রাজপথে বামপন্থি

সারা দেশে নারীদের নিরাপত্তা বলে কিছু নেই

Facebook Twitter Google Digg Reddit LinkedIn StumbleUpon Email
একতা প্রতিবেদক : সন্ধ্যা সাতটার সময় রাজধানী ঢাকায় ক্যান্টনমেন্টের মতো সুরক্ষিত এলাকার পাশে রাস্তা থেকে একজন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করা হয়। এ থেকেই বোঝা যায় সারা দেশে নারীদের নিরাপত্তা বলতে কিছু নেই। বিচারহীনতার রেওয়াজ, আইনের দীর্ঘসূত্রিতা, নারীর প্রতি সমাজের অধস্তন দৃষ্টিভঙ্গী, মাদক-পর্নোগ্রাফির বিস্তার ইত্যাদির ফলে নারী-শিশু নির্যাতন-ধর্ষণ-হত্যা মহামারী পর্যায়ে পৌঁছেছে। গত ১০ জানুয়ারি সারা দেশে নারী-শিশু নির্যাতন-ধর্ষণ-হত্যার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী ধর্ষণের বিচারের দাবিতে সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা এসব কথা বলেন। মাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের কেন্দ্রীয় সভাপতি রওশন আরা রুশোর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শম্পা বসুর পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, মহিলা ফোরাম এর ঢাকা নগর শাখার সদস্য রুখসানা আফরোজ আশা, প্রীতিলতা, নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সদস্য জেসমিন আক্তার, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের ঢাকা নগর শাখার সভাপতি মুক্তা বাড়ৈ ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাপতি সুস্মিতা মরিয়ম। সমাবেশে বক্তারা আরো বলেন, পুলিশ প্রশাসন বলছে কুর্মিটোলার ওই জায়গাটিতে আগেও নানা অপরাধমূলক ঘটনা ঘটেছে। ছিনতাই ছিল নিয়মিত ঘটনা। মাদকাসক্ত-ভবঘুরেদের আড্ডা এই এলাকায় ছিল। সেখানে আলোকসল্পতা ছিল। তাহলে রাষ্ট্র ও পুলিশ প্রশাসনের কাজ কি ছিল? সারা ঢাকা শহরে এসব ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা রয়েছে, পুলিশ প্রশাসনের দায়িত্ব ছিল এসব এলাকায় জনগণের জানমালের নিরাপত্তা দেওয়া। কিন্তু রাষ্ট্র ও পুলিশ প্রশাসনের কোনো কার্যকর উদ্যোগ আমাদের চোখে পড়ে না। বক্তারা বলেন, পত্রিকায় প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, সারাদেশে নারী-শিশু ধর্ষণ ২০১৮ সালের তুলনায় ২০১৯ সালে দ্বিগুণ বেড়েছে। এক ভয়াবহ নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে নারী ও শিশুরা বসবাস করছে।

Print প্রিন্ট উপোযোগী ভার্সন



Login to comment..
New user? Register..