে রাশিয়াকে। এর জন্য জার্মানি ও ফ্রান্স চায় দায়ী কিছু ব্যক্তির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি হোক। ইইউ-র পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা জানিয়েছেন, তারা লুকাশেঙ্কোর বিরুদ্ধেও নিষেধাজ্ঞা জারি করতে চান। বেলারুশে লুকাশেঙ্কো যেভাবে বিক্ষোভকারীদের দমন করছেন ফলে তার ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নিতে চান তারা। এতোদিন ধরে লুকাশেঙ্কো বিক্ষোভকারীদের ধরে ধরে কারাগারে পাঠিয়েছেন। পুলিশ লাঠিচার্জ করছিল। কাঁদানে গ্যাস দিয়ে বিক্ষোভকারীদের মোকাবিলা করা হচ্ছিল। সর্বশেষ নিরাপত্তা কর্মীদের বিক্ষোভকারীদের ওপর আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহারের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। অর্থাৎ, বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালানোর অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ ইউরোপীয় ইউনিয়ন। ইইউ পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘বেলারুশে সহিংসভাবে বিক্ষোভকারীদের মোকাবিলা করা হচ্ছে। ইইউ এটা মেনে নিতে পারছে না। তাই লুকাশেঙ্কো-সহ উচ্চপদে থাকা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হতে পারে।’ জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস বলেছেন, ‘বেলারুশে পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি। সরকার সহিংস পথে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভের মোকাবিলা করছে। বিক্ষোভকারীদের গণহারে গ্রেফতার করা হচ্ছে। তাই আমরা লুকাশেঙ্কোসহ অন্যদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার কথা বলছি।’

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..