রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের নয়া ষড়যন্ত্র, বাম জোটের উদ্বেগ-প্রতিবাদ

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা প্রতিবেদক : রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের নয়া ষড়যন্ত্রে উদ্বেগ এবং এ ধরনের অপচেষ্টার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাম গণতান্ত্রিক জোট। ২৫ জুন বাম গণতান্ত্রিক জোট কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদের সমন্বয়ক ও বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বজলুর রশীদ ফিরোজ এবং কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদের সদস্য সিপিবি সভাপতি মুজাদিুল ইসলাম সেলিম, সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম, বাসদের সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, বাসদ (মার্কসবাদী)’র সাধারণ সম্পাদক মুবিনুল হায়দার চৌধুরী, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি, কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন নান্নু, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পদক মোশরেফা মিশু ও সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের আহ্বায়ক হামিদুল হক এক যুক্ত বিবৃতিতে এ দাবি জানান। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, পাট এবং পাটকল বাংলাদেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সাথে যুক্ত। স্বাধীনতার পর দেশে মোট ৭৭টি পাটকল ছিল। গত ৪৯ বছরে শাসকশ্রেণির দুর্নীতি ও বিশ্বব্যাংক-আইএমএফ এর পরামর্শে গৃহীত ভুলনীতির ফলে এশিয়ার বৃহত্তর পাটকল আদমজীসহ প্রায় ৫০টির বেশি পাটকল বন্ধ হয়ে গেছে। অথচ সারা দুনিয়ায় এখন পলিথিনসহ কেমিক্যাল দ্রব্য বর্জনের ফলে পাট ও পাটজাত দ্রব্যের ব্যবহার ও চাহিদা বাড়লেও বাংলাদেশে অবস্থিত পাটকলগুলোও সরকার বন্ধের ষড়যন্ত্র করছে। করোনা প্রেক্ষাপটে পরিবেশগত কারণে পাট পণ্যের বর্ধিত বাজার বেসরকারি পাটকল মালিকদের একচ্ছত্র নিয়ন্ত্রণে ছাড়ার উদ্দেশ্যেই রাষ্ট্রীয় পাটকল বন্ধের এই সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, প্রায় ৭০ হাজার শ্রমিক ও তাদের পরিবারের প্রায় ৩ লাখ সদস্য এবং পাটচাষী পরিবারের ৩ কোটি সদস্য পাট ও পাট শিল্পের সাথে যুক্ত। তাদের জীবন ও জীবিকা ধ্বংসের আত্মঘাতি এই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার জন্য নেতৃবৃন্দ সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। অন্যথায় পাটকল শ্রমিক ও পাটচাষীদের ঐক্যবদ্ধ করে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধে সরকারের গণবিরোধী সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে তীব্র গণআন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলেও নেতৃবৃন্দ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..